বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ কাল

মাঝ মাঠের অস্ত্র কৃষ্ণাকে ছাড়া খেলতে হবে

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ১৭:৩৯

আগামীকাল শুক্রবার এবং সোমবার কমলাপুর স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল দুটি ফিফা প্রীতি ম্যাচ খেলবে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে। এই দুটি ম্যাচ সামনে রেখে ২৩ সদস্যের নারী জাতীয় দল ঘোষণা করা হয়েছে। এই তালিকায় নেই মিডফিল্ডার কৃষ্ণা রানী সরকার। ডান পায়ের চোট। পায়ের পাতার নিচে সমস্যা, এটা অনেক দিন ধরেই চলছে। এত দিন ব্যথানাশক ওষুধ খেয়ে, ইনজেকশন পুশ করে খেলতে হয়েছিল। পায়ে ব্যথা নিয়েই এশিয়ান গেমস ফুটবলে খেলেছিলেন। 

কিন্তু এবার সেই ঝুঁকি নিতে রাজি না বাফুফে। কোচ সাইফুল বারী টিটু কৃষ্ণা রানী সরকারকে বিশ্রামে পাঠিয়েছেন। কৃষ্ণা ভালো মানের ফুটবলার। ভারতে নারী ফুটবল লিগে খেলার জন্য ইমামী ইস্ট বেঙ্গল ক্লাব তাকে নিতে চেয়েছিল। কিন্তু ব্যথার কথা শুনে আর হাত বাড়ায়নি। সাইফুল বারী টিটু মনে করছেন, কৃষ্ণা বর্তমান অবস্থায় মাঠে নামালে ঝুঁকি বাড়বে। 

গতকাল বিকালে বাফুফে ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে দলের কোচ সাইফুল বারী টিটু জানান, ‘কে নাই সেটার চেয়ে কে আছে সেটাই বড়। আমরা সামনের দিকে এখন তাকাতে চাই। আমি অবশ্যই চাইব, আমার মেয়েরা গোল করুক। সে হিসেবে বলা মুশকিল হবে যে, কে পারবে, কে পারবে না। প্রত্যেকেই তাদের পজিশনে ভালো। তহুরা, ছোট শামসুন্নাহার, ঋতুপর্ণা আছে। সানজিদা কেন গোল করবে না, তারও সামর্থ্য আছে, সাবিনা নিজে গোল করে, পেছন থেকে গোল করার জন্য সহযোগিতা করে। দেখা যাক, আমি আশাবাদী।’

নারী ফুটবলে মাঝ মাঠে আক্রমণভাগের প্রাণভোমরা কৃষ্ণা, মনিকা, মারিয়ারা। কৃষ্ণাকে ছাড়া জাতীয় দল মাঠে নামেনি কখনো। হিসাব করলে প্রায় ১০ বছর পর কৃষ্ণাকে ছাড়া খেলতে হবে দুটি প্রীতি ম্যাচ। কৃষ্ণা সুস্থ হয়ে প্রস্তুতি নেবে, সামনে অনেক খেলা রয়েছে। তাকে বাফুফে ভবনেই রাখা হয়েছে। সুস্থ হতে তিন মাস লাগবে। ২০১৪ সালে ইসলামাবাদে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে অভিষেক হয় কৃষ্ণার। ঐ ম্যাচে অভিষেকেই হ্যাটট্রিক করেন কৃষ্ণা। বাংলাদেশ জিতেছিল ৬-১ গোলের বড় ব্যবধানে। 

সেই যে কৃষ্ণার পথচলা শুরু, এর পর টানা প্রায় ১০ বছর জাতীয় দলের সেরা একাদশের ফুটবলার। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েননি। ‘এভাবে বসে থাকতে খুব খারাপ লাগছে। এমন অভিজ্ঞতা আগে হয়নি। এটা নতুন অভিজ্ঞতা। ব্যথা বেড়ে যাওয়ায় মাঝে ইনজেকশন নিয়ে খেলেছিলাম—বলছিলেন কৃষ্ণা রানী সরকার। সমস্যা নিয়ে বললেন, ‘ডাক্তারের কথা হচ্ছে পায়ের টেনডনগুলো খুব দুর্বল হয়ে গেছে। রগ শুকিয়ে গেছে। যতদিন এটা আগের মতো স্বাভাবিক না হবে, ততদিন মাঠে নামতে পারব না। জানুয়ারি পর্যন্ত জিম এবং হালকা অনুশীলন করতে পারব। খেলতে পারব না।’

ইত্তেফাক/জেডএইচ