মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

জাবিতে রাতভর দুই হলের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ, পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ

আপডেট : ০৬ মার্চ ২০২৪, ১৫:৪২

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শহীদ রফিক-জব্বার হল ও শেখ রাসেল হলের মধ্যবর্তী দেয়াল অপসারণকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত সাতজন আহত হয়েছেন।

গতকাল মঙ্গলবার (০৫ মার্চ) সন্ধ্যা সাতটা থেকে দুই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে রাত সাড়ে ৯টা থেকে দফায় দফায় ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এরপর রাত ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম, নিরাপত্তা শাখা এবং আশুলিয়া ও সাভার থানা পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

জানা যায়, গত বছরের জানুয়ারিতে শহীদ রফিক-জব্বার হল সংলগ্ন রাস্তায় স্থায়ী দেয়াল নির্মাণ করা হয়। ফলে যাতায়াতে অসুবিধাসহ বিভিন্ন ধরনের ভোগান্তির অভিযোগ করেন শেখ রাসেল হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। সর্বশেষ গত সোমবার থেকে দেয়াল ভাঙার দাবিতে গণস্বাক্ষর গ্রহণ কর্মসূচি শুরু করেন শেখ রাসেল হলের শিক্ষার্থীরা। বিষয়টি জানাজানি হলে গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে দেয়ালটিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গ্রাফিতি অঙ্কনের চেষ্টা করেন রফিক-জব্বার হলের শিক্ষার্থীরা। সে সময় শেখ রাসেল হলের শিক্ষার্থীরা দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর গ্রাফিতি অঙ্কনে বাধা দেন। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দেয়াল ভাঙা নিয়ে দুই হলের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে শেখ রাসেল হলের শিক্ষার্থীরা রফিক-জব্বার হলের উদ্দেশ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। পরে উভয় হলের মধ্যে কয়েক দফায় ইটপাটকেল ও পেট্রোলবোমা সদৃশ আগুন নিক্ষেপ এবং পাল্টাপাল্টি ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয় পক্ষের শিক্ষার্থীদের হাতে লাঠিসোঁটাসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দেখা গেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত সাতজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে রফিক-জব্বার হলের ৪৯তম ব্যাচের শিক্ষার্থী রেজাউল ও নিশাত গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত অন্যদের পরিচয় জানা যায়নি।

শেখ রাসেল হলের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, হলসংলগ্ন রাস্তায় স্থায়ী দেয়াল নির্মাণের কারণে প্রায় এক কিলোমিটার পথ ঘুরে বটতলায় খাবার খেতে যেতে হয়। তাই আসন্ন রমজান মাসে এই ভোগান্তি কমাতে একাধিকবার প্রশাসনের কাছে দেয়াল ভাঙার দাবি জানিয়েছেন। কিন্তু দেয়ালটি যাতে ভাঙা না যায়, সে জন্য রফিক-জব্বার হলের শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর গ্রাফিতি আঁকা শুরু করেন। এর ফলে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়।

এদিকে চার দফা দাবি জানিয়ে গত বছর দেয়ালটি নির্মাণ করা হয়েছে বলে জানান শহীদ রফিক-জব্বার হলের শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবিগুলো হলো- শহীদ রফিক-জব্বার হলের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ ও খেলার মাঠ নির্দিষ্টকরণ, হলের সকল অব্যবস্থাপনা দূর করে স্যানিটাইজেশন ব্যবস্থা সংস্কার ও হলের মসজিদে স্থায়ী ইমাম নিয়োগ, ডাইনিংয়ের অব্যবস্থাপনা দূরীকরণ ও কমনরুমের প্রয়োজনীয় উপকরণের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতকরণ এবং তাজউদ্দীন আহমদ হল ও শেখ রাসেল হলের বিকল্প রাস্তার ব্যবস্থা করা।

এদিকে সন্ধ্যা সাতটা থেকে শহীদ রফিক-জব্বার হল ও শেখ রাসেল হলের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলেও শেখ রাসেল হল প্রশাসনের কেউই ঘটনাস্থলে আসেননি। তারা প্রায় সাড়ে তিনঘণ্টা পর রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঘটনাস্থলে আসেন।

এ বিষয়ে শেখ রাসেল হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক তাজউদ্দীন শিকদার বলেন, 'একটা ব্যক্তিগত কাজে ঢাকায় অবস্থান করছিলাম৷ পরে সংঘর্ষের খবর পেয়ে এসেছি। ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেছি।'

শহীদ রফিক জব্বার হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক শাহেদ রানা বলেন, 'সংঘর্ষের খবর পেয়ে হলে আসি। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।'

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, 'দুই হলের রাস্তার মধ্যবর্তী একটি দেয়ালকে কেন্দ্র করে মূলত সংঘর্ষের শুরু। প্রক্টরিয়াল টিমের সদস্যরা শিক্ষার্থীদের থামানোর চেষ্টা করেন, তবে তাঁদের থামানো যাচ্ছিল না। পরে পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।'

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. নূরুল আলম বলেন, 'আমরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করার চেষ্টা করেছি।'

ইত্তেফাক/এআই