সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ফের টেকনাফে দুজন অপহরণ, দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি

আপডেট : ২৭ মার্চ ২০২৪, ১২:০৮

কক্সবাজারের টেকনাফের পাহাড় থেকে কাঠুরিয়া ও রাখাল ছেলেসহ দুজন অপহরণে শিকার। দুর্বৃত্তরা ভুক্তভোগী পরিবারের কাছ থেকে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার ( ২৬ মার্চ) দুপুরের দিকে টেকনাফের হোয়াইক্যং খারাংখালি কম্বনিয়া পাড়া পাহাড়ে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন ভুক্তভোগী মোহাম্মদ নুরের পিতা ফিরোজ আহমেদ।

অপহৃতরা হলেন টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়ন ৯ নম্বর ওয়ার্ড কম্বনিয়া পাড়ার ফিরোজ আহমেদের ছেলে মোহাম্মদ নুর (১৫) ও হ্নীলা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আমির হোসেনের ছেলে অলী আহমেদ (৩০)।

ফিরোজ আহমেদ বলেন, প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার সকালে আমার ছেলে মোহাম্মদ নুর পাহাড়ে পাশে গরু চড়াতে যায়। হঠাৎ করে দুপুরের দিকে একদল অস্ত্রধারী দুর্বৃত্ত পাহাড় থেকে নেমে এসে আমার ছেলেসহ অলী আহমেদ নামের এক কাঠুরিয়াকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পাহাড়ের ভেতর নিয়ে গেছে বলে খবর পায়। পরবর্তীতে সন্ধ্যার দিকে মোবাইলে কল করে দুজন থেকে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করছেন দুর্বৃত্তরা।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনার খবর পেলে পুলিশের টিম বাড়িতে এসে খোজঁ খবর নিয়ে, স্থানীয় লোকজনসহ পাহাড়ে অভিযান যায়। তবে এখনো পর্যন্ত তাদের উদ্ধার করা যায়নি।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ ওসমান গনি বলেন, এক কাঠুরিয়া ও আরেকজন রাখাল ছেলে অপহরণের শিকার হয়েছে বলে শোনা গেছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের উদ্ধারে পুলিশের টিম পাহাড় অভিযান পরিচালনা করেছেন। এবং অভিযান চলমান রয়েছে।

উল্লেখ্য, এ ঘটনার আগে বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) হ্নীলা ইউনিয়নের পানখালিতে খেত পাহারা দিতে গিয়ে ৫ শ্রমিক অপহরণের শিকার হয়েছিল। পরে তাদেরকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী উদ্ধার করেন। এর আগে শনিবার (৯ মার্চ) মাদ্রাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে ৬ বছরের এক মাদ্রাসার ছাত্রকে অপহরণ করা হলেও তাকে এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। 

অপরদিকে গত তিন বছরের টেকনাফ উপজেলায় দেড় শতাধিক লোক অপহরণের শিকার হয়েছিল। এবং অপহরণের পরে মুক্তিপণ দিতে না পারায় টমটম (ইজিবাইক) ও সিএনজি চালক এবং কক্সবাজার থেকে টেকনাফে বেড়াতে আসা তিন যুবকসহ মোট পাঁচজন অপহরণের কবলে পড়েছিল। পরে দুর্বৃত্তরা মুক্তিপণ না পেয়ে তাদেরকে নির্মমভাবে হত্যা করে পাহাড়ে রেখে পালিয়ে যায়। 

ইত্তেফাক/পিও