শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ওপেনিং ছাড়া বাকি কোনো জায়গায় দ্বিধাদ্বন্দ্ব নেই: পাপন

আপডেট : ১৯ মে ২০২৪, ১৫:৩৩

নবম বিশ্বকাপে অংশ নিতে বাংলাদেশ দল এখন যুক্তরাষ্ট্রে। যদিও মূল পর্বের খেলার আগে স্বাগতিকদের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবেন টাইগাররা। তার আগে সিরিজ ও বিশ্বকাপের জন্য গেল মঙ্গলবার ১৫ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করে বিসিবি। আর এই দলকেই সেরা দল বলেছে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। 

গতকাল মিরপুরে শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে ৮ম জাতীয় ইয়োগাসানা জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে পুরস্কার বিতরণের পর বিশ্বকাপ দল নিয়ে বোর্ড সভাপতি বলেন, ‘আমাদের খেলোয়াড়দের নিয়ে কোনো ধরনের সন্দেহ নেই, যারা গেছেন তারাই সেরা। হতে পারে যে তাদের খুব কাছাকাছি আরেক জন আছেন কিন্তু তাদের থেকে ভালো খেলোয়াড় রেখে আমরা কম ভালো খেলোয়াড় নিয়ে দল সাজিয়েছি—এটা কেউ বলতে পারবে না। কারণ প্রত্যেকেই পারফর্মার, তবে হ্যাঁ বলতে পারেন অনেকের ফর্ম নেই। এটা একটা সমস্যা। যেমন এক বছর আগেও আমি কাউকে যদি জিগ্যেস করতাম যে, আমাদের সেরা ওপেনার কে, তামিম বাদে তাহলে সবাই লিটন দাসের কথাই বলত। কিন্তু এখন লিটন ফর্মে নাই। এটা হতেই পারে। এখন শুধু দোয়া করতে পারি যেন ফর্মে ফিরতে পারেন।’

এ সময় ব্যাটারদের নিয়ে তিনি বলেন, ‘শান্ত বলেন, তাওহিদ হৃদয় বলেন, অনিক বলেন—ওদের এখন পর্যন্ত যে কয়টা খেলা দেখেছি তাদের সবার ভালো করার সম্ভাবনা আছে আর যেখানে সাকিব এবং মাহমুদউল্লাহ আছে এরপর তো আর কথাই নেই। বাকি থাকে হলো আরেকটা ওপেনার। এখন এখানটায় আমাকে যদি জিগ্যেস করা হয় তানজিদ তামিম ওর খেলা আমার টি-টোয়েন্টিতে অসম্ভব ভালো লেগেছে। কারণ যে অ্যাপ্রোচ যে সাহসটা দরকার এটা ওর মধ্যে আছে। এখন এটি হারিয়ে যাবে কি না জানি না ওয়ানডে বিশ্বকাপে কিন্তু ও দারুণ খেলেছে। যত দিন যাচ্ছে সে কিন্তু তত ভালো করছে। ও যদি সুযোগ পায় তাহলে আগামী এক-দেড় বছরের মধ্যে ও আমাদের একজন ভালো ওপেনার হতে পারে।’ 

পাপন আরও বলেন ‘সৌম্য সরকারও আছে ওখানটায়। যে দিন সে খেলে দলের জন্য সে একাই অর্ধেক কাজটা সেরে ফেলতে পারে। কিন্তু ঐ যে বললাম। আমাদের পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা নেই। কাজেই ঐ দুই ওপেনিং পজিশন ছাড়া বাকি কোনো জায়গায় দ্বিধাদ্বন্দ্ব নেই। যদি পেসারের বিষয় আসে আমি মনে করি যে, যদি ফিট থাকে তাহলে তাসকিন, শরিফুল এবং মোস্তাফিজ—এই তিনজনই খেলবে। অন্য কারো ঢোকার কোনো সুযোগই নেই। এখন কেউ যদি ইনজুর্ড হয় তখন তারা কী করবে—এখনই বলা যাচ্ছে না। ইনজুর্ড হলে হাসান মাহমুদকে ডেকে নিয়ে আসতে হতে পারে। আর তা না হলে, সাকিবকেও (তানজিম) খেলাতে পারে। সেটা কী হবে জানি না। কিন্তু এখন আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী যে দল গেছে তারা ফিট থাকলে এটাই হবে আমাদের স্কোয়াডের পেসিং লাইনআপ।’

ইত্তেফাক/জেডএইচ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন