বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

শত ব্যস্ততার মধ্যেও ঢাবিতে ক্লাস নিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬:১৩

গত জানুয়ারিতে নবগঠিত মন্ত্রিসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পরে প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগে ক্লাস নিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ৭ম সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের ‘ক্লাইমেট চেঞ্জ’ বিষয়ক কোর্সের ক্লাস নিয়েছেন মন্ত্রী।

জানা যায়, মঙ্গলবার সকালে দুই ঘণ্টাব্যাপী তিনি শিক্ষার্থীদের মাঝে উক্ত কোর্সের ওপরে লেকচার প্রদান করেন। ২০১৮ সাল থেকেই ড. হাছান মাহমুদ ঢাবির সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগে খণ্ডকালীন অধ্যাপনা করে আসছেন। তিনি বিভাগের ৭ম এবং ৮ম সেমিস্টারের ‘গ্লোবাল ক্লাইমেট চেঞ্জ’ ও ‘ইভ্যুলেশন এন্ড আর্থ বায়োস্ফিয়ার’ এ দু’টি কোর্সে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেন।

সরকারি ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের ব্যস্ততা, প্রতি সপ্তাহে নির্বাচনী এলাকায় গমন, বিদেশ সফর ইত্যাদি ব্যস্ততার মধ্যেও নিয়মিত ঢাবির সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগে খণ্ডকালীন অধ্যাপনা করেন আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পরে এদিন প্রথম সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগে ক্লাস নিতে গেলে বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা ড. হাছানকে অভিনন্দন জানান।

রাজনৈতিকভাবে প্রচণ্ড ব্যস্ততা থাকা সত্ত্বেও ড. হাছান মাহমুদ নিয়মিত খন্ডকালীন অধ্যাপনার সঙ্গে যুক্ত। এর আগে তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগে খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে অধ্যাপনায় যুক্ত ছিলেন। তার আগে তিনি পরিবেশ বিজ্ঞান ও বাংলাদেশ স্টাডিজ বিষয়ে ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি এবং নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করেন।

শিক্ষাজীবনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) থেকে রসায়ন বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন ড. হাছান মাহমুদ। এরপর বেলজিয়ামের ব্রিজ ইউনিভার্সিটি অব ব্রাসেলস থেকে হিউম্যান ইকোলজি এবং ইউনিভার্সিটি অব লিবহা দু ব্রাসেলস থেকে আন্তর্জাতিক রাজনীতি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

৩টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর শেষে পরিবেশ রসায়ন বিষয়ে বেলজিয়ামের লিম্বুর্গ ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাম থেকে পিএইচডি করেন ড. হাছান মাহমুদ। শিক্ষাজীবন শেষ করে তিনি ব্রাসেলসের ইউরোপিয়ান ইন্সটিটিউট ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজে ভিজিটিং ফেলো এবং অ্যাকাডেমিক বোর্ড মেম্বার হিসেবে মনোনীত হন।

ইত্তেফাক/এবি