রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের কোন ছাড় নেই: আইজিপি 

আপডেট : ১৭ মে ২০২৩, ২১:৫৪

কিশোর অপরাধের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তাদেরকে ছাড় দেওয়ার কোন সুযোগ নেই।

বুধবার (১৭ মে) সকালে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়ামে দুই দিনব্যাপী পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কোয়ার্টারলি কনফারেন্সের প্রথম দিনের প্রথম অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে আইজিপি এ কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, মাদকের সাথে কোন পুলিশ সদস্যের সম্পৃক্ততা থাকলে তার বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান 'জিরো টলারেন্স'। তিনি মাদকের সাথে সম্পৃক্ত পুলিশ সদস্যকে কোন ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না বলে জানান ।

পুলিশ প্রধান বলেন, জঙ্গি দমনে বাংলাদেশ পুলিশের অনেক সাফল্য রয়েছে। তিনি বলেন, জঙ্গিরা তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। অনলাইনেও তারা সক্রিয়। তিনি বলেন, জঙ্গি দমন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। তিনি এক্ষেত্রে সাইবার পেট্রোলিং জোরদার করারও নির্দেশ দেন।

আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, সার্ভিস ডেলিভারি সেন্টার হিসেবে থানাকে গড়ে তুলতে হবে। তিনি থানায় জনগণের কাঙ্ক্ষিত সেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। 

তিনি বলেন, পুলিশ অনেক ভালো কাজ করছে বলেই দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে, পাশাপাশি পুলিশের প্রতি জনগণের প্রত্যাশাও বেড়েছে। জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী সেবা প্রদানের জন্য পুলিশ সদস্যদের আরও সচেষ্ট হতে হবে।

পুলিশের কার্যকর পদক্ষেপের কারণে বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা ছাড়াই জনগণ নির্বিঘ্নে গত ঈদুল ফিতর উদযাপন করতে পেরেছেন উল্লেখ করে পুলিশ সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে আইজিপি বলেন,  জনগণ যাতে আগামী ঈদুল আযহাও নিরাপদে উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপন করতে পারেন সেজন্য এখন থেকেই কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে।  তিনি এক্ষেত্রে ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত এবং কোরবানির পশু পরিবহন নির্বিঘ্ন করার নির্দেশ প্রদান করেন।

এসময় কনফারেন্সে অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) মোঃ কামরুল আহসান, ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক, র‌্যাব মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন, স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্তি আইজিপি মো. মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত আইজিপিগণ, ঢাকাস্থ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের প্রধানগণ, সকল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলার পুলিশ সুপার অংশগ্রহণ করছেন।

ইত্তেফাক/এমএএম