বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

একাদশ সংসদে তামাক নিয়ন্ত্রণে উল্লেখযোগ্য কোনো আলোচনা হয়নি

আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২১:৩৪

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে তামাকজনিত অসুস্থতায় মৃত্যু, অন্যান্য রোগজনিত মৃত্যুর তুলনায় অন্যতম। সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৫ (ক) জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবাকে একটি মৌলিক অধিকার হিসেবে নিশ্চিত করে। একইসঙ্গে এটি বাস্তবায়নে সরকারের দায়বদ্ধতা রয়েছে। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সেই লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সেন্টার ফর কমিউনিকেশন প্রোগ্রামস (বিসিসিপি), বাংলাদেশ টোব্যাকো কন্ট্রোল রিসার্চ নেটওয়ার্ক (বিটিসিআরএন) এবং ইনস্টিটিউট ফর গ্লোবাল টোব্যাকো কন্ট্রোল (আইজিটিসি), বাল্টিমোর, যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় প্রতিবছর ‘টোব্যাকো কন্ট্রোল রিসার্চ গ্র্যান্ট প্রোগ্রাম’ বাস্তবায়ন করে আসছে। এ প্রোগ্রামের অর্থায়ন ও সহযোগিতায় ২০২৩ সালে পরিচালিত হয়েছে আটটি গবেষণা প্রকল্প।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘রিসার্চ ফাইন্ডিংস ডিসেমিনেশন কনফারেন্স-২০২৪’ এসব গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয়।

‘পার্লামেন্টারি ওভারসাইট অন টোব্যাকো কন্ট্রোল ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিগত একাদশ জাতীয় সংসদে তামাক নিয়ন্ত্রণে উল্লেখযোগ্য কোনো আলোচনা হয়নি। এমনকি এ সময়কালের সংসদ অধিবেশনে তামাক নিয়ে মাত্র ০.০৮ শতাংশ আলোচনা হয়েছে।

গবেষণা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী দেখা যায়, ২০৪০ সালে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত তামাকমুক্ত বাংলাদেশ বাস্তবায়ন, রোডম্যাপ প্রণয়নসহ সুষ্ঠু তামাক নিয়ন্ত্রণ নীতিমালা প্রণয়নে সংসদ সদস্যরা পর্যাপ্ত উদ্যোগ নিচ্ছেন কিনা।

অন্যান্য সাতটি গবেষণা প্রকল্পেও ই-সিগারেট বিতরণ, বাজারজাতকরণ এবং তরুণদের এ সম্পর্কিত ধারণা; তামাক নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের অনুশীলন; গণপরিবহনে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ; তামাক নিয়ন্ত্রণে ‘টোব্যাকো কন্ট্রোল কুইট-লাইন সার্ভিস’ মডেলের সম্ভাবনা; কিশোর-কিশোরীদের ওপর ডেজিগনেটেড স্মোকিং এরিয়া (ডিএসএ)-র প্রভাব; এবং ধোঁয়াবিহীন তামাক শিল্পের কর ফাঁকির কৌশল নিয়ে উল্লেখযোগ্য ফলাফল উঠে এসেছে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলের (বিএমআরসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী।

সমাপনী অধিবেশনের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব ড. মো. জিয়াউদ্দীন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর এবং বিসিসিপি নির্বাহী পরিষদের সভাপতি ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ। 

ইত্তেফাক/এবি