রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

‘সেলিব্রেটি লিগ নিয়ে প্রশ্ন করবেন না, প্লিজ’

আপডেট : ৩১ অক্টোবর ২০২৩, ০৯:০৮

 

সালাহউদ্দিন লাভলু। নির্মাণ এবং অভিনয়, দুই মাধ্যমেই ভিন্নতার ছাপ রাখছেন। রঙের মানুষ, ভবের হাট, হাড়কিপ্টা, আলতা সুন্দরী, সাকিন সারিসুরি, ওয়ারেন, ঢোলের বাদ্য’র মতো অসংখ্য জনপ্রিয় নাটক জমা করেছেন ঝুলিতে। তবে দীর্ঘদিন চলচ্চিত্র নির্মাণে দেখা মেলেনি তার। গুণী এই নির্মাতা-অভিনেতা কথা বললেন ইত্তেফাকের সঙ্গে। 

নতুন কোন কাজগুলো নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

‘আপন মানুষ’ নামের একটি নতুন সিরিয়ালেন কাজ শুরু করেছি। এরইমধ্যে ৪০ পর্বের মতো শুটিং শেষ করেছি। আশা করছি নতুন বছরের শুরু থেকেই নাটকটি প্রচারে যাবে। পাশাপাশি শিগগিরই ‘আমি হুমায়ূন আহমেদ হতে চাই’ শিরোনামের একটি একক নাটকের কাজ শুরু করবো।

এর আগে নতুন চলচ্চিত্র নির্মাণের কথা বলেছিলেন। বিষয়টি কতদূর এগিয়েছে?

চলচ্চিত্র নির্মাণের ইচ্ছে আমার বরাবরই আছে। কিন্তু সিনেমার অবস্থা তো এখন অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। তাছাড়া সিনেমা নির্মাণের কথা শুনলেই প্রযোজকরা বলেন, হল নেই! বাজেট নেই! কোনোরকম কম্প্রোমাইজ করে আমি আসলে সিনেমা নির্মাণ করতে চাই না।

কিন্তু চলচ্চিত্রের অবস্থা তো অনেকটাই পরিবর্তন হয়েছে...

হ্যাঁ, এটা সত্য যে চলচ্চিত্রে অবস্থা কিছুটা পরিবর্তন হচ্ছিল। দর্শক হলমুখি হচ্ছিলেন। কিন্তু আমরা সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারছি না। কিছু ছবি প্রশংসিত হয়েছে, কিছু ব্যবসা করেছে। নির্মাতাদের গল্প বলার ধরন এবং দর্শক রুচির পরিবর্তনও হয়েছে। তবে কয়েক সপ্তাহ ধরে চলার মতো ছবি তো খুব বেশি নির্মিত হচ্ছে না। বাণিজ্যিকভাবে সফল না হলে তো প্রযোজকরা নতুন ছবি করতে চাইবেন না।

আমরা কেন ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে ব্যর্থ হচ্ছি?

এটা আসলে বলা মুশকিল। হলমালিকরা বলে দর্শকরা এ ধরনের গল্প দেখতে চায়। আবার দর্শকরা সুস্থ বিনোদন চাচ্ছে। আমার মনে হয়, অনেকেই দর্শকদের চাওয়াটা বুঝতে পারছেন না। যে কারণে এমনটা হচ্ছে। তাছাড়া আমরা তো কখনও অর্থের চিন্তা করে নাটক-সিনেমা বানাইনি। কিন্তু এখন সেই সমীকরণটাও নেই।

ওটিটিতেও অনেকে যুক্ত হয়েছেন। কিন্তু লাভলুকে তার দর্শকরা পাচ্ছে না কেন?

এই মাধ্যমটিতে মূলত ড্রার্ক স্টোরি বেশি দেখানো হচ্ছে। আমি সেই জায়গাতে যেতে চাই না। আমি চাই সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনের গল্প বলতে। কিন্তু এ ধরনের গল্পে অনেকেই ইন্টারেস্টেড হচ্ছে না। তবে আমি স্ক্রিপ্ট করে যাচ্ছি। দেখা যাক কী হয়!

অনেকেই বলছেন ওটিটির কারণে নাটকের প্রতি শিল্পীদের অনিহা তৈরি হচ্ছে। আপনি কী বিষয়টি সঙ্গে একমত?

হ্যাঁ, এটা সত্যি ঠিক। এই টিভি থেকে যারা পরিচিতি পেয়েছেন, অবস্থান তৈরি করেছেন তারা এখন টিভি নাটকের প্রতি আগ্রহী না। এটা সত্যি দুঃখজনক!

নতুন শিল্পী তৈরিতেও সিনিয়র নির্মাতার অনিহা রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কথাটি কতটা সত্য?

দেখুন, আমি কিন্তু প্রতিটি নাটকেই নতুনদের সুযোগ দিয়ে থাকি। নতুন শিল্পী তৈরির জন্য কাউকে না কাউকে তো এগিয়ে আসতে হবে। আমি সেই চেষ্টাটা শুরু থেকেই করে যাচ্ছি।

নানা আলোচনা এবং তর্ক-বিতর্কের পরও মাঠে গড়ালো না সেলিব্রেটি লিগের ফাইনাল খেলাটি। এর কারণ কী?

এই বিষয়টি নিয়ে আমি পরে কথা বলবো। আপাতত সেলিব্রেটি লিগ নিয়ে প্রশ্ন করবেন না, প্লিজ।

ইত্তেফাক/এএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন