বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ঋণের জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্তির নতুন নীতিমালা

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ০৬:০০

এখন থেকে ১ কোটি টাকার বেশি ব্যাংক ঋণের জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে থেকে অনুমতি নিতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা জারি করে সব তপসিলি ব্যাংক এবং জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীদের পাঠানো হয়েছে।

নীতিমালা সংক্রান্ত সার্কুলারে বলা হয়েছে, ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধন) আইন, ২০২৩ এর মাধ্যমে ধারা ২৯ক সংযোজন করা হয়েছে। ধারার উদ্দেশ্যপূরণ করতে কোনো ব্যাংকের ঋণ (ইসলামি শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংকের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ) গ্রহীতা কর্তৃক গৃহীত বা গৃহীতব্য ঋণের বিপরীতে প্রদত্ত জামানত মূল্যায়নের জন্য যোগ্য জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ব্যাংকে তালিকাভুক্ত হতে হবে।

ঋণঝুঁকি প্রশমনে ব্যাংক কর্তৃক ঋণগ্রহীতার নিকট থেকে সাধারণত স্থাবর সম্পত্তি যথা জমি ও ইমারত এবং অস্থাবর সম্পত্তি তথা মেশিনারিজ, সহজে বিপণনযোগ্য দ্রব্যাদি প্রভৃতি জামানত হিসেবে গ্রহণ করা হয়ে থাকে। ব্যাংকিং খাতে ঋণের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা, ঋণ শৃঙ্খলা বজায় রাখা, খেলাপি ঋণ আদায়, অবলোপন, নন ব্যাংকিং সম্পদ অন্তর্ভুক্তিকরণ, ঋণ পুনঃ তপসিলিকরণসহ শ্রেণীকৃত ঋণের বিপরীতে রক্ষিতব্য প্রভিশন সঠিকভাবে হিসাবায়ন ইত্যাদি প্রয়োজনে ঋণের বিপরীতে গৃহীত জামানতের যথাযথ ও নির্ভরযোগ্য মূল্যায়ন জরুরি। যথাযথ ও নির্ভরযোগ্য মূল্যায়ন নিশ্চিতকরণের জন্য যোগ্য জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর ন্যূনতম যোগ্যতা ও উপযুক্ততা নির্ধারণ সাপেক্ষে তালিকাভুক্তি এবং তালিকা প্রকাশ অত্যাবশ্যক। কোনো ব্যাংকের ঋণগ্রহীতা কর্তৃক গৃহীত বা গৃহীতব্য ঋণের বিপরীতে প্রদত্ত জামানত মূল্যায়নের জন্য যোগ্য জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে একটি সুনির্দিষ্ট, স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে তালিকাভুক্তির জন্য এ নীতিমালা প্রণয়ন করা হলো।

নীতিমালা জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানের ন্যূনতম যোগ্যতা ও অযোগ্যতা সম্পর্কে বলা হয়েছে, তালিকাভুক্তির আবেদন দাখিল করার সময় প্রতিষ্ঠানের প্রধান মূল্যায়কের সর্বোচ্চ বয়সসীমা হতে হবে ৭৫ বছর। বাংলাদেশ সার্ভে অ্যান্ড ভ্যালুয়েশন কোম্পানিজ, ফার্মস অ্যান্ড ইন্ডিভিজুয়াল কন্সার্নস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসভিসিএফআইসিএ); বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স সার্ভেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন; অথবা বাংলাদেশ ব্যাংকের বিবেচনায় সমজাতীয় স্বীকৃত কোনো পেশাজীবী সংগঠন বা ইনস্টিটিউশন বা অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে ন্যূনতম একটির সদস্যপদ থাকতে হবে।

সংগঠনের সদস্য ছাড়াও ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশ এবং ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশের সদস্য এ সার্কুলারে উল্লিখিত শর্তসমূহ পূরণ সাপেক্ষে তালিকাভুক্তির জন্য আবেদন করতে পারবে; ব্যাংক/ আর্থিক প্রতিষ্ঠান/ সরকারি প্রতিষ্ঠান/ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি/ মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানের সার্ভে/ ভ্যালুয়েশন কাজে ন্যূনতম তিন বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে; জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে ব্যক্তিমালিকানাধীন, অংশীদারি বা লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে বিদ্যমান আইনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিবন্ধন থাকতে হবে/ জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানে দক্ষ ও অভিজ্ঞ জনবল (হিসাবরক্ষক, পুরপ্রকৌশলী, যন্ত্রপ্রকৌশলী, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী ইত্যাদি—প্রয়োজন অনুসারে) এবং প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সার্ভেয়ার থাকতে হবে/ মূল্যায়ন কাজে প্রতিষ্ঠানের আধুনিক যন্ত্রপাতিসহ প্রয়োজনীয় লজিস্টিক সুবিধা থাকতে হবে।

জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে তালিকাভুক্তিতে কতিপয় অধিকতর যোগ্যতা অগ্রাধিকার প্রাপ্তির জন্য বিবেচিত হবে। তবে উক্ত যোগ্যতা ব্যতিরেকেও কোনো প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। যেমন—প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কাজে নতুন প্রযুক্তি আত্তীকরণের সক্ষমতা।

জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠানের স্থায়ী জনবলের মধ্যে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট (সিএমএ), চাটার্ড একাউন্টেন্ট (সিএ, এসিসিএ), চাটার্ড ফাইন্যান্সিয়াল অ্যানালিস্ট (সিএফএ), চাটার্ড জেনারেল অ্যাকাউন্টেন্ট (সিজিএ), চাটার্ড গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্ট (সিজিএমএ), চাটার্ড অ্যাকাউন্টিং টেকনিশিয়ান (সিএটি), সার্টিফাইড ভ্যালুয়েশন অ্যানালিস্ট (সিভিএ) ফাইন্যান্সিয়াল মডেলিং অ্যান্ড ভ্যালুয়েশন অ্যানালিস্ট (এফএমভিএ) ইত্যাদি প্রফেশনাল ডিগ্রিধারীর অন্তর্ভুক্তি থাকতে হবে। ন্যূনতম তিনটি ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জামানত মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে তালিকাভুক্ত থাকা। প্রধান মূল্যায়ক/সার্ভেয়ারের সংশ্লিষ্ট কাজে পাঁচ বছর বা তার অধিক সময়ের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম