বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ইরানের সঙ্গে দ্বন্দ্ব এখনো শেষ হয়নি: ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী 

আপডেট : ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৭:৩৪

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট রোববার দিনের শুরুতে বলেছেন, ইরানের সঙ্গে তাদের দ্বন্দ্ব ‘এখনো শেষ হয়নি’। তেহরানের ড্রোন হামলার কয়েক ঘণ্টা পরেই এমন মন্তব্য করেছেন তিনি।

নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, কয়েক বছরের ছায়া যুদ্ধের পর অবশেষে রোববার ইসরায়েলের ওপর প্রথমবারের মতো কয়েকশ বিস্ফোরক ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সরাসরি হামলা চালিয়েছে ইরান।

ইসরায়েলি সামরিক কর্মকর্তারা রোববার সকালে বলেছেন, প্রায় সব ড্রোন আটকানো হয়েছে। যেগুলো আটকানো যায়নি সেগুলো কেবল সামান্য ক্ষতি করেছে। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, তারা কয়েক ডজন ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র গুলি করেছে।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার ইরানিয়ান কনস্যুলেটে হামলার প্রতিশোধ নিয়েছে তেহরান। ইসরায়েলের ওপর এই হামলা কোনো অতর্কিত ঘটনা নয়। এখন প্রশ্ন হল ইসরায়েল কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে। মধ্যপ্রাচ্যের এই দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মাঝে সরাসরি যোগাযোগের কোনো মাধ্যম নেই। আগামী কয়েক ঘণ্টা এবং ভবিষ্যতের দিনগুলোতে তারা বিপজ্জনক যেকোনো সিদ্ধান্ত এড়াতে সক্ষম হবে কিনা সেটাও এখন সবচেয়ে বড় আশঙ্কা বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ইরানের হামলার পর যা যা ঘটলো:

হামলার ফলে কূটনৈতিক তৎপরতা শুরু হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, তিনি রোববার জি৭ নেতাদের নিয়ে একটি বৈঠক আহ্বান করবেন। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও একটি জরুরি বৈঠক করার কথা ছিল।

হামলার পর ইরানিরা তেহরানে উদযাপন করতে জড়ো হয়েছেন। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আক্রমণটিকে প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা হিসেবে বর্ণনা করেছে। পাশাপাশি দেশটির ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ডস কর্পস (আইআরজিসি) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে এই দ্বন্দ্বে জড়িত হওয়ার বিষয়ে সতর্ক করেছে।

এদিকে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বলেছে, তাদের যুদ্ধবিমানগুলো রোববার ভোরে লেবাননে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করেছে। লক্ষ্যবস্তুগুলো ইরান সমর্থিত হিজবুল্লাহর।  

হিজবুল্লাহ বলেছে, তারা সিরিয়ার সীমান্তবর্তী কৌশলগত এলাকা গোলান মালভূমিতে একটি ইসরায়েলি ব্যারাকে শনিবার কয়েক ডজন রকেট নিক্ষেপ করেছে। এলাকাটি ইসরায়েল নিয়ন্ত্রণ করে।

ইত্তেফাক/এএএম