রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচন 

সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কায় প্রার্থীরা

আপডেট : ১৬ মে ২০২৪, ০৮:০০

প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে জালভোট, কেন্দ্র দখল ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় দ্বিতীয় ধাপের ভোট নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন প্রার্থীরা। এমপিদের প্রভাব বিস্তার ও ভীতিকর পরিস্থিতির কারণে ভোটাররাও ভোটকেন্দ্রে যেতে ভয় পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন প্রার্থীরা। ভোটে মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব বিস্তার ঠেকাতে নির্বাচন কমিশন ও স্পিকারকে চিঠি দিয়েও কোনো কাজ হয়নি। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জেলায় এমপিদের নামে ভোট চাওয়া হচ্ছে। আচরণবিধির তোয়াক্কা করছেন না কেউই।

এদিকে উপজেলা নির্বাচনে প্রকাশ্যে ভোট দেওয়ায় নির্বাচন কমিশনে এসে ‘দুঃখ প্রকাশ’ করেছেন বরিশাল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল হাফিজ মল্লিক। অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলীর বড় ভাই এবং গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জামিল হাসানের প্রার্থিতা বাতিল করেছে ইসি। গত ৮ মে প্রথম ধাপের ভোট অনুষ্ঠিত হয়। ভোটের দিন হামলা, গুলি, সংঘর্ষ, জালভোট, কারচুপির ঘটনা ঘটেছে। অনেকেই ভোট বর্জনও করেন। অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে দুটি কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করা হয়। অনিয়মের চেষ্টার অভিযোগে আটক করা হয় ৩৭ জনকে। অনেক জায়গায় শান্তিপূর্ণ ভোট হলেও প্রায় সব জায়গায়ই ভোটার উপস্থিতি কম ছিল। যা গত একদশকে উপজেলা নির্বাচনে সর্বনিম্ন। সংঘর্ষ হয়েছে—চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে, নরসিংদী, মাদারীপুর ও লক্ষ্মীপুরে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ, প্রিজাইডিং অফিসার ও এজেন্ট আটক, গ্রেফতার, সাজা প্রদান, জালভোট এবং ভোট বর্জনের খবর পাওয়া গেছে। এই পরিস্থিতিতে আগামী ২১ মে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দ্বিতীয় ধাপের ১৫৭ উপজেলা পরিষদের ভোট।

হুইপ নজরুল ইসলাম বাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগ :দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনি প্রচারণার শেষ মুহূর্তে এসে আচরণবিধির তোয়াক্কা করছে না কেউ। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ নজরুল ইসলাম বাবুর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ জমা পড়েছে ইসিতে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শাহজালাল মিয়া ইসিতে দেওয়া অভিযোগে জানিয়েছেন, আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাচনে হুইপ নজরুল ইসলাম বাবু নিজের পছন্দের প্রার্থী ঘোষণা করে প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছেন। তিনি নির্বাচনি প্রচারণায় বলছেন, ‘অর্থকড়ি, প্রশাসন আমি দেখব। তার ক্ষমতা ব্যবহার করে প্রকাশ্যে তার চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইফুল ইসলামের পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছেন। আমার কর্মী-সমর্থকদের বিরতিহীনভাবে হুমকি, ভয়ভীতি প্রদর্শন করে যাচ্ছেন। এতে করে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ সংক্রান্ত ভিডিও ক্লিপও ইসিতে জমা দেওয়া হয়। নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বিষয়টি অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

একইভাবে নেত্রকোনায় দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। ঠাকুরগাঁওয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে স্থানীয় সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেনের নাম ব্যবহার করে সদর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারুল ইসলামের পক্ষে ভোট চাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের এক নেতার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য বলছেন, নিরপেক্ষ রয়েছেন তিনি। শরীয়তপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের একটি সভায় এক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ভোটার ও প্রার্থীকে হুমকি দিচ্ছেন, এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয় এমপিদের প্রভাব বিস্তারের ঘটনায় সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কিত একাধিক প্রার্থী ইসির হস্তক্ষেপ কামনা করে চিঠি দিয়েছেন।

দুঃখ প্রকাশ এমপি হাফিজের ও এক জনের প্রার্থিতা বাতিল :উপজেলা নির্বাচনে প্রকাশ্যে ভোট দেওয়ায় নির্বাচন কমিশনে এসে ‘দুঃখ প্রকাশ’ করেছেন বরিশাল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল হাফিজ মল্লিক। ফলে তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে কমিশন। একই দিন নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জামিল হাসানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত দিয়েছে সংস্থাটি। বুধবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) সম্মেলনকক্ষে পৃথকভাবে তাদের দুজনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শেষে ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ ইসির সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘আচরণবিধি ভঙ্গ করায় গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জামিল হাসানের প্রার্থিতা বাতিল করেছে কমিশন। প্রার্থীর শুনানি শেষে নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত দেয়।’

জামিল হাসান গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ঘোড়া প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। কয়েক দফা আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে তাকে তলব করে কমিশন। এই প্রার্থী প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট রহমত আলীর ছেলে। তিনি গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলীর বড় ভাই।

ইসির অতিরিক্ত সচিব আরো জানান, এছাড়া গেল ৮ মে উপজেলা ভোটে বরিশাল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল হাফিজ মল্লিক প্রকাশ্যে ভোট দেওয়ায় কমিশনে এসে দুঃখ প্রকাশ করেন। শুনানিতে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন তিনি। ফলে তাকে দায়মুক্তি দিয়েছে কমিশন। পরে সংসদ সদস্য হাফিজ মল্লিকও সাংবাদিকদের বলেন, ‘এ ঘটনায় আমি দুঃখ প্রকাশ করেছি’।

ইত্তেফাক/এমএএম