মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

টানা পাঁচ কার্যদিবস দরপতন

শেয়ারবাজারে পতন ঠেকাতে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বিএসইসির বৈঠক আজ 

আপডেট : ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০০:৩১

টানা দরপতনের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না দেশের শেয়ার বাজার। গতকাল রবিবার সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসেও ঢাকা ও চট্টগ্রাম উভয় স্টক এক্সচেঞ্জেই মূল্যসূচকের পতনে লেনদেন হয়েছে। এ নিয়ে ঈদের পর পাঁচ কার্যদিবসেই সূচক কমেছে। সূচকের পাশাপাশি গতকাল উভয় স্টক এক্সচেঞ্জেই লেনদেন কমেছে।

এদিকে টানা দরপতনে হতাশ হয়ে পড়েছেন বিনিয়োগকারীরা। নতুন করে বিনিয়োগ করলে দেখা যাচ্ছে, পরের দিনই সেই বিনিয়োগ আরও কমে যাচ্ছে। ফলে প্রতিনিয়ত লোকসানের পাল্লা ভারী হচ্ছে তাদের। বাজারের এ টানা দরপতন ঠেকাতে করণীয় নির্ধারণে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) বাজার মধ্যস্ততাকারীদের সঙ্গে আজ সোমবার বৈঠক করবে।

বিএসইসি সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ব্রোকারেজ হাউসগুলোর সংগঠন ডিএসই ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশন (ডিবিএ), মার্চেন্ট ব্যাংকারদের সংগঠন বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ) এবং প্রধান ১০টি ব্রোকারেজ হাউসের শীর্ষ নির্বাহীদের এ বৈঠকে ডাকা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ডিবিএ সভাপতি সাইফুল ইসলাম গতকাল ইত্তেফাককে বলেন, ঈদের আগে শেয়ার বাজারে একটা ইতিবাচক আবহ ছিল। আশা করেছিলাম, সেটা ঈদের পরও বজায় থাকবে। কিন্তু ঈদের পর বাজারে ধারাবাহিকভাবে দরপতন হচ্ছে। এর পেছনে ইরান এবং ইসরাইল ইস্যু ভূমিকা রেখেছে। তবে, এটা (ইরান-ইসরাইল উত্তেজনা) যেহেতু আর বাড়ছে না, আমরা আশা করছি, শিগগিরই বাজার ঘুরে দাঁড়াবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ব্যাংকে সুদের হার বাড়ছে। এতে বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ না করে ব্যাংকে টাকা রাখছেন। এছাড়া, মার্জিন ঋণের ওপর সুদের হার বাড়ছে। যে কারণে বিনিয়োগকারীরা অনেকে শেয়ার বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। ডিবিএ সভাপতি বলেন, পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে আমাদের বৈঠক আছে। আশা করছি, বাজার ঘুরে দাঁড়াবে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বাড়ার মধ্যে দিয়ে লেনদেন শুরু হলেও পরে তা কমতে থাকে। দিনশেষে লেনদেনকৃত মোট ৩৯৩টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ৭৫টির, কমেছে ২৮৫টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৩টির দর। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে মূল্যসূচকে। ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩২.৯৭ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৬৫৩.৭১ পয়েন্টে নেমে গেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে বাছাই করা ভালো ৩০টি কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় ২ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৯৮২ পয়েন্টে ও ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৮ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ২৩৮.৫৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এদিন এই বাজারে ৪৭৮ কোটি ২৩ লাখ টাকা লেনদেন হয়েছে। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৫২২ কোটি ৫১ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন কমেছে ৪৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা। অন্য বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসইর) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই কমেছে ১১৯ পয়েন্ট। লেনদেন হয়েছে ১৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১৮ কোটি ৫ লাখ টাকা। গতকাল সিএসইতে লেনদেনকৃত মোট ২১৯টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৩২টির, কমেছে ১৬৮টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টির দর।

ইত্তেফাক/এমএএম