রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মোটরসাইকেল চোরকে গণপিটুনি দেওয়া না দেওয়া নিয়ে রণক্ষেত্র!

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৫

মোটরসাইকেল চুরি করতে গিয়ে জনতার হাতে ধরা পড়েছে দুই চোর। এরপর তাদের গণপিটুনি দেওয়া না দেওয়া নিয়ে হয়েছে বাকবিতণ্ডা। উত্তেজিত কিছু মানুষ চোরের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলে আগুন দিয়েছে। এরপর পুলিশ এসে দুই চোরকে আটক করতে গিয়ে গলদঘর্ম হয়েছে। উত্তেজিত জনতার সঙ্গে একদফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়াও হয়েছে। ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলের ঘটনা এটি।

জানা গেছে, গত বুধবার (৩ এপ্রিল) রাণীশংকৈল পৌর শহরের কুয়েতি মসজিদের পাশে আজিজুল হকের বাড়িতে ইফতার মাহফিল আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে আজিজুলের নিজের এবং অন্য অতিথিদের মোটরসাইকেল রাখা ছিল। আব্দুর রাজ্জাক ও রেজওয়ান নামের দুই যুবক সেসময় কৌশলে একটি মোটরসাইকেল সরানোর চেষ্টা করলে এক নারী তাদের দেখে ফেলেন। তিনি দ্রুত বিষয়টি আজিজুল হককে জানালে তাদের চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে চারপাশের লোকজন ছুটে এসে রাজ্জাক ও রেজওয়ানকে ধরে ফেলেন। এসময় উত্তেজিত হয়ে কিছু মানুষ রাজ্জাকের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলে আগুন দেয়। দুই চোরকে গণপিটুনি দিতে চাওয়া নিয়ে বাকবিতণ্ডায় মুহূর্তেই পরিস্থিতি রণক্ষেত্রে রূপ নেয়।

মোটরসাইকেলের আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে যায় ফায়ার সার্ভিস। এরপরপরই ঘটনাস্থলে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রকিবুল হাসান, রাণীশংকৈল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) রেজাউল হক ও রাণীশংকৈল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল রানা। উত্তেজিত জনতার ভিড় থেকে রাজ্জাক ও রেজওয়ানকে ছাড়িয়ে নিতে বেগ পেতে হয় পুলিশকে। এসময় জনতার সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটে।

স্থানীয়দের দাবি, রাজ্জাক একটি সংঘবদ্ধ চক্রের মূল হোতা। ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, দিনাজপুর জেলাসহ বিভিন্ন এলাকায় মোটরসাইকেল চুরি করে তারা। চুরির পর মালিকের নম্বর জোগাড় করে টেলিফোন করে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে, টাকা পেলে মোটরসাইকেল ফেরত দেয়। মানুষ এদের ওপর ক্ষুব্ধ।

সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) রেজাউল হক জানিয়েছেন, মোটরসাইকেল চুরি করতে গিয়ে দুই চোর জনতার হাতে ধরা পড়ার পর পুলিশ তাদের আটক করেছে। তাদের নাম আব্দুর রাজ্জাক (৩৬) ও রেজওয়ান (৩০)। রাজ্জাক পৌরসভার বহিষ্কৃত কাউন্সিলর ও ভান্ডারা এলাকার মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে। রেজওয়ান একই এলাকার বাসিন্দা। এর আগেও তাদের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগ ছিল।

রাণীশংকৈল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল রানা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) রাজ্জাক ও রেজওয়ানের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে তাদের জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে। রাজ্জাকের বিরুদ্ধে আগে থেকেই একাধিক মামলা রয়েছে।

ইত্তেফাক/এসটিএম