মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

সব মাধ্যমেই সরব তাসনিয়া ফারিণ

আপডেট : ০২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৪:৩০

তাসনিয়া ফারিণ। চলচ্চিত্র, ওয়েব ফিল্ম, সিরিজ, সিঙ্গেল নাটক থেকে শুরু করে টিভিসি ওভিসি সব মাধ্যমেই সরব এখন তিনি। ক্যারিয়ারে জনপ্রিয়তা যখন তুঙ্গে সে সময়ই নিজের দীর্ঘদিনের প্রেমিককে বিয়ের খবরটি সামনে আনলেন। অভিনয়ের ক্ষেত্রে নির্মাতা ‘অ্যাকশন’ বলার পরপরই যেন ভিন্ন মানুষ হয়ে যান তিনি।

ঘোরাঘুরি ওড়াউড়ি

ভীষণ ঘুরতে পছন্দ করেন তাসনিয়া ফারিণ। সেক্ষেত্রে বাজেট ট্রিপ হলেও যেন সমস্যা হয় না তার। তাসনিয়া ফারিণের কথায়,‘পৃথিবীটা ঘুরে দেখতে চাই। এক জীবনে তো পুরোটা সম্ভব না। তবু ঘোরাঘুরিতে ভীষণ এনার্জি পাওয়া যায়। আমি মনে করি ভ্রমণ একটা বড় পাঠশালা।’

জনপ্রিয়তা আর দর্শক গ্র্রহণযোগ্যতায় এখন শীর্ষে অবস্থান করছেন এই তরুণী। এর মাঝে নিজের অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র থেকে শুরু করে সাম্প্রতিক কাজগুলোর বেশ কিছু কাকতালীয়ভাবে দেশের বাইরেই শুটিং হয়েছে। যেমন আরিয়ানের ‘পুনর্মিলনে’ হলো নেপালে, টলিউডে প্রথম চলচ্চিত্র ‘আরো এক পৃথিবী’র শুটিং হলো লন্ডনে, থাইল্যান্ডেও কাজ করা হয়েছে বেশকিছু। সর্বশেষ দুটি প্রোডাকশনের কাজ করে ফিরলেন অস্ট্রেলিয়া থেকে। নিজের কাজের ক্ষেত্রে প্রডিউসারের কাছে দেশের বাইরে লোকেশন রাখার আলাদা ডিমান্ড থাকে কিনা এমন প্রশ্নে তাসনিয়া ফারিণ বলেন,‘না প্রতিটিই গল্পের প্রয়োজনেই বাইরে যেতে হয়েছে। আর কাজের বাইরেও আমি প্রচুর ঘুরি। ঘুরতে আমার সত্যিই ভালো লাগে।’

স্যোশাল মিডিয়া

মাঝে রাগ সামলাতে পারেননি ফারিণ! কিছু উটকো খবরে বেশ বিরক্ত হয়েছিলেন। তখনও ফারিনের বিয়ে হয়নি। যেহেতু ফারিণ ওর নিজের ব্যক্তিজীবন নিয়ে কাউকে জানাতে দেন না। তাই প্রেমিকের নামটিও কোথাও প্রকাশ পায়নি। অথচ এরই ভেতরে একজন জনপ্রিয় তারকার সাথে নাম জড়িয়ে নানান গল্প লেখা হলো কিছু অনলাইন পোর্টালে! বিরক্ত হয়ে সাংবাদিকদের নিয়ে কথাও তুললেন ফারিণ।

এ নিয়ে ফারিণের বক্তব্য ছিল ‘দেখুন আমি ব্যক্তি ইমেজটা খুব স্ট্রংলি মেনটেইন করি। আমি জানি আমি কী? সো আমাকে নিয়ে উল্টোপাল্টা বলা হবে সেটা আমি সহজভাবে কেন নিবো। এটাকে প্রশ্রয় দেওয়াটাকে আমি ঠিক বলে মনে করিনি এবং আমি গণমাধ্যমের ক্ষেত্রেও সিলেকটিভ হতে চাই। অবশ্যই আমি তাদের কাজকে সম্মান করি। কিন্তু কাজগুলোতে সততা থাকা জরুরি।’

বিয়ের খবরের পরে আর যুগলের ছবি ফেসবুকে দেখা যায়নি। ফারিণের সেই পুরোনো উত্তর। দেখুন আমি ব্যক্তিগতজীবন কখনোই পাবলিক করতে চাই না। এটা আমার পুরোনো অভ্যেস।’

স্টারডমের দরদাম!

নিজের পারিশ্রমিক তারকারা কীভাবে বাড়ান? জনপ্রিয়তার পাশাপাশি তারকাদের নিজেদের আনুপাতিক হারে বিষয়টা উঠানামা করে কিনা। সাধারণ কৌতূহলী এমন প্রশ্নের জবাবে ফারিণ খুব চমত্কার করে বললেন। তার কথায়,‘দেখুন প্রত্যেকটা আর্টিস্টকে তার ইন্ডাস্ট্রির কথা চিন্তা করা জরুরি। অবশ্যই গুণী শিল্পীরা তা-ই করেন। এখন আমার একটা সিরিজ হিট করলো। সাথে সাথে আমি পারিশ্রমিক বাড়িয়ে দিলাম। এরপরে তো আমি কমাতে পারবো না। সবার তো দিন একরকম যায় না। তাই আমি মনে ইন্ডাস্ট্রি বুঝেই সেটা নির্ধারণ করাটা জরুরি। আর আমার হাতে এখনো অনেক সময় পড়ে আছে। তাই তাড়াহুড়ো নেই আমার কোনো ।

ওটিটির সেরা!

অনেকেই মন্তব্য করেন তাসনিয়া ফারিণ ওটিটিতে দারুণ লাকি। বিশেষ করে শাওকীর নির্মাণে ‘কারাগার’ সিরিজটিতে ফারিণের চরিত্র নিয়েই চারদিকে কৌতূহল তৈরি হয়েছিল। এখনকার ওটিটির কাজ নিয়ে ফারিণ বলেন, ‘ওটিটির কাজ নিয়েই বেশ ব্যস্ত। সবে আমার অভিনীত একটা ওয়েবফিল্ম রিলিজ হলো। নাম ‘বাবা, সামওয়ান ইজ ফলোয়িং মি’। শিহাব শাহীনের পরিচালনা। এছাড়া নতুন কিছু কাজের পরিকল্পনা করছি। চিত্রনাট্য দেখছি। এসব নিয়েই ব্যস্ত আছি।’

ওয়েবফিল্মটির বেশিরভাগ অংশের শুটিং অস্ট্রেলিয়াতে হয়েছে। এর অভিজ্ঞতা প্রঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা যখন শুটিং করেছি, তখন ওখানে শীতকাল। তাপমাত্রা ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কখনো কখনো ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসেও নেমে যেত। এদিকে আমাদের বেশিরভাগ দৃশ্যের শুটিং হতো রাতে। সেসঙ্গে আমার এলার্জির সমস্যা আছে। ফলে ঠান্ডায় শুটিং করতে খুব কষ্ট হয়েছে। দৌড়াতে দৌড়াতে আমার পা ফুলে গেছে। এক পর্যায়ে আমি শিহাব শাহীন ভাইকে বলেছি আমাকে দেশে পাঠিয়ে দেন, প্লিজ। কিন্তু একবার কাজ শেষ হয়ে গেলে, এসব কষ্ট আর মনে থাকেনি।’

ব্যক্তিজীবনে কখনো ‘ফলোয়িং’ অর্থাৎ কেউ আপনাকে ফলো করছে—এমন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছেন কিনা জানতে চাইলে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমারও এরকম একটি বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছে। ভার্সিটির শেষ সেমিস্টারে ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে বন্ধুদের সঙ্গে কক্সবাজার ঘুরতে গিয়েছি। তখন এতকিছু বুঝতাম না। আমি আমার রিয়েল লোকেশন শেয়ার করেছিলাম সোশ্যাল মিডিয়াতে। একজন সেটা ফলো করে হাজির হয়ে গিয়েছিল সেখানে। পরে আবার আমি কী পরেছিলাম, কী খাচ্ছিলাম, কী করছিলাম, এসব লিখে আমাকে মেসেজও পাঠিয়েছে। খুব ভয় পেয়েছিলাম। তারপর থেকে আমি কোনো লোকেশন ত্যাগ করার পরই সেখানের ছবি আপলোড করি। এটা অনেক বড় একটা শিক্ষা।’

নিজের ছন্দেই কাজ করতে ভালোবাসেন। তাসনিয়া ফারিণ অভিনয়কে ভালোবেসেই কাজ করে যেতে চান। তবে এমন কিছু করবেন না তিনি  যাতে দার দর্শকেরা বিব্রত হবেন। নিজের ব্যক্তিত্বের মতোই সুন্দর, স্বচ্ছ থাকতে চান। কেউ কেউ তাকে বেশ গম্ভীর ভাবলেও অন স্ক্রিনে ফারিণ অনেকরকম নারীরূপে থাকতে চান। সেই চরিত্রগুলো, যা মানুষ আগে কখনো ভাবেনি ফারিণকে নিয়ে। স্ক্রিপ্ট নিয়ে কথা হলে সেই দৃশ্যকল্পগুলোই খুঁজতে থাকেন এখন তিনি!

ইত্তেফাক/এএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন