শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

প্রস্তুত বাংলাদেশ-ভারতের ওয়ার্ম-আপ ম্যাচের ভেন্যু

আপডেট : ১৭ মে ২০২৪, ১৮:২৮

দরজায় কড়া নাড়ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর। প্রথম বারের মতো আইসিসির কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে আইসিসির সহযোগী দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও আইসিসির পূর্ণ সদস্যের দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ওয়েস্ট ইন্ডিজে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী হলেও যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা তেমন নেই বললেই চলে। 

আর ক্রিকেটের তেমন জনপ্রিয়তা না থাকায় দেশটিতে ছিল না কোনো আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট স্টেডিয়ামও। তাই এত বড় টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য অল্প সময়ের জন্য স্টেডিয়াম নির্মাণ করতে পারে কি না যুক্তরাষ্ট্র, সেটা নিয়েও ছিল বেশ শঙ্কা। তবে সব শঙ্কা উড়িয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়ে মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে বিশ্বমানের স্টেডিয়াম নির্মাণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। যার মধ্যে একটি নিউ ইয়র্কের এইসেনপাওয়ার পার্কের নাসাউ কাউন্টি স্টেডিয়াম।

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিন ম্যাচে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও আসন্ন বিশ্বকাপের জন্য গেল পরশু রাতে দেশ ছাড়ে বাংলাদেশ দল। সবার আগে আয়োজন দেশে পৌঁছান টাইগাররা। আসরটিকে সামনে রেখে মূল ম্যাচে নামার আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে নাজমুল হোসেন শান্তর দল। যার মধ্যে একটি আগামী ১ জুন ভারতের বিপক্ষে। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী নিউ ইয়র্ক থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে নাসাউ কাউন্টি স্টেডিয়ামে। 

তবে মাত্র পাঁচ মাস আগেও এটি শুধু মাত্র একটি পার্ক ছিল। সাধারণ একটি পার্ক থেকে আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে স্টেডিয়ামটির উদ্বোধন করেন এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শুভেচ্ছা দূত ও বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততম মানব উসাইন বোল্ট। এছাড়াও এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন পাকিস্তানের তারকা অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক কিংবদন্তি ক্রিকেটার স্যার কার্টলি এমব্রোসসহ বিশ্বের আরো কয়েক তারকা।

এই স্টেডিয়ামের দর্শক ধারণক্ষমতা প্রায় ৩৪ হাজার। এই মাঠের জন্য অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড থেকে ড্রপ ইন পিচ এনে বসানো হয়েছে। এই ম্যাচে পিচ আছে মোট ১০টি। যার মধ্যে চারটি তৈরি করা হয় মূল ম্যাচের জন্য ও বাকি ছয়টি প্রস্তুতির জন্য। অন্যদিকে আগামী ৩ জুন দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কার মধ্যেকার ম্যাচ দিয়ে এই মাঠে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বকাপের মূল পর্বের ম্যাচ। এ ছাড়াও এই মাঠে অনুষ্ঠিত হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের হাইভোল্টেজ ম্যাচ। ম্যাচটি আগামী ৯ জনু অনুষ্ঠিত হবে। এর পর ১০ জুন এই ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

নিউ ইয়র্কের এই মাঠ নিয়ে আইসিসির ইভেন্ট ম্যানেজম্যান্টের প্রধান ক্রিস টেটলি বলেন, ‘আমরা পার্ক ল্যান্ডকে একটি আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়ামে রূপান্তরিত করতে সক্ষম হয়েছে। আমার বিশ্বাস এমন স্টেডিয়াম আপনি বিশ্বের কোথাও খুঁজে পাবেন না।’

বিশ্বকাপের মূল পর্ব শুরু হওয়ার আগে এই মাঠে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। এই ম্যাচে দুইটি ম্যাচ আয়োজনের কারণ নিয়ে টেটলি বলেন, ‘এই ম্যাচের উইকেট ও দর্শকদের কেমন চাহিদা, এই মাঠটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের জন্য কতটুকু প্রস্তুত, সেটা বোঝার জন্য এখানে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।’  এই মাঠেই অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচের সীমিত কিছু টিকিট এখনো অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান তিনি। এই নিয়ে তিনি বলেন, ‘দর্শকদের জন্য এখনো যে কোনো ম্যাচের টিকিট কেনার সীমিত সুযোগ রয়েছে।’

ইত্তেফাক/জেডএইচ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন