বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

শ্রীপুরে জমি দখলকে কেন্দ্র করে হত্যার হুমকি, থানায় অভিযোগ

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ২২:৪৭

মাগুরার শ্রীপুরে জোরপূর্বক জমি দখল ও প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে উপজেলার চরশ্রীপুর গ্রামের ইন্দ্রজিৎ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) এ ঘটনা ঘটে। নিরাপত্তা চেয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে নিশিকান্ত মণ্ডল শ্রীপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। 

অভিযুক্ত ইন্দ্রজিৎ বিশ্বাস শ্রীপুর সদর ইউনিয়নের চরশ্রীপুর গ্রামের বাসিন্দা সুকুমার বিশ্বাস ওরফে জুঞ্জালের ছেলে। অপরদিকে ভুক্তভোগী নিশিকান্ত মণ্ডল একই গ্রামের বাসিন্দা।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন দুই পরিবারের জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। জমিতে ইন্দ্রজিত অবৈধভাবে জবর দখলের চেষ্টা করছে। এছাড়া জোর করে এই জমিতে কিছু বেগুন গাছ লাগিয়েছে। এ নিয়ে গত ২৮ নভেম্বর বাড়ির পূর্ব পাশে পুকুরের ধারে ইন্দ্রজিৎ বিশ্বাসের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় নিশিকান্ত মণ্ডলের। একপর্যায়ে ইন্দ্রজিৎ নিশিকান্ত মণ্ডলসহ তার পরিবারের সদস্যদের প্রকাশ্যে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। 

অভিযোগপত্র

এ বিষয়ে ইন্দ্রজিত বিশ্বাস বলেন, এই জমিটি আমি জমির মালিক মনি কুমার বিশ্বাসের কাছ থেকে কিনেছি। আদালতের মাধ্যমে আমি সত্ত্বাধিকারী হয়েছি। এ ছাড়া দ্রুত এত টাকা পয়সার মালিক হলে কীভাবে জানতে চাইলে ইন্দ্রজিৎ বলেন, আমি ঢাকায় চাকরি করতাম। চাকরি ছেড়ে ট্রাভেল এজেন্সির ব্যবসা করি। 

ভুক্তভোগী নিশিকান্ত মণ্ডল বলেন, আমরা বায়না সূত্রে মনিকুমারের কাছ থেকে জমিটি কিনেছিলাম। সে টাকা নিয়ে ভারতে যায়। হঠাৎ ইন্দ্রজিৎ জমি দখল করতে আসে। আমি আদালতে মামলা করেছি। সে জোর করে জমি দখলের চেষ্টা করছে। এখন ওই জমিতে আমরা গেলেই সে হুমকি দেয়।  

অভিযুক্ত ইন্দ্রজিৎ বিশ্বাস শ্রীপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য শ্রীকান্ত মন্ডল বলেন, ভারতনিবাসী মনিকুমার প্রথমে নিশিকান্তের কাছে জমি বন্ধক রাখে। তারপর বিক্রির কথাও বলে। কিন্তু সে ভারতে চলে যায়। এই জমি নিয়ে যেহেতু আদালতে মামলা চলমান সেহেতু আদালতের নির্দেশনা ছাড়া কোনো পক্ষকেই নালিশী জমিতে জবর-দখল করা ঠিক হবে না। 

শ্রীপুর থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, যেহেতু বিষয়টি জমিজমা সংক্রান্ত। তা ছাড়া মাগুরা দেওয়ানি আদালতে মামলা চলমান। ফলে এটা আদালতের মাধ্যমেই সমাধান হবে।

ইত্তেফাক/পিও