সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মেয়াদোত্তীর্ণ ঢাবি ছাত্রলীগ, পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে তোড়জোড়

আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬:৪৮

মাজহারুল কবির শয়নকে সভাপতি ও তানভীর হাসান সৈকতকে সাধারণ সম্পাদক করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সুপার ইউনিট খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০২২ সালের ২০ ডিসেম্বর। ঢাবি শাখা কমিটির পূর্ণাঙ্গ রূপ দেওয়ার আগে নিজেরাই মেয়াদোত্তীর্ণ বনে গেলেন ঢাবি ছাত্রলীগের দুই শীর্ষ নেতা। এর ফলে পদ পাওয়ার আগেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেলেন পদপ্রত্যাশী নেতারাও।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ শাখা সাংগঠনিক জেলার মর্যাদা পায়। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ১০(খ) ধারায় বলা হয়েছে, ‘জেলা শাখার কার্যকাল এক বছর’। সেই হিসেবে গত ২০ ডিসেম্বর শেষ হয়েছে শয়ন-সৈকতের নেতৃত্বে বর্তমান কমিটির মেয়াদ।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মাজহারুল কবির শয়ন ও তানভীর হাসান সৈকত

গত ২০২২ সালের ২০ ডিসেম্বর ডিসেম্বর মাজহারুল কবির শয়নকে সভাপতি ও তানভীর হাসান সৈকতকে সাধারণ সম্পাদক করে সংগঠনটির কমিটি ঘোষণা করা হয়। এক বছরের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এই কমিটির অনুমোদন দেন। ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ৬ মাস আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাত্রলীগের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার জন্য নির্দেশনা দিলে তখন মৌখিক নির্দেশনায় নেতাকর্মীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত নেয় ঢাবি ছাত্রলীগ। কিন্তু উদ্যোগের পর আর কোনো গতিশীলতা লক্ষ্য করা যায়নি।

এদিকে, গত বছরের ১৪ জুলাই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের ৩০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণার পর থেকেই আলোচনায় আসে ঢাবি ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রসঙ্গ। দীর্ঘ এক বছর হয়ে গেলেও কমিটির পূর্ণাঙ্গরূপ না আসায় এ নিয়ে ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে। দীর্ঘদিন পদবঞ্চিত থাকায় এ ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতারা

তবে, ছাত্রলীগের একটি সূত্র জানিয়েছে, এক সপ্তাহের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হতে পারে।

ঢাবি ছাত্রলীগ কমিটির এক বছরের বেশি সময় পেরিয়ে যাওয়ায় হতাশা বাড়ছে পদপ্রত্যাশীদের মাঝে। তাদের অভিযোগ, সময়মতো কমিটি না হওয়ায় তারা পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে পারছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ঢাবি ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী ইত্তেফাক ডিজিটালকে বলেন, ‘কমিটির আশায় আমরা দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে রাজনীতি করছি। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে কিছুটা দেরি হয়েছে সেটা আমরা মেনেও নিয়েছি। কিন্তু এখনও তারা আমাদের কেনো আশা দেখাতে পারছেন না। আমরা রাজনীতি, পড়াশোনা বা ক্যারিয়ার কোনোটাই ভালোভাবে করতে পারছি না।’

ঢাবি ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় হতাশা জানিয়ে আরেক পদপ্রত্যাশী বলেন, ‘আমাদের ছাত্রত্ব শেষের দিকে। এ সময়টা জীবনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু নেতারা কমিটি নিয়ে যেভাবে গড়িমসি করছেন তাতে আমাদের ক্ষতিটাই বেশি হচ্ছে। কমিটির জন্য দীর্ঘদিন আমরা সময় দিয়েছি। কর্মীদের সকলেই হতাশ। কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার পরেও পদপ্রাপ্তরা সবাই হবেন মেয়াদ উত্তীর্ণ। এটাও বিবেচনার বিষয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আসলে বুঝতে পারছি না আমাদের নেতারা কী চান। এক বছরের বেশি সময় হয়ে গেছে কিন্তু কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার ইচ্ছে আমাদের নেতাদের মধ্যে দেখেছি না। তারা নিজেদের রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত। অনেক ডেডিকেটেড ছাত্র নেতৃত্ব হতাশ হয়ে হারিয়ে যাচ্ছেন। যা ছাত্র রাজনীতির জন্য নেতিবাচক দিক। এটি সামনের দিনগুলোতে ছাত্রলীগকে ভোগাবে।’

ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন

মেয়াদোত্তীর্ণ ঢাবি ছাত্রলীগ ও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়া বিষয়ে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন ইত্তেফাক ডিজিটালকে বলেন, ‘মূলত দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের জন্য আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে আমরা কমিটি গুছিয়ে ফেলেছি। পূর্ণাঙ্গ কমিটির পদ পত্যাশীদের ক্ষেত্রে যাদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের অপরাধমূলক কাজের অভিযোগ নেই মূলত যারা ক্লিন ইমেজধারী, বিগত সময়ে সংসদ নির্বাচনে তার কাজের মূল্যায়ন করে কমিটিতে রাখা হয়েছে।’

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত

বিভিন্ন সময় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে বিরোধ ও প্রায় এক বছর দুই মাসে ঢাবি শাখা কমিটির পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়া বিষয়ে ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত ইত্তেফাক ডিজিটালকে বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিরোধ নেই। আমারা পূর্ণাঙ্গ কমিটি গুছিয়ে ফেলেছি। আশা খুব শিগগিরই ঘোষণা করা হবে।’

উল্লেখ্য, এর আগে বেশ কয়েকবার বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীদের আশার বাণী শুনিয়েছিলেন ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন ও সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত। গত সেপ্টেম্বরে তারা বলেছিলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটির যাবতীয় কাজ, যাচাই-বাছাই সমাপ্ত হয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করায় কমিটির ঘোষণা দিতে দেরি হচ্ছে।

ইত্তেফাক/এনএ