শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় ডিএমপি কমিশনারের বিশেষ উদ্যোগ

আপডেট : ০৮ মে ২০২৪, ২১:০১

রাজধানীর যানজট নিরসন করে সড়ক, মহাসড়কে নির্বিঘ্নে সুষ্ঠু নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিতে এক বিশেষ উদ্যোগ হাতে নিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার হাবিবুর রহমান। দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকে তিনি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন ঢাকা মহানগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা নিয়ে, যা মহানগরবাসীর জন্য এক বড় আকাঙ্ক্ষা।

পুলিশ কমিশনার হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে মহানগরীর ট্রাফিক যানযট সহনীয় পর্যায়ে এসেছে এবং ট্রাফিক সার্কুলেশন পরিকল্পনায় নতুনত্ব এসেছে। স্বস্তিতে সবাই সহজে যাতায়াত করতে পারছেন বলে জানিয়েছে ডিএমপি।

বিশেষ করে গত রমজান মাসে ও ঈদুল ফিতরে ঢাকা মহানগরীর ৮টি ট্রাফিক বিভাগের সব রাস্তায় বিশেষ অভিযান ও কমিউনিটি ট্রাফিক পুলিশ মোতায়েন করে মহানগরীর যানযট সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়েছিল। সেসময় মহানগরবাসীর ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছিলেন ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান। রাজধানীর নিরাপদ যাতায়াত ও সার্বিক নিরাপত্তায় বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ঈদুল ফিতরের পর থেকে বিশেষ চেকপোস্ট ও বিশেষ অভিযানের বিশেষ নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি।

ডিএমপির ৮টি ট্রাফিক বিভাগের উপপুলিশ কমিশনারদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অপরাধীদের নিয়ন্ত্রণ করতে এবং আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কেউ যেন ছদ্মবেশে পালিয়ে যেতে না পারেন, সেজন্য প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করছে ট্রাফিক বিভাগ।

ডিএমপি কমিশনারের নির্দেশনায় অননুমোদিত স্টিকার সম্বলিত যানবাহন, অবৈধ ও ফিটনেসবিহীন যানবাহনের বিরুদ্ধে ব্যাপক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার পাশাপাশি ট্রাফিক জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্সের এবং মাঠ পর্যায়ের ট্রাফিক সদস্যরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।

এতে করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অংশীজন ও সাধারণ জনগণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ। এছাড়াও ঢাকা মহানগরীতে রাতে যেসব কাগজপত্রবিহীন ট্রাক বালি, মাটি ও ইটসহ নানাবিধ মালামাল বহন করে, সেসব ট্রাকের বিরুদ্ধে প্রতিটি ট্রাফিক জোন ও বিভাগের সদস্যরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছে।

এবিষয়ে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-অ্যাডমিন অ্যান্ড রিসার্চ) ও প্রকল্প ম্যানেজার, ঢাকা রোড ট্রাফিক সেফটি প্রজেক্ট (ডিআরএসপি) মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান ও যুগ্ম পুলিশ কমিশনারের (ট্রাফিক) সার্বিক সমন্বয় ও তত্ত্বাবধানে ডিএমপি কমিশনারের নির্দেশনাগুলো যথাযথভাবে পালন করা হচ্ছে এবং প্রতিদিনের অভিযানের ফলাফল সংগ্রহ করে, তা বিশ্লেষণের মাধ্যমে ঢাকা মহানগরীর যানযট নিরসনে টেকসই উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে।

তিনি জানান, এছাড়াও যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে এবং জনসাধারণের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে যেসব হকার ও গাড়ির ভ্রাম্যমাণ কাউন্টার ফুটপাত ও রাস্তা দখল করে ব্যবসা করছে, ডিএমপি কমিশনারের বিশেষ নির্দেশনায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে রাস্তা ও ফুটপাত যান চলাচল ও জনসাধারণের চলাচলের উপযোগী করা হচ্ছে।

অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ প্রসঙ্গে মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এছাড়াও অবৈধ ব্যাটারিচালিত রিকশার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার পাশাপাশি মূলসড়কে যেন অযান্ত্রিক যান চলাচল না করতে পারে, সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।

তিনি জানান, ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের নির্দেশিত ছক অনুযায়ী ৮টি ট্রাফিক বিভাগ থেকে ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা, অবৈধ যানবাহন, মাটির ট্রাক ও হকারদের তালিকাও সংগ্রহ করা হচ্ছে পরবর্তী ব্যবস্থাপনা ও বিশ্লেষণের জন্য। নিরাপদ যাতায়াত ও জনসেবায় সব সময় কাজ করে যাচ্ছে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ। 

ইত্তেফাক/জেডএইচডি