রোববার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৯ আশ্বিন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ভোট ডাকাতি নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বক্তব্য

স্থানীয় সরকারকে ব্যবস্থা নিতে ইসির চিঠি, ৮ জনকে আইনি নোটিশ 

আপডেট : ০৯ জুন ২০২৩, ১৭:৫৩

কক্সবাজারের উখিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরীর ‘২০১৯ সালের উপজেলা নির্বাচনে ইমরুল তার নেতৃত্বে ৮টি কেন্দ্রের ভোট ডাকাতি করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করেছি’ এমন বক্তব্যে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) নির্বাচন কমিশনের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মো. আশাদুল হক সাক্ষরিত এক চিঠিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছাড়াও নোটিশপ্রাপ্তরা হলেন, নির্বাচন কমিশন সচিব, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক, কক্সবাজারের পুলিশ সুপার, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা, উখিয়া উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা, কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল এবং হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী। 

একই দিনে ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ ৮ জনকে আইনি নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহ-সম্পাদক মো. মাহবুবুর রহমান খান।

নোটিশে বলা হয়, ৭ জুন একটি ভিডিওতে নির্বাচনে অনিয়ম নিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন যুবলীগ নেতা ইমরুল। তার বক্তব্যের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সংগঠিত অনিয়ম, নির্বাচনী ফলাফল পরিবর্তন সুস্পষ্ট। তার বক্তব্যটি নির্বাচন নিয়ে সৃষ্ট বর্তমান বিতর্ক এবং নির্বাচনী অনিয়মের বিষয়ে তথ্যভিত্তিক স্বীকারোক্তি। তার বক্তব্য থেকে এটাও স্পষ্ট নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় জড়িত সকলেই অনিয়ম ও ভোট ডাকাতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। যা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা ২০১৩ এর ৭০, ৭৩, ৭৭,৭৯,৮০ ও ১ এর বিধি স্পষ্ট লঙ্ঘন। আগামী ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল বাতিল এবং উক্ত নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে নির্বাচনী বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়।

ইত্তেফাক/এবি/পিও