শনিবার, ১০ জুন ২০২৩, ২৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

নেত্রকোনায় যানজটে নাকাল পৌরবাসী

আপডেট : ২০ মার্চ ২০২৩, ০২:৩২

নেত্রকোনা শহর এখন যানজটের শহরে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে মেছুয়াবাজার, তেরি বাজার, আকড়ার মোড় এবং জয়ের বাজার এলাকায় যানজটের কারণে জনজীবন অতিষ্ঠ।  ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা যখন শহরকে গ্রাস করেছে, তেমনি  পায়ে চালানো রিকশার স্থান দখল করে এখন ব্যাটারিচালিত এক ধরনের রিকশাও শহরের এবং গ্রামগঞ্জের সড়কে দাপটের সঙ্গে চলছে। আর দিনদিন বাড়ছে মিশুক। এ কারণে যানজটের কবলে পড়েছেন পৌরবাসী।

এক সময় জেলা শহরে শুধু পায়ে চালানো রিকশা যাত্রী নিয়ে চলাচল করত। গত কয়েক বছরে শহরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা আসতে থাকে এবং জেলা শহরে প্রায় ৪ হাজার অটোরিকশা চলে। কিন্তু জনগণের চাপে পৌরসভা শহর থেকে ৮০০ অটোরিকশা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অটোগুলো সাদা আর লাল রং করে দেওয়া হয়েছে।  এক দিন চলবে সাদা রং এবং পরদিন চলবে লাল রং করা অটো। এ নিয়ম মানতে কঠোর ব্যবস্থা নিলেও শহরের বাইরে থেকে অনেক অটো পৌর এলাকায় ঢুকে দিনদিন যানজট তীব্রতর করছে।  পৌরসভা এলাকার মধ্যে চলাচল করতে পারবে এমন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা এবং  ব্যাটারি ও পায়ে চালিত রিকশার লাইসেন্স রয়েছে মাত্র দেড় হাজারের। কিন্তু চলছে এরও  বেশি। অটোচালক তাহের মিয়া বলেন, অতিরিক্ত অটো চলাচল করায় যানজটও বেড়েছে। পৌরসভা থেকে নিয়ম করে দিলেও অনেকে সেই নিয়ম মানছেন না।

পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনশি বলেন, যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ যথেষ্ট কাজ করছে। শহরের সব সড়কই অপ্রশস্ত। এ কারণেই যানজট বেশি। পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম খান বলেন, ইতিমধ্যে নতুন লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ করা হয়েছে। বেআইনিভাবে রিকশা বা অটো চলাচলেও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, শহর যানজটমুক্ত করতে ইউনিয়নের অটো পৌর এলকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাও রয়েছে। কিন্তু এরপরেও প্রভাবশালী মহলের কারণে শহরে অটো চালানো হচ্ছে। তবে লাইসেন্স বিহীন অটো বন্ধের জন্য পৌরসভা থেকে ইতিমধ্যে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

 

ইত্তেফাক/ইআ