বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা রওশন এরশাদের খুব ভালো সিদ্ধান্ত: চুন্নু

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ০১:০১

জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবেন না। তিনি অভিযোগ করে বলেছেন, জাপা মনোনয়নের ক্ষেত্রে দলের নেতাদের অবমূল্যায়ন করেছে। দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু অসহযোগিতা করেছেন। এ কারণে তিনি নির্বাচন করবেন না।

বুধবার রাতে ঢাকার গুলশানের বাসায় অনুসারীদের নিয়ে এক বৈঠকের পর তিনি এই ঘোষণা দেন। তিনি একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। তবে সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্ন নেননি। 

নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন আজ বৃহস্পতিবার। এর আগের রাতেই রওশন নাটকীয় এই ঘোষণা দিলেন।

রওশনের এই ঘোষণার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জাপা মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু ইত্তেফাককে বলেন, 'ম্যাডাম খুব ভালো সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আমি তার সিদ্ধান্তকে স্বাগত ও স্যালুট জানাই। কারণ তিনি আমাদের সবার কাছে শ্রদ্ধার। তিনি বয়োবৃদ্ধা ও দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। নির্বাচন করার মতো শারীরিক অবস্থায় তিনি আসলে নেই। কিন্তু কয়েকজন ব্যক্তি তার নাম ব্যবহার করে দলে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছিল। এতে তিনি হেয় হচ্ছিলেন। নির্বাচন না করার সিদ্ধান্তের মাধ্যমে তিনি সেটা থেকে মুক্ত হলেন। দলেও আর কোনো বিভ্রান্তি থাকবে না।'

এদিকে রওশন এরশাদ ও তার ছেলে সাদ এরশাদকে জাপার মনোনয়ন ফরম দিতে গতকাল রাত নয়টা পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়ে ছিলেন কর্মকর্তারা। তবে রওশন ও সাদ কিংবা তাদের পক্ষে কেউ ফরম নেননি।

রওশন এরশাদ ময়মনসিংহ-৪ আসনে নির্বাচন করেন। বর্তমানেও তিনি এই আসনের এমপি। জাপা যে ২৮৭টি আসনে প্রার্থী ঘোষণা করেছে, তাতে ময়মনসিংহ-৪ আসনটি ফাঁকা রাখা হয়েছে।

জানা গেছে, রওশন শেষ পর্যন্ত নির্বাচন না করলে তার আসনে দলের ময়মনসিংহ সদর উপজেলা সভাপতি আবু মো. মুছা সরকারকে প্রার্থী করা হবে। তাকে ঢাকায় থাকতে ইতোমধ্যে দলের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দিয়ে রাখা হয়েছে। 

সাংবাদিকদের রওশন এরশাদ বলেন, ‘আমি দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলাম। এবারও তফসিল ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছি। নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে জাপার চেয়ারম্যান জি এম কাদের ও মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু সহযোগিতা না করার কারণে দলের পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের মনোনয়ন দেওয়া হয়নি।' তিনি বলেন, ‘এমন অবস্থায় দলের নেতাদের অবমূল্যায়ন করার কারণে আমার নির্বাচনে অংশ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।’  

জাপা সূত্রে জানা গেছে, রওশন এরশাদ ও সাদ এরশাদ ছাড়া দলের সব প্রার্থীর ফরম বিতরণ গতকাল বিকাল পর্যন্ত শেষ হয়েছে।

উল্লেখ্য, জাপার নিয়ন্ত্রণ ও নির্দিষ্ট আসনে প্রার্থী হওয়া নিয়ে রওশন ও জি এম কাদেরের মধ্যে বিরোধ চলছিল। কয়েকদিন আগে জিএম কাদের গিয়ে রওশনের সঙ্গে বৈঠক করে এলেও দ্বন্দ্বের অবসান হয়নি।

ইত্তেফাক/এমএএম