রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ইতালিতে ‘অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশি স্টুডেন্টস’র দ্বিতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০২৪, ১৯:৫৫

ইতালিতে বাংলাদেশের কনস্যুলেট জেনারেল মিলান ইতালির পৃষ্ঠপোষকতায় অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশি স্টুডেন্টস ইন নর্দার্ন ইতালি (এবিএসএনআই) দ্বিতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) দেশটির পর্যটনকেন্দ্র ভেনিসে শহরে আনন্দঘন পরিবেশের মধ্যে দিয়ে এ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

এই বার্ষিক ইভেন্টের মূল লক্ষ্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ইতালিতে তাদের স্বপ্ন অনুসরণ করার জন্য মূল্যবান অন্তর্দৃষ্টি এবং নির্দেশনা প্রদান করা। এবারের কংগ্রেসে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের পররাষ্ট্র সচিবের একটি ভিডিও বার্তা দেখানো হয়েছে যা শিক্ষার্থীদের ইতালিতে তাদের পড়াশোনা এবং পেশাগত ক্যারিয়ারে দক্ষতা অর্জনের জন্য উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করবে। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. মনিরুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কন্স্যুলেট জেনারেল মিলানের কনসাল জেনারেল  এম জে এইচ জাবেদ। 

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, মেধা এবং কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতামূলকভাবে ইতালীয় চাকরির বাজারে ব্যবস্থাপনাগত স্থানগুলো সুরক্ষিত করতে পারবে।

শিক্ষাবিদ, নিয়োগকারী, অভিবাসন আইনজীবী এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল স্নাতক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য মূল্যবান ধারণা এবং চিন্তাভাবনা পেশ করেছেন। যারা ইতালি এবং অন্য কোথাও পেশাদার ক্যারিয়ার এবং উদ্যোক্তা উদ্যোগের সন্ধান করবে।

রাষ্ট্রদূত মনিরুল ইসলাম তার বক্তব্যে শিক্ষার্থীদের আধুনিক প্রযুক্তি থেকে সেরাটা আহরণ করে সম্পদশালী ব্যক্তিতে পরিণত করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দূতাবাস এবং কনস্যুলেট সর্বদা শিক্ষার্থীদের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত  সহায়তা (বিশেষ করে কাগজপত্র) প্রসারিত করতে প্রস্তুত রয়েছে যাতে তারা কোনো ঝামেলা ছাড়াই তাদের পড়াশোনায় অংশ নিতে পারে। 

কনসাল জেনারেল এম জে এইচ জাবেদ তার স্বাগত বলেন, গত বছরের কংগ্রেসের কিছু অংশগ্রহণকারী সফলভাবে ইতালির চাকরির বাজারে নিজেদের যুক্ত করেছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা ভবিষ্যতে স্থানীয় নিয়োগকারীদের কাছে তাদের অপরিহার্যতা প্রমাণ করতে সক্ষম হবে।

ডা. রাফায়েলো কসু, পাদোভা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন বিশিষ্ট অধ্যাপক ইমেরিটাস। তিনি বলেন, উচ্চশিক্ষায় বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশ সঠিক পথে রয়েছে যা বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশে স্নাতক হওয়ার কারণে লভ্যাংশ প্রদান করবে।

ভেনিসে বাংলাদেশের অনারারি কনসাল ফ্যাব্রিজিও দি 'অ্যাভিনো ইতালিতে ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার প্রক্রিয়া সহ ইতালিতে সাংস্কৃতিক বিনিময় এবং সুযোগ সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেছেন।
ইউরো-মেডিটারিয়ান সেন্টার অন ক্লাইমেট চেঞ্জ-এর সিনিয়র গবেষক, ড. জেরেমি পাল জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় উদ্ভাবন এবং গবেষণার গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করেছেন। যা শিক্ষার্থীদের বিশ্বব্যাপী সমস্যা সমাধানে সাহায্য করতে প্রলুব্ধ করবে।

ইনেভো-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, রবার্তো ফাগারজ্জি, ইতালির পেশাদার ল্যান্ডস্কেপের অন্তর্দৃষ্টি শেয়ার করেছেন এবং শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার নির্দেশিকা প্রদান করেছেন। প্রযুক্তি খাতে সুযোগের কথা বলতে গিয়ে, এইচসিএল টেকনোলজিস-এর ইউসুফ দাউদ দক্ষ কর্মীদের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গঠনে করণীয় দিকগুলোও  তুলে ধরেন।

আলোচনা অধিবেশন শেষে একটি প্রশ্ন/উত্তর অধিবেশন ছিল যেখানে ছাত্ররা ইতালিতে ছাত্র থেকে পেশাদারে তাদের স্থানান্তর সংক্রান্ত বিষয়ে বক্তাদের কাছ থেকে স্পষ্ট মতামত খোঁজার সুযোগ পেয়েছিল।  সেশন সঞ্চালনা করেন ভেনিস সিএ ফসকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. শৌরো দাশগুপ্ত।

উত্তর ইতালিতে অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশি স্টুডেন্টস-এর দ্বিতীয় কংগ্রেস বিভিন্ন ক্ষেত্রে পেশাদার এবং উদ্যোক্তাদের সাথে মূল্যবান জ্ঞান এবং নেটওয়ার্কিং সুযোগ অর্জনের জন্য শিক্ষার্থীদের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করেছে।

কংগ্রেসের শেষে সংক্ষিপ্তকারে মনোমুগ্ধকর একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যেখানে একজন বাংলাদেশি সংগীত পরিবেশন করে অনুষ্ঠানকে আরও প্রাণবন্ত ও রঙিন করে তোলে এবং অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একটি সেতুবন্ধনের অনুভূতি জাগিয়ে তোলে।

ইত্তেফাক/এবি