বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

হুথিদের হামলা কমাতে ব্যর্থ যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য, লোহিত সাগরে বেড়েছে চীনের জাহাজ

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২১:৫৪

ইয়েমেনে হুথিদের লক্ষ্য করে অনবরত বিমান হামলা চালানোর পরও তাদের আক্রমণের তীব্রতা কমাতে ব্যর্থ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। বিবিসি ভেরিফাইয়ের অনুসন্ধানে এমন তথ্যই উঠে এসেছে।

গত তিন সপ্তাহে অঞ্চলটিতে যাতায়াত করা জাহাজ লক্ষ্য করে নয়টি হামলা চালানো হয়েছে, যেখানে আগের তিন সপ্তাহে হামলা হয়েছিল ছয়টি। সর্বশেষ শনিবার ইয়েমেনে হুথিদের ওপর তৃতীয় দফায় যৌথ হামলা চালিয়েছে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।

এই হামলায় সমর্থন দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া, বাহরাইন, কানাডা, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ড।

একটি যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ইয়েমেনের ১৩টি লোকেশনের ৩৬টি টার্গেটে এই হামলা চালানো হয়। অস্ত্র মজুদ কেন্দ্র, ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা এবং লঞ্চার, বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং রাডার লক্ষ্য করে এসব হামলা চালানো হয়েছে।

কৌশল পরিবর্তন

শুরুর দিকে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পৃক্ত জাহাজ লক্ষ্য করেই কেবল হামলা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছিল হুথিরা। কিন্তু জানুয়ারি থেকে তাদের হামলার শিকার বেশিরভাগ জাহাজই ছিল যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মালিকানাধীন বা তাদের পরিচালনাধীন।

নভেম্বরে আক্রমণ শুরুর পর থেকে অন্তত ২৮টি জাহাজে হামলা করা হয়েছে। এরমধ্যে সাতটি জাহাজ ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিসংশ্লিষ্ট বা ইসরায়েলের দিকে যাচ্ছিলো বলে শনাক্ত করেছে বিবিসি ভেরিফাই।

মালিকানার এই সংযোগ খুঁজতে যেখানে যেখানে সম্ভব জাহাজ ট্র্যাকিং উপাত্ত এবং প্রতিষ্ঠানগুলোর অফিসিয়াল রেকর্ড ব্যবহার করেছে বিবিসি ভেরিফাই।

তবে কোম্পানির মালিকানার একাধিক স্তর ভেদ করে জাহাজের সঙ্গে কারো সংশ্লিষ্টতা শনাক্ত করার এই প্রক্রিয়া সহজ নয়। বিমান হামলা শুরুর পর থেকে আক্রমণ করা নয়টি জাহাজের মধ্যে পাঁচটির আমেরিকান বা ব্রিটিশ সম্পৃক্ততা ছিল। এগুলোর কোনো ইসরায়েলি সংযোগ শনাক্ত করা যায়নি।

লক্ষ্যবস্তুর সঙ্গে সঙ্গে হুথিদের আক্রমণের কৌশলও পাল্টেছে। নভেম্বর এবং ডিসেম্বরে তাদের আক্রমণের মূল লক্ষ্য ছিল বাব আল-মান্দাব প্রণালীর কাছাকাছি লোহিত সাগরের দক্ষিণ প্রান্ত, যেখানে জাহাজগুলোকে বাধ্য হয়েই হুথি-নিয়ন্ত্রিত ইয়েমেনি উপকূলের খুব কাছ দিয়ে যেতে হতো। গত কয়েক সপ্তাহে তারা মূলত অ্যাডেন উপসাগরের দক্ষিণে আঘাত করছে।

হুথিরা আক্রমণের ধরনও পরিবর্তন করেছে। শুরুতে তারা বিস্ফোরক ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন দুটোই ব্যবহার করলেও, সাম্প্রতিক হামলাগুলোতে মূলত ইয়েমেন থেকে উৎক্ষেপণ করা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করছে।

লোহিত সাগর পণ্য পরিবহনের গুরুত্বপূর্ণ রুট, একইসঙ্গে এশিয়া ও ইউরোপের মধ্যে পণ্য পরিবহনের সবচেয়ে কার্যকর পথ। তবে জাহাজ ট্র্যাকিং ফার্ম লয়েড'স লিস্ট ইন্টেলিজেন্সের মতে, হুথি হামলা শুরুর পর থেকে এই রুট ব্যবহার করে চলাচলকারী বাণিজ্যিক জাহাজের সংখ্যা ৫০ শতাংশ কমে গেছে।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক অংশীদারিত্ব এবং এই অঞ্চলে বাণিজ্যিক পণ্য পরিবহন সুরক্ষিত রাখতে যুক্তরাজ্যের নৌবাহিনী সক্রিয় থাকা সত্ত্বেও এমনটা ঘটছে। আর পণ্য পরিবহন কমে যাওয়ার এই প্রবণতা মৌসুমী বলে মনে হচ্ছে না। কারণ গত বছরের একই সময়ে পণ্য পরিবহন কমেনি।

জাহাজ চলাচল কমলো কেন?

১৯ নভেম্বর গ্যালাক্সি লিডারকে হাইজ্যাক করার বিষয়ে শিপিং কোম্পানিগুলোর কোনো প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া ছিল না। কিন্তু জাহাজ ট্র্যাকিং ডেটা অনুযায়ী, ১৫ ডিসেম্বর থেকে জাহাজ অপারেটররা আফ্রিকার দিকে তাদের কার্গো রুট পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিলে দৃশ্যপট বদলে যায়।

বিকল্প পথ ব্যবহার করলে বেশি জ্বালানি খরচ, সেইসাথে ক্রুদের বেশি মজুরি এবং বিমা খরচ দিতে হচ্ছে। তা সত্ত্বেও কয়েক সপ্তাহ ধরে লোহিত সাগর ব্যবহার করে জাহাজ চলাচল কমে গেছে।

যেমন, সাংহাই থেকে রটারডাম পর্যন্ত একটি স্বাভাবিক আকারের ৪০ ফুট কন্টেইনার পরিবহনের খরচ নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ছিল প্রায় ১ হাজার ২০০ ডলার, যা জানুয়ারির শেষে বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫ হাজার ডলারে।

পণ্য পরিবহনের শুল্ক বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জ্বালানি থেকে খাবার পর্যন্ত সব ধরনের ভোগ্যপণ্যের দামের ওপর অনিবার্যভাবেই চাপ পড়বে।

মূল্য পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা আর্গাস মিডিয়ার তথ্য অনুসারে, সুয়েজ খালের পরিবর্তে আফ্রিকা হয়ে মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইউরোপে যেতে হলে যাত্রার সময় তিন সপ্তাহ পর্যন্ত বেড়ে যায় আর খরচ বাড়ে দুই মিলিয়ন ডলারের বেশি।

মেরিটাইম এআই কোম্পানি উইন্ডওয়ার্ডের উপাত্তের ভিত্তিতে তৈরি করা এই মানচিত্রে দেখা যাচ্ছে, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২০২৪’র জানুয়ারিতে আফ্রিকার দিকে জাহাজ চলাচল উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে।

খালের পরিচালনা পর্ষদ বলছে, সুয়েজ খালের মধ্য দিয়ে কম জাহাজ চলাচলের কারণে জানুয়ারিতে এর রাজস্ব ২০২৩ সালের একই মাসের তুলনায় ৪৪ শতাংশ কমেছে।

অঞ্চলটিতে জাহাজ চলাচল নিয়ে এই সংকট চলমান থাকবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। ফলে এই বছর রাজস্ব ৪০ শতাংশ কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে যার পরিমাণ ছয় বিলিয়ন ডলার হতে পারে।

লয়েড'স লিস্ট ইন্টেলিজেন্স বলছে, কনটেইনার জাহাজের মতো কিছু ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য, যেখানে কি না মায়েরস্কের মতো অল্প সংখ্যক কোম্পানি বৈশ্বিকভাবে জাহাজের বড় অংশ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার ফলে ইউরোপীয় দেশগুলো এশিয়া থেকে তেল ও গ্যাস নিতে বাধ্য হওয়ায় গত দুই বছরে সুয়েজ খাল ব্যবহার করে তেলের ট্যাংকার চলাচলের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।

হুথি হামলা শুরু হওয়ার পর থেকে সেই সংখ্যাও কমেছে, যদিও তা কন্টেইনার শিপিংয়ের মতো নাটকীয়ভাবে নয়।

ঝুঁকি প্রশমন

ঝুঁকি নিয়েই লোহিত সাগরের পথ দিয়ে যাতায়াত করা জাহাজ অপারেটররা আক্রমণের সম্ভাবনা কমাতে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ছিনতাইয়ের প্রচেষ্টা প্রতিহত করতে কিছু কোম্পানি অর্থ খরচ করে তাদের জাহাজে সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনী রাখছে। অন্যরা তাদের অন-বোর্ড এআইএস ট্র্যাকিং বন্ধ রেখেছে।

সব বাণিজ্যিক জাহাজ তাদের অবস্থান এবং ঘোষিত রুট নিরীক্ষণের অনুমতি দেওয়ার জন্য এই ট্র্যাকিং ব্যবস্থা ব্যবহার করে। ট্র্যাকার বন্ধ রাখলে হুথিদের পক্ষে তাদের শনাক্ত করা কঠিন হবে।

কেউ কেউ তাদের অবস্থান শনাক্তকারী সরঞ্জামে ‘ইসরায়েলের সঙ্গে কোনো যোগসূত্র নেই’ ঘোষণা দিয়ে রেখেছে, আবার কেউ ‘জাহাজে সশস্ত্র রক্ষীরা আছে’ বা ‘সব ক্রু চীনা’- এমন কথা লিখে রেখেছে। জাহাজ মালিকদের বিশ্বাস এতে করে হুথিরা আক্রমণ করা থেকে নিরস্ত থাকবে।

কিছু চীনা কোম্পানি হুথিদের থেকে পাওয়া নিরাপত্তা আশ্বাসকে কাজে লাগিয়েছে। লয়েড’স লিস্ট ইন্টেলিজেন্স বলছে যে নভেম্বরের শেষ থেকে লোহিত সাগরের মধ্য দিয়ে যাওয়া জাহাজের মধ্যে চীন-সংশ্লিষ্ট জাহাজের অনুপাত ১৩ থেকে ২৮ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি

ইত্তেফাক/এবি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন