শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

বিমানবন্দরে ক্রিকেটারদের নিরাপত্তায় বিসিবির উদাসীনতা

বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের বিমান ধরতে সবার আগে বিমানবন্দরে এসে উপস্থিত হন লিটন কুমার দাস। আর তার গাড়ি দেখেই চারপাশে ঘিরে ধরে সমর্থকরা। আর গাড়ি থেকে বের হওয়ার পর তো সবাই সেলফি তুলতে তাকে নিয়ে শুরু করে দেয় টানাহ্যাঁচড়া। গায়ে হাত দিয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করে আবার অনেকে তুলেও নেয় সেলফি। তবে পুরোটা সময় নিজেকে হিমশীতল করে রেখেছিলেন তিনি। কাউকে কিছুই বলেনি। সব কিছু সহ্য করে গেছেন তিনি মুখ বুজেই। লিটনের এমন অবস্থা দেখে বিমানবন্দরের কয়েক জন নিরাপত্তাকর্মী এগিয়ে এসে মানুষের মধ্যখান থেকে রাস্তা বানিয়ে বিমানবন্দরে ঢোকার ব্যবস্থা করে দেয়। শুধু লিটন নন, অধিনায়ক শান্ত, পেসার শরিফুল ইসলাম, তাওহীদ হৃদয় ও রিজার্ভে থাকা আফিফ হোসেন ধ্রুব সবাইকেই মুখোমুখি হতে হয় এমন পরিস্থিতির

আপডেট : ১৭ মে ২০২৪, ১৫:৫৪

এক প্রকার ঘোষণা দিয়েই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, বুধবার রাতে ঢাকা ছেড়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং  তার আগে স্বাগতিকদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের একটি সিরিজ খেলতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওয়া হবে বাংলাদেশ দল। তাই দল পৌঁছানোর আগেই সেখানে জড়ো হয়েছিল সমর্থকরা। সাধারণত বিমানবন্দরে সব সময়ই মানুষে ভরা থাকে, তবে শান্তদের দেশ ছাড়ার খবরে যেন ভিড় আরো কয়েক গুণ বেড়ে যায় জায়গাটিতে। তবে সমর্থকদের ভিড় মোকাবিলায় বিসিবির পক্ষ থেকে দেখা যায়নি কোনো পদক্ষেপ; ফলে খেলোয়াড়দের মানুষ ঠেলেই ধরতে হয়েছে দেশ ছাড়ার বিমান।

গত পরশু রাত ১টা ৫০ মিনিটে দেশ ছেড়েছিলেন টাইগাররা। তবে বিমানবন্দরে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন তার কয়েক ঘণ্টা আগে। তবে সবাই একসঙ্গে আসেনি। যে যার যার মতো আলাদাভাবে এসেছিলেন। কারো কারো সঙ্গে ব্যক্তিগত গাড়িতে ছিলেন তাদের পরিবারের সদস্যরাও। অনেকে আবার আসেন বিসিবির দেওয়া বাসে করে। তবে গাড়ি বা বাস থেকে নামার পরই খেলোয়াড়দের চারদিক থেকে ঘিরে ধরে সমর্থকরা। সবার আবদার তাদের পছন্দের ক্রিকেটারের সঙ্গে একটি মুহূর্ত মোবাইল বন্দি করে রাখার। 

তবে এমন ভিড়ে ঘটে যেতে পারত খেলোয়াড়দের সঙ্গে যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনাও। কেননা আলাদা করে তাদের জন্য রাখা ছিল না কোনো নিরাপত্তাব্যবস্থাও। যদিও পরবর্তীকালে বিষয়টি আঁচ করতে পেরে খানিকটা কঠোর হতে দেখা গিয়েছিল বিমানবন্দরের নিরাপত্তাকর্মীদের। তারাই এগিয়ে গিয়ে খেলোয়াড়দের আশপাশের ভিড় কমানোর চেষ্টা করতে।

বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের বিমান ধরতে সবার আগে বিমানবন্দরে এসে উপস্থিত হন লিটন কুমার দাস। আর তার গাড়ি দেখেই চারপাশে ঘিরে ধরে সমর্থকরা। আর গাড়ি থেকে বের হওয়ার পর তো সবাই সেলফি তুলতে তাকে নিয়ে শুরু করে দেয় টানাহ্যাঁচড়া। গায়ে হাত দিয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করে আবার অনেকে তুলেও নেয় সেলফি। 

তবে পুরোটা সময় নিজেকে হিমশীতল করে রেখেছিলেন তিনি। কাউকে কিছুই বলেনি। সব কিছু সহ্য করে গেছেন তিনি মুখ বুজেই। লিটনের এমন অবস্থা দেখে বিমানবন্দরের কয়েক জন নিরাপত্তাকর্মী এগিয়ে এসে মানুষের মধ্যখান থেকে রাস্তা বানিয়ে বিমানবন্দরে ঢোকার ব্যবস্থা করে দেয়। শুধু লিটন নয়, অধিনায়ক শান্ত, পেসার শরিফুল ইসলাম, তাওহীদ হৃদয় ও রিজার্ভে থাকা আফিফ হোসেন ধ্রুব সবাইকেই মুখোমুখি হতে হয় এমন পরিস্থিতির। এর মধ্য দিয়েই সমর্থকদের ঠেলে ধরতে হয় তাদের বিমান। উপস্থিত সবারই আবদার একটি ছবি। শুভ কামনা জানায় বিশ্বকাপ নিয়েও।

এদিকে এমন ভিড়ে যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটতে পারত। উপস্থিত সমর্থকদের টানাহ্যাঁচড়া বা ধাক্কাধাক্কিতে বিমান ধরার আগেই যে কোনো ধরনের ইনজুরিতে পড়তে পারত খেলোয়াড়রা। তবে খেলোয়াড়দের জন্য বিসিবির পক্ষ থেকে শুরুতে অতিরিক্ত কোনো নিরাপত্তার ব্যবস্থা রাখা হয়নি কিংবা আলাদা কোনো প্রবেশপথ দিয়েও প্রবেশ করানো হয়নি। বিসিবি হয়তো ভাবতেও পারেনি, বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে খেলোয়াড়রা। যদিও সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিসিবির পক্ষ থেকে কয়েক জনকে খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফদের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতে দেখা গিয়েছিল কিন্তু যা হওয়ার তা আগেই হয়ে গিয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ‘ডি’ গ্রুপে রয়েছে বাংলাদেশ। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে রয়েছে শ্রীলঙ্কা, সাউথ আফ্রিকা, নেদারল্যান্ডস এবং নেপাল। আগামী ৮ জুন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে শান্তবাহিনী। তার আগে আগামী ২১, ২৩ ও ২৫ তারিখ যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে টাইগাররা। তিনটি ম্যাচই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৯ টায়। মূলত লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের দেশটি এর আগে ক্রিকেট খেলার খুব বেশি অভিজ্ঞতা না থাকায় এবং কন্ডিশন ভিন্ন হওয়ায় তার সঙ্গে মানিয়ে নিতেই এই সিরিজ রাখা হয়েছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন