মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করতে হয়: আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩, ২২:০৮

জাতীয় পার্টি-জেপি’র চেয়ারম্যান ও আসন্ন নির্বাচনে পিরোজপুর-২ আসনে ১৪ দলীয় জোটের নৌকার প্রার্থী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, দেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা চালু থাকায় পাঁচ বছর পরপর সাধারণ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করতে হয়। যারা দেশ পরিচালনা করেন, সরকার চালান, সংসদ সদস্য থাকেন—তাদেরকে মানুষের সামনে উপস্থিত হয়ে কাজের হিসাব দিতে হয়।  

রোববার (৩১ ডিসেম্বর) বিকালে পিরোজপুরের নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলার সুটিয়াকাঠি ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এক নির্বাচনী সভায় এ কথা বলেন তিনি। 

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু পিরোজপুর-২ (কাউখালী, ভাণ্ডারিয়া ও নেছারাবাদ) আসনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের প্রধান শেখ হাসিনা মনোনীত নৌকা প্রতীকের সংসদ সদস্য প্রার্থী। 

স্বরূপকাঠি উপজেলার সুটিয়াকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনাকীর্ণ এই উঠান বৈঠকে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু আরও বলেন, আমাদের রাজনীতি গরীব মানুষের জন্য, অবহেলিত মানুষের উন্নয়নের জন্য। আমি এই এলাকায় ৩৯ বছর ধরে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য কাজ করে এসেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ১০ বছরের মন্ত্রীত্বসহ ১৮ বছর মন্ত্রিসভার সদস্য ও সাতবার সংসদ সদস্য হয়ে মানুষের জন্য যে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি, তার জন্য আমাকে এবারও নৌকার প্রার্থী করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও সরকার গঠন করবেন। তার সঙ্গে দেশ পরিচালনায় সহকর্মী হিসেবে পাশে চান বলেই আমাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে। নৌকা এই দেশ সৃষ্টি করেছে, বঙ্গবন্ধু দেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। ছাত্র অবস্থায় তার সঙ্গে আমাদের কাজ করার সৌভাগ্য হয়েছে। তোফায়েল আহমেদ, আব্দুর রাজ্জাক, শেখ ফজলুল হক মনি, সিরাজুল আলম খানসহ আমরা প্রথম জয় বাংলা স্লোগান দিয়েছি, বঙ্গবন্ধু উপাধি দিয়েছি। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার সঙ্গে বিভিন্ন সময় কাজ করার আমাদের সুযোগ হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক প্রকল্প গ্রহণ করে মানুষের জন্য সুপেয় পানি সরবরাহ, দেশব্যাপী যোগযোগ নেটওয়ার্ক তৈরি, বিদ্যুৎ উন্নয়ন, বন্যা নিয়ন্ত্রণ, উপকূলের বেড়ীবাঁধ নির্মাণের বড় বড় কাজ আমাদের হাতেই সম্পন্ন হয়েছে। আমাদের সমস্যা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সমাধানের চেষ্টা আমাদেরই করতে হবে। এর জন্য নির্বাচন একটি সুযোগ। ভোটের মাধ্যমে শিক্ষিত, যোগ্য, দক্ষ, অভিজ্ঞ নেতৃত্বকে নির্বাচিত করে দেশ পরিচালনায় নিয়ে আসতে হবে। অশিক্ষিত, রাষ্ট্রীয় সম্পদ আত্মসাতকারী, গৃহীত উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন না করে বরাদ্দকৃত অর্থ লোপাটকারী, মাদক ব্যবসায়ীদের মত জনগণের শত্রুকে নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রত্যাখ্যান করতে হবে। পাশাপাশি নির্বাচনে যারা অর্থ খরচ করে বিজয়ী হতে চায়, তাদের অবৈধ অর্থের উৎস খুঁজে বের করতে হবে। 

দেশের সার্বিক উন্নয়নে শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ করে দিতে তার মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থীদের নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়ে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, অবহেলিত এলাকার উন্নয়নে অতীতের মত আমরা কাজ করতে চাই।   

পিরোজপুরের নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলার সুটিয়াকাঠি ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে নির্বাচনী সভায় নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের একাংশ। ছবি: ইত্তেফাক

পিরোজপুর-২ আসনে আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর নৌকা প্রতীকের সমর্থনে আয়োজিত এ উঠান বৈঠকে সুটিয়াকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বীরমুক্তিযোদ্ধা এম এ আজিজের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কানাই লাল বিশ্বাস, সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম, স্বরূপকাঠি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সৈয়দ সহিদ উল আহসান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম ফুয়াদ, ভান্ডারিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জাতীয় পার্টি-জেপি’র ভাণ্ডারিয়া উপজেলা নির্বাহী সভাপতি মাহিবুল হোসেন মাহিম, জাতীয় পার্টি-জেপি’র উপজেলা আহ্বায়ক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম সাঈদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ বেলায়েত হোসেন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শরীফ আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য রেজভি ভুঁইয়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও স্বরূপকাঠি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রনি দত্ত জয়, সারেংকাঠি ইউপি চেয়ারম্যান উপাধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলফাজ উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর জাহিদুল ইসলাম বিপ্লব, প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা তৈমুর রেজা কনকসহ অনেকে। অনুষ্ঠান উপস্থাপন করেন আওয়ামী লীগ নেতা ফরহাদ আকন। 

উপস্থিত নেতাদের মধ্যে আরও ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রবীণ নেতা আব্দুল হামিদ, আওয়ামী লীগের জেলা কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য রেবেকা শাহীন চৈতী, জেলা কমিটির সদস্য আমিনুর রহমান সগীর জোমাদ্দার ও রেজভী ভূঁইয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক কাজি সাইফুদ্দিন তৈমুর ও মীরা রানী চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুস সালাম সিকদার, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক খন্দকার আজমল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান সাগর, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শরীফ মো. শাহীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাহ মো. নাসির উদ্দিন, যুব মহিলা লীগের সভাপতি খন্দকার লাভলী আহমেদসহ অনেকে।  

ইত্তেফাক/ডিডি