বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

পাম্পে তেল বিক্রিতে অনিয়ম: সংবাদ সংগ্রহ করতে যাওয়ায় সাংবাদিকের ওপর হামলা

আপডেট : ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৫

পাম্পে তেল বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলা শিকার হয়েছেন দেশ রূপান্তরের দুই সাংবাদিক। রবিবার (২১ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাজধানীর পরীবাগে পূর্বাচল ট্রেডার্স  নামের একটি তেল পাম্পে হামলার এ ঘটনা ঘটে।

হামলায় নেতৃত্ব দেন ওয়াহিদুজ্জামান খোকন নামের এক ব্যক্তি। তিনি নিজেকে ওই পাম্পের মালিক বলে দাবি করেন। এ সময় তার সঙ্গে ৯-১০ জন হামলায় অংশ নেন।

পূর্বাচল ট্রেডার্স নামের তেল পাম্পে মালিক পরিচয়ে ওয়াহিদুজ্জামান খোকন

হামলার শিকার নাসিমুল আহমেদ শুভ ও নিহার সরকার অংকুর দেশ রূপান্তর মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিক। এ বিষয়ে আহত দুই সাংবাদিক শাহবাগ থানায় অভিযোগ দায়ের করে। 

এ ঘটনায় শাহবাগ থানায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে তদন্তে যায় পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে হামলার সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কর্মকর্তা মাইনুল ইসলাম খান পুলক। পাম্পে কর্মরত কর্মচারীরা পুলিশের কাছে হামলার বিষয়টি স্বীকার করেছেন বলে জানান তিনি।   

হামলার শিকার দেশ রূপান্তর মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিক (বায়ে) নাসিমুল আহমেদ শুভ ও (ডানে) নিহার সরকার অংকুর

আহত নাসিমুল আহমেদ শুভ বলেন, 'পেশাগত জায়গা থেকে পাম্পে তেল চুরির অনিয়মের ভিডিও ধারণ করছিলাম। সে সময় আমার সঙ্গে থাকা রিপোর্টার নিহার সরকার অংকুর পাম্পের কর্মচারীকে প্রশ্ন করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার মোবাইল ফোনটি কেড়ে নেয়। আমি বাধা দিলে আমার ওপর অতর্কিত হামলা চালায় তারা।' 

শুভ আরো জানিয়েছেন, হামলায় তিনি মাথায় এবং গলায় আঘাত পেয়েছেন। তার মোবাইল ফোন থেকে ধারণকৃত ভিডিও ডিলিট করে হামলাকারীরা মোবাইল ফোনটি ভেঙে ফেলেছে। এই বিষয়টির সুষ্ঠু বিচার দাবি করি। 

পূর্বাচল ট্রেডার্স তেল পাম্পে কারচুপির মাধ্যমে তেল সরবারাহ। ছবি: সংগৃহীত

হামলার শিকার আরেক সাংবাদিক নিহার সরকার অংকুর বলেন, 'ডিজিটাল মেশিন ব্যবহার না করে এনালগ পদ্ধতিতে তেল বিক্রি করছিলেন তারা। এতে তেলের পরিমাপে কারচুপি হচ্ছিল। ভোক্তাদের ঠকাচ্ছিলেন পাম্পের মালিকপক্ষ। এসব অনিয়ম নিয়ে প্রশ্ন করার সময় সহকর্মী শুভ সেটি ভিডিও করছিলেন। তারা শুভর মোবাইল ভেঙে ফেলে তার ওপর হামলা চালায়। ঘটনার সময় পুলিশকে ফোন দিতে গেলে তারা আমার উপরও আঘাত করে এবং আমার ফোনটিও নিয়ে যায়। শাহবাগ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।  আমি এই বিষয়টির সুষ্ঠু বিচার দাবি করি।' 

এছাড়াও তদন্তের দায়িত্ব পাওয়া পুলিশ কর্মকর্তা মাইনুল ইসলাম খান পুলক বলেন, 'আমরা অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হামলার প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছি। সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করার চেষ্টা চলছে। ফুটেজ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অতিদ্রুত আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এছাড়া হামলা করার বিষয়টি আমাদের কাছে প্রাথমিকভাবে স্বীকারও করেছে পাম্পের কর্মচারীরা। তবে কর্মচারীদেরও কিছু অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ পুরো বিষয়টি নিরপেক্ষতার সঙ্গে তদন্ত করছে। 

ইত্তেফাক/এমএএম