মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

নিজেদের সামর্থ্যের ১০ ভাগও দিতে পারেননি জ্যোতিরা

আপডেট : ২৮ মার্চ ২০২৪, ১১:১৩

বেশ কয়েক মাস ধরেই বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল দারুণ পারফরম্যান্স করে আসছে। ঘরের মাঠে কিংবা বিদেশের মাটিতে সবখানেই যেন তাদের উন্নতি ছিল চোখে পড়ার মতো। তাতে আসন্ন নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের স্বাগতিক বাংলাদেশের লক্ষ্য যে খানিকটা বড়, তা অনুমেয়ই। তবে তার আগে ঘরের মাটিতে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নেমেই ব্যর্থতার ষোলোকলা পূর্ণ করল নারীরা। কোনো রকম লড়াই ছাড়াই তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে হয়েছে ধবলধোলাই। আর তারপর টাইগ্রেস অধিনায়ক জানালেন সামর্থ্যের ১০ ভাগও দিতে পারেননি তারা।

গতকাল মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে মাঠে নেমে বিগত দুই ম্যাচের মতো এদিনও ব্যর্থ ছিল জ্যোতি বাহিনী। টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে মাত্র ৮৯ রানে অলআউট হয় স্বাগতিক শিবির । তাড়া করতে নেমে মাত্র ১৮.৩ ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। অবশ্য এর আগেই দুই ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ হেরে সিরিজ থেকে ছিটকে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। এদিন তাদের ছিল শুধু হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লড়াই, যাতেও তারা হয়েছেন ব্যর্থ।

এদিকে ম্যাচ শেষে দলের প্রতিনিধি হিসেবে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে টাইগ্রেস অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি জানান দলের সামর্থ্য অনুসারে কেউই পারফর্ম করতে পারেননি। বলেন, ‘১০ ভাগও দিতে পারেনি। আমি নিজেও আসলে অবাক। গেল ছয় মাস আমরা ক্রিকেট খেলেছি পুরোপুরি ভিন্ন। একদম বলব যে পুরো দল ব্যর্থ, দুই-একটা সাইডে সমস্যা হলে মেনে নেওয়া যায়। কিন্তু পুরো দল যেরকম ভিন্ন ধরনের ক্রিকেট খেলেছে, মনে হচ্ছিল যে নিজেরাই নিজেদের ব্যাকফুটে রাখছে। নিজের যেই সামর্থ্যটা আমার, যা মনে হয় আমরা ১০ ভাগও দিতে পারিনি।”

ভিন্ন আরেকটি প্রশ্নে কেন ১০ ভাগও দিতে পারেনি, অধিনায়কের কাছে জানতে চাওয়া হলে জবাবে তিনি বলেন, “এটা আমি মনে করি মানসিকতা । কারণ আপনি দেখেন আমাদের দক্ষতার মধ্যে সমস্যা নেই। যদি সমস্যা থাকত, তাহলে তো আমরা বিগত সময়গুলোতে ম্যাচ জিততে পারতাম না। আমরা এইরকম অনুভূতিশূন্য হয়ে যেতে চাইনি, এখন আমি জানি না সবার মধ্যে আসলে কী কাজ করেছে। আমি চেষ্টা করেছি, যে দলটাকে যতটুকু মোটিভেট করা যায়। আসলে প্রথম ম্যাচ থেকেই আমরা ব্যাকফুটে রয়েছি, এইরকম একটা অনুভূতি কাজ করছিল কিন্তু পুরো দলকেই বোঝাতে চেষ্টা করেছিলাম, যে না আসলে এইরকম না। তো ঐখান থেকে হয়তো-বা খেলোয়াড়গুলো আর ব্যক্তিগতভাবে আর বেরুতে পারেনি।”

শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হওয়ার আগে দলের প্রস্তুতির কোনো কমতি চাওয়া হলে অধিনায়ক জবাবে বলেন, 'না আমরা খুব ভালো প্রস্তুতিই নিয়েছিলাম। কিন্তু বিষয়টা হচ্ছে যখন আপনি অনুশীলনে এক ধরনের মানসিকতা নিয়ে কাজ করছেন কিন্তু এসে (ম্যাচে) ভিন্নভাবে নিজেকে উপস্থাপন করছেন, তখন বিষয়টা কঠিন হয়ে যায়। কারণ কোচ বলেন কিংবা অধিনায়ক হিসেবে বলেন, যখন দেখি একটা খেলোয়াড় খুবই আত্মবিশ্বাসী অথবা অনুশীলন ম্যাচগুলোতে খুব ভালো রান করছে, খুবই দারুণ ব্যাট করছে কিন্তু হঠাৎ করে তিনি পুরোপুরি ভিন্ন ধরনের ব্যাটিং করেন, তখন আমাদের হাতেও অনেক সময় অনেক কিছু থাকে । তো আমার কাছে মনে হয় না অনুশীলনে কোনো ধরনের সমস্যা ছিল, বলব যে আমাদের সক্ষমতা অনুযায়ী একদমই খেলতে পারিনি আমরা।”

ইত্তেফাক/এএইচপি