বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

প্রতারণার অভিযোগ

মানহানির মামলা করবোই: রিয়াজ

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৩, ২০:১০

অভিযোগ-মামলা-আদালত পিছু ছাড়ছে না ঢালিউডের। এবার বাংলা চলচ্চিত্র পর্দা কাপাঁনো নায়ক রিয়াজ আহমেদের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ তুলেছেন হারুনুর রশীদ কাজল (জ্যাম্বস্ কাজল) নামের এক পরিচালক।

শনিবার (১ এপ্রিল) দুপুরে এফডিসিতে এসে চলচ্চিত্র পরিচালক, শিল্পী ও প্রযোজক পরিবেশক তিনটি সমিতিতে দুই পাতার লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন তিনি।


 
কাজলের অভিযোগ, ‘রংপুর কেমিক্যাল লিমিটেড’ (আরসিএল) একটি প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের জন্য রিয়াজকে অভিনেতা হিসেবে চুক্তিবদ্ধ করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে সেই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সখ্য তৈরি করে কাজলের নামে ‘মিথ্যা ও অপপ্রচার’ চালিয়ে কাজটি নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন। এর ফলে পরিচালক কাজলের প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাড প্লাস’র সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে রিয়াজের প্রতিষ্ঠান ‘পিংক ক্রিয়েশন লিমিটেড’র সঙ্গে নতুন চুক্তি করে আরসিএল। সেই চুক্তি মোতাবেক শুক্রবার (৩১ মার্চ) থেকে শুটিংও শুরু করেছেন রিয়াজ ও তার দল।

কাজলের দাবি, ‘আমার রিজিক হরণকারী, ওয়াদা ভঙ্গকারী, সম্মান ধ্বংসকারী, জাতীয় বেঈমান, চিত্রনায়ক রিয়াজ কর্তৃক আমার ওয়ার্ক অর্ডারপ্রাপ্ত তিনটি বিজ্ঞাপনের নির্মাণ কাজ দ্রুত বন্ধ করার যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সমিতির কাছে বিনীত আবেদন করছি। সেই সঙ্গে জানাচ্ছি এমন কর্মকাণ্ড করার ও আমার মান সম্মান নষ্ট করার দায়ে রিয়াজের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

 চিত্রনায়ক রিয়াজ আহমেদ

ইত্তেফাক অনলাইনকে রিয়াজ বলেন, আমি একটি বিজ্ঞাপনের জন্য আর সি এল নামক একটি প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। সেখানে পরিচালক জ্যাম্বস্ কাজলও উপস্থিত ছিলেন। পরে কোম্পানি আরেকজন পরিচালককে নিয়ে বিজ্ঞাপনটি করেছেন। এটা কোম্পানির এখতিয়ার। কোম্পানি করতেই পারে। আমার চুক্তিপত্র হয়েছে কোম্পানির সঙ্গে। তার (জ্যাম্বস কাজল) সঙ্গে আমার কোনো চুক্তি হয়নি।’

রিয়াজ আরও বলেন, তিনি (কাজল) নানান রকম মন্তব্য করছেন। কেন করছেন তা আসলে আমার বোধগম্য না। তিনি না জেনে একজন শিল্পী সম্পর্কে মিথ্যা অভিযোগ করা কি ঠিক? এটাতে তো দেশের সব শিল্পীর মান ক্ষুন্ন হচ্ছে। এ অবস্থায় আমি যদি চুপ করে থাকি তাহলে তো বিষয়টা মেনে নেওয়া হলো। তিনি অন্যায় করেছে তার শাস্তি হওয়া দরকার বলে আমি মনে করি। তথ্য আইনেও তার নামে মামলা হতে পারে কিংবা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনেও মামলা হতে পারে। সুতরাং আাম মামলা করবোই।’

 

ইত্তেফাক/বিএএফ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন