রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

জাতিসংঘে প্রস্তাব পাস, এখন কি ফিলিস্তিন পূর্ণ সদস্য পদ পাবে

আপডেট : ১১ মে ২০২৪, ১৭:২৬

ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেওয়াসহ দেশটিকে জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য করার পক্ষে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে শুক্রবার (১০ মে)। এর ফলে সাধারণ পরিষদ জাতিসংঘের ভেতরে ফিলিস্তিনের অধিকারসীমা আরও বাড়িয়েছে এবং সদস্য হিসেবে তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবিকে আরও জোরালো করেছে।

ফিলিস্তিন ২০১২ সাল থেকেই জাতিসংঘের অ-সদস্য পর্যবেক্ষক রাষ্ট্র হিসেবে মর্যাদা পাচ্ছে। কিন্তু এর ফলে তারা পূর্ণ সদস্যের সুযোগ সুবিধা পায় না। এই সদস্য পদের বিষয়টি শুধু নির্ধারণ করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।

সম্প্রতি তাদের পূর্ণ সদস্য হওয়ার এক দফা চেষ্টায় ভেটো দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। তবে শুক্রবার সাধারণ অধিবেশনে যে ভোট হয়েছে সেটাকে দেখা হচ্ছে ফিলিস্তিনের পূর্ণ সদস্য পদ প্রাপ্তির পক্ষে সমর্থন হিসেবে।

১৪৩-৯ ভোটে পাস হয়েছে প্রস্তাবটি। ছবি: রয়টার্স

ভোটের আগে জাতিসংঘে নিযুক্ত ফিলিস্তিনের দূত রিয়াদ এইচ. মানসুর বলেন, ‘আমরা শান্তি চাই, আমরা স্বাধীনতা চাই, একটা হ্যাঁ ভোট ফিলিস্তিনের অস্তিত্বের ভোট, এটা কোন রাষ্ট্রের বিপক্ষে নয়।’

সাধারণ পরিষদে বেশ বড় ব্যবধানেই ভোটের মাধ্যমে ফিলিস্তিনকে নতুন ‘অধিকার ও সুবিধা’ দিয়েছে জাতিসংঘ এবং একইসঙ্গে জাতিসংঘের ১৯৪তম সদস্য হিসেবে ফিলিস্তিনের অন্তর্ভুক্তির দাবিকে পুনরায় বিবেচনা করতে বলা হয়েছে।

আরব ও ফিলিস্তিনের আনা এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট পড়েছে ১৪৩টি, আর বিপক্ষে ভোট দিয়েছে ৯টি রাষ্ট্র। যাতে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল ছাড়াও আছে আর্জেন্টিনা, হাঙ্গেরি, মাইক্রোনেশিয়া, পালাউ, পাপুয়া নিউ গিনি ও চেক প্রজাতন্ত্র। এছাড়া ২৫ টি রাষ্ট্র ভোট প্রদানে বিরত থাকে।

জাতিসংঘের এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছেন ফিলিস্তিন প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। তিনি বলেন, এটা নিরাপত্তা পরিষদে আবারও ভোটের জন্য যে চেষ্টা তাদের, সেটাকে সমর্থন করবে। ফিলিস্তিন জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য পদ পাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাবে।

অন্যদিকে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরায়েলের দূত গিলাদ এরদান বলেছেন, সংস্থাটি একটি ‘সন্ত্রাসী রাষ্ট্রকে’ স্বাগত জানাল। অধিবেশনে বক্তৃতার সময় তিনি জাতিসংঘের সনদের একটি কপি ছিড়ে ফেলেন এবং অভিযোগ করেন, জাতিসংঘের সদস্যরা আসলে এই কাজটিই করলেন ফিলিস্তিনের পক্ষে প্রস্তাব পাস করে।

নিজের বক্তব্যে জাতিসংঘের সনদ ছিঁড়ে ফেলেন ইসরায়েলি দূত গিলাদ এরদান। ছবি: সংগৃহীত

গিলাদ বলেন, ‘আপনাদের অনেকেই ইহুদী বিদ্বেষী, ফিলিস্তিনেরা যে শান্তিপ্রিয় নয় এটাতে আপনাদের কিছু যায় আসে না, জাতিসংঘের সনদকে অবজ্ঞা করে ফিলিস্তিনকে সদস্য সুবিধা দেয়ার মানে আপনারা নিজের হাতে জাতিসংঘের সনদ ধ্বংস করলেন।’

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ফরেন পলিসি প্রধান জোসেপ বোরেল বৃহস্পতিবার স্প্যানিশ গণমাধ্যম আরটিভিইকে বলেছেন, স্পেন ২১ মে ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেবে। এর আগে তিনি কোন তারিখ না জানালেও বলেন, মাল্টা, আয়ারল্যান্ড ও স্লোভেনিয়াও একই পথে হাঁটছে।

শুক্রবার জাতিসংঘের প্রস্তাবে ফিলিস্তিনকে বাড়তি সুবিধা প্রদান করা হয়, যাতে তারা পুরোপুরি কোন বিতর্কে অংশ নিতে পারে, এজেন্ডা প্রস্তাব করতে পারে এবং কমিটি নির্বাচনে তাদের প্রতিনিধি রাখতে পারে।

তবে কোন ভোট দেওয়ার অধিকার এখনো পাচ্ছেনা তারা– সেটা প্রদানের ক্ষমতা জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের নেই, এটা কেবল অনুমোদন দিতে পারে নিরাপত্তা পরিষদ।

জাতিসংঘে এই নতুন প্রস্তাব পাসের মানে কী

ইসরায়েল ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয় না এবং গাজা ও পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করে আসছে বর্তমান ইসরায়েলি সরকার। তাদের যুক্তি এরকম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হলে তা হবে ইসরায়েলে অস্তিত্বের জন্য হুমকি।

যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলের পাশাপাশি স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা সমর্থন করে– যে ‘টু স্টেট সলিউশনকে’ তারা ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকটের একমাত্র সমাধান মনে করে। কিন্তু তারা বলে যে এটা আসতে হবে শুধু ঐ দুই পক্ষের আলোচনার মাধ্যমে।

জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী দূত রবার্ট উড শুক্রবার বলেন, ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের জন্য যুক্তরাষ্ট্র তখনই সমর্থন দেবে যখন দুই পক্ষের আলোচনায় ইসরায়েলের নিরাপত্তা এবং ফিলিস্তিনিরাও যে তাদের রাষ্ট্রে শান্তিতে বসবাস করবে সেই নিশ্চয়তা দেওয়া হবে।

গত মাসে অনেক দেশের সমর্থনে আলজেরিয়া ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে সদস্য করার একটি প্রস্তাব আনে। নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্যের একজন হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র যাতে ভেটো দেয় এবং বলে যে এটা এখনো করার সময় আসেনি।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের আনা কোন প্রস্তাবের আইনগত বাধ্যবাধকতা আছে, যা সাধারণ পরিষদের আনা কোন প্রস্তাবের ক্ষেত্রে থাকে না।

তবে সাধারণ পরিষদের এই ভোট জাতিসংঘের সদস্য হতে ফিলিস্তিনের পক্ষে যে বেশ্বিক সমর্থন রয়েছে সেটাকেই আবারও তুলে ধরলো। অনেক দেশ গাজায় অভিযান মৃতের সংখ্যা ও নতুন করে রাফায় ইসরায়েলের সামরিক অভিযান নিয়ে শঙ্কা জানিয়েছে।

ফলে ইসরায়েলের বিপক্ষে ও ফিলিস্তিনের পক্ষে যে সমর্থন বাড়ছে সেটাও প্রমাণ করে সাধারণ পরিষদে ভোটের ফলাফল। গত বছরের অক্টোবরে যখন গাজায় মানবিক যুদ্ধবিরতির জন্য জাতিসংঘে প্রস্তাব আনা হয়, সেটা ১২০-১৪ ভোটে পাস হয়েছিল। তখন ৪৫টি রাষ্ট্র ভোট প্রদানে নিজেদের বিরত রেখেছিল।

কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের আইন অনুযায়ী ওয়াশিংটন এমন কোন জাতিসংঘের সংস্থাকে তহবিল প্রদান করবে না যারা ‘আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি’ না থাকা সত্ত্বেও কাউকে রাষ্ট্রের মর্যাদা দেয়। ২০১১ সালে ফিলিস্তিনিরা সদস্য হিসেবে জাতিসংঘে যুক্ত হলে যুক্তরাষ্ট্র ইউনেস্কোকে অর্থ সহায়তা বন্ধ করে দেয়।

এর আগে গিলাদ এরদান বলেন যদি জাতিসংঘ এই প্রস্তাব পাস করে তাহলে তিনি আশা করেন যে যুক্তরাষ্ট্র জাতিসংঘ ও তাদের সহযোগী অন্যান্য সংস্থার প্রতি সহায়তা বন্ধ করবে।

তথ্য সূত্র: বিবিসি 

ইত্তেফাক/এসএটি