সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব 

উৎস কর বৃদ্ধি, আড়াইহাজারে কমেছে জমি নিবন্ধন

আপডেট : ১২ মে ২০২৪, ০৪:০০

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার রাজধানীর পার্শ্ববর্তী একটি উপজেলা। উপজেলাটি উন্নয়নের ছোঁয়ায় দিনদিন এখানকার পরিবেশ পালটে যাচ্ছে। এ উপজেলায় রাস্তাঘাট বেশি হওয়ায় এখানে জমির কদর বেড়েছে; কিন্তু দলিলের উৎস কর বৃদ্ধি হওয়ায় কমেছে জমি রেজিস্ট্রি বা নিবন্ধন। এতে মোটা অঙ্কের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। ব্যক্তিগত কিংবা বিশেষ প্রয়োজনেও জমি বিক্রি করতে না পারায় ভোগান্তি বেড়েছে সাধারণ জমির মালিকদের।

অন্যদিকে, ব্যবসায়ীরাও পড়েছেন বিপাকে। তাছাড়া অলস সময় পার করছেন দলিলের টিপ-কালি, খাতা, কলম, স্ট্যাপলার, সুঁই-সুতা আর রেজিস্টার নোট নিয়ে টেবিলের সামনে বসে থাকা সাবরেজিস্ট্রি অফিসের নকলনবিশ, পিয়ন ও অফিস সহকারীরা। বর্তমানে কিছু হেবা দলিল ও দায়মোচন (রিডাকশন) দলিল সম্পাদনের মধ্যেই সাবরেজিস্ট্রি অফিসের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা সাবরেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে গত বছরের (২০২৩) এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত চার মাসে দলিল রেজিস্ট্রি হয়েছে মোট ৭ হাজার ৬৮৮টি। স্ট্যাম্প শুল্ক আদায় হয়েছে ৩ কোটি ২৬ লাখ ৫৮ হাজার ৩৯৪ টাকা। রেজিস্ট্রি ফি (নগদ ও পে-অর্ডার) আদায় হয়েছে ২ কোটি ২৫ লাখ ১৩ হাজার ১২৪ টাকা। উৎস কর আদায় হয়েছে ৪ কোটি ৬০ লাখ ৩৭ হাজার ৬৪৫ টাকা। একই বছরের আগস্ট থেকে নভেম্বর পর্যন্ত চার মাসে দলিল রেজিস্ট্রি হয়েছে মোট ৩ হাজার ৪৫৮টি। স্ট্যাম্প শুল্ক আদায় হয়েছে ২ কোটি ২০ লাখ ৪৬ হাজার ৭৫৮ টাকা। রেজিস্ট্রি ফি (নগদ ও পে-অর্ডার) আদায় হয়েছে ১ কোটি ৫৬ লাখ ১৫ হাজার ৪৩১ টাকা। উৎস কর আদায় হয়েছে ৫ কোটি ১৫ লাখ ৬৮ হাজার ৫৭৯ টাকা। যা তুলনামূলকভাবে অনেক কম। 

উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন জানান, আগে এই উপজেলায় প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ৩ শতাধিক সাবকবলা দলিল সম্পাদন হতো; কিন্তু বর্তমানে একমাত্র আমমোক্তারনামা দলিল রেজিস্ট্রি হচ্ছে; কিন্তু শতাংশপ্রতি অস্বাভাবিক উৎস কর বৃদ্ধি পাওয়ায় জমি ক্রয়বিক্রয় করা যাচ্ছে না। সমিতির সভাপতি আমান উল্লাহ আমান জানান, আড়াইহাজারে জমির চাহিদা তুলনামূলক বেশি; কিন্তু খরচ বৃদ্ধির কারণে এখন জমি রেজিস্ট্রি হচ্ছে না। উৎস কর বেশি হওয়ায় এই এলাকায় জমি কিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না ক্রেতারা।

ইত্তেফাক/এমএএম