বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মাহির বিচ্ছেদ নিয়ে যা বললেন সোহানা সাবা

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:৫৮

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার দ্বিতীয় স্বামী রাকিব সরকারের সঙ্গে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেয়ার খবর জানিয়েছেন। মাহির বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে কথা বলে নিজের ফেসবুকে বিষয়টি নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন অভিনেত্রী সোহানা সাবা। 

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) পোস্টে সাবা লিখেছেন— ‘কোনো বিচ্ছেদ কারও জন্যেই আনন্দের নয়। আর সে বিচ্ছেদের কথা সবাইকে জানানো আরও কঠিন। আল্লাহ সবাইকে সহনশীলতা দান করুক।’

এর আগে শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় বিচ্ছেদের এই ঘোষণা দেন মাহি। এমনকি অনেক আগে থেকেই তারা আলাদা থাকছেন বলেও জানান মাহি।

ওই ভিডিও বার্তায় মাহি বলেন, আমাকে এমন একটি কাজ করতে হবে আমি কখনও ভাবি নাই। তবে আমার মনে হয়েছে এখন সবাইকে বলার সময় হয়েছে আমাদের নিজেদের ভালোর জন্য। আমি আর রকিব খুব ভালো বোঝাপড়া থেকে বিয়ের সিদ্ধান্তে এসেছিলাম। আমরা খুব ভালোই ছিলাম। কিন্তু জীবনের এক পর্যায় এসে বুঝলাম আমরা আসলে দুজন দুজনের জন্য না। সে অনেক ভালো একজন মানুষ।

এতগুলো দিন ওর সঙ্গে কাটিয়েছি সে আমাকে খুব কেয়ার করেছে। সব সময় একটা ছাতার মতো করে আগলে রেখেছে। কিন্তু আসলে কি কারণে একটি ছাদের নিচে দুইটি মানুষ কেনো ভালো নেই সেটি তৃতীয়পক্ষ কেউ বলতে পারবে না সেই দুইজন মানুষ ছাড়া। আর তাই সব কিছু মিলিয়েই দুজন দুজনের প্রতি সম্মান জানিয়েই আলাদা হচ্ছি। তাছাড়া আমরা অনেক দিন ধরেই আলাদা আছি।

মাহি আরও বলেন, আমি জানি এই ভিডিওটি দেখার পর অনেকেই আমাকে গালি দিবেন, অনেক বাজে কথা বলবেন। বিশ্বাস করেন আপনাদের কমেন্ট গুলো আমার কাছে তীরের মত আমার বুকে লাগবে।

আমার ছেলেকে নিয়েও আপনারা অনেকে খারাপ কমেন্ট করেন, সেগুলো দেখে মা হিসেবে আমার বুকটা ফেটে যায়। কোনো বাচ্চাকে নিয়ে এমন খারাপ কমেন্ট করবেন না সে যেমনি হোক না কেনো দেখতে।

২০২১ সালে রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান সরকার রকিবকে বিয়ে করেন মাহিয়া মাহি। এটি মাহি ও রকিবের দ্বিতীয় বিয়ে ছিল। এর আগেও ২০১৬ সালের ২৪ মে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে বিয়ে করেছিলেন মাহি।

এর কয়েক বছর পরেই ২০২০ সালে মে মাসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে পারভেজ মাহমুদ অপুর সঙ্গে বিচ্ছেদের কথা জানান মাহি।

 

ইত্তেফাক/পিএস

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন