মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

কিরগিজস্তানের শিক্ষামন্ত্রীকে চিঠি

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান এফএসিডি ক্যাবের

আপডেট : ২০ মে ২০২৪, ১৯:১৩

কিরগিজস্তানের রাজধানী বিশকেকে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানের শিক্ষার্থীসহ আন্তর্জাতিক ছাত্রদের ওপর হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ফরেন অ্যাডমিশন অ্যান্ড ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট কনসালট্যান্টস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (এফএসিডি-ক্যাব)। 

একই সঙ্গে সংগঠনটি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা ‌দ্রুত নিশ্চিত করতে কিরগিজস্তানের শিক্ষা ও বিজ্ঞান মন্ত্রী কেন্দিরবায়েভা ডগদুরকুল শর্শেভনার কাঠেকে চিঠি পাঠিয়েছে। 

এফএসিডি ক্যাবের সভাপতি কাজী ফরিদুল হক হ্যাপী স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, কিরগিজস্তানে মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি হোস্টেলে বসবাসকারী ছাত্রদের লক্ষ্য করে গত ১৭ ও ১৮ মে যে সহিংসতা হয়েছিল, তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। এফএসিডি-ক্যাব বাংলাদেশে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রতিষ্ঠিত, বাংলাদেশে বিদেশি ভর্তি পরামর্শ এবং ক্যারিয়ার উন্নয়ন পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলোর জন্য একটি ছাতা সংস্থা হিসাবে কাজ করে। আমরা আরকেএসসি-জিআইয়ের অধীনে নিবন্ধিত, বাংলাদেশে ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বারস অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) ‘এ’ শ্রেণির সদস্য। এফএসিডি-ক্যাব কিরগিজস্তানে শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে এবং আপনার দেশের সম্মানিত প্রতিষ্ঠানে অসংখ্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে ভর্তির সুবিধা দিয়েছে। আমাদের প্রচেষ্টার ফলে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী তাদের উচ্চশিক্ষার জন্য কিরগিজস্তানকে বেছে নিচ্ছে, অদূর ভবিষ্যতে আরও অনেকে যেতে আগ্রহী। 

চিঠিতে আরও বলা হয়, সাম্প্রতিক সহিংসতায় বর্তমান এবং সম্ভাব্য ছাত্রদের পরিবারের মধ্যে ভয় এবং অনিশ্চয়তার বোধ তৈরি করেছে। ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অফ মেডিসিনের সামিয়া কবিরের মতো বাংলাদেশি ছাত্রদের দেওয়া রিপোর্টে আমরা বিশেষভাবে ব্যথিত, যারা তাদের নিরাপত্তার জন্য সরাসরি হুমকির সম্মুখীন হয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের অ্যাপার্টমেন্টে সীমাবদ্ধ থাকার কথা জানিয়েছে। তাদের বাসস্থানের বাইরে হিংসাত্মক জমায়েত দেখেছে। কেউ কেউ অস্থিরতার কারণে দীর্ঘ সময় ধরে খাবার ছাড়াই রয়েছে। আমরা কিরগিজস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি অনুসারে স্বীকার করি যে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তা সত্ত্বেও চলমান ভয় এবং আরও সহিংসতার সম্ভাবনা আন্তর্জাতিক ছাত্রদের মানসিক অবস্থা বিপন্ন করে তুলছে। আমরা আপনার অফিসকে এই ঘটনাগুলোর একটি যথাযথ তদন্ত পরিচালনা করার জন্য এবং সব আন্তর্জাতিক ছাত্রদের সুরক্ষার জন্য নিষ্পত্তিমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। আমরা বিশ্বাস করি যে, বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য একটি নিরাপদ পরিবেশ প্রদান করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ তাদের উপস্থিতি কিরগিজস্তানের শিক্ষাগত এবং সাংস্কৃতিক ল্যান্ডস্কেপকে সমৃদ্ধ করে। তাদের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া উচিত। আমরা বিশ্বাস করি যে, আপনার হস্তক্ষেপ এই ধরনের দুঃখজনক ঘটনাগুলোর পুনরাবৃত্তি প্রতিরোধ করবে। 

রোববার পাঠানো চিঠিতে কাজী ফরিদুল হক আরও বলেন, প্রতিটি মেধাবী শিক্ষার্থী তাদের পরিবার দেশ ও বিশ্বের সম্পদ। তাই তাদের উচ্চ শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ প্রদানের দায়িত্ব আমাদের সবার। আমরা বিশ্বাস করি যে, আন্তর্জাতিক ছাত্ররা অমূল্য বৈশ্বিক সম্পদ, যার অসাধারণ প্রতিভা বিশ্বব্যাপী অগ্রগতি এবং উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। তাদের যত্ন ও সুরক্ষা নিশ্চিত করা আমাদের সম্মিলিত দায়িত্ব। আমরা উচ্চ শিক্ষার জন্য একটি প্রধান গন্তব্য হিসেবে কিরগিজস্তানের প্রচার অব্যাহত রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এটা অপরিহার্য যে, আমরা ছাত্র এবং তাদের পরিবারকে তাদের নিরাপত্তার আশ্বাস দিতে পারি। 

কিরগিজস্তানে মিসরের কয়েকজন মেডিকেল শিক্ষার্থীর সঙ্গে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির সংঘর্ষের জেরে বিদেশিদের ওপর হামলা শুরু হয়। এতে কিরগিজস্তানের রাজধানী বিশকেকে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরাও হামলার শিকার হয়েছেন বলে জানা গেছে। সেখানে নিরাপত্তাহীনতা আর অনিশ্চয়তায় দিন কাটছে বাংলাদেশের অন্তত ৮০০ মেডিকেল শিক্ষার্থী। মধ্য এশিয়ার দেশটিতে বাংলাদেশের কোনো দূতাবাস নেই। তবে উজবেকিস্তানে থাকা বাংলাদেশের দূতাবাস কিরগিজস্তানের দায়িত্ব পালন করে থাকে। 

দেশটিতে থাকা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পাঠানো বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা গেছে, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা ১৫-২০ জনের গ্রুপ করে একটি রুমের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছেন। সেখানে এক ব্যক্তিকে নির্দয়ভাবে পেটানো হচ্ছে। একজন রাস্তায় পড়ে রয়েছেন। তবে কোন দেশের নাগরিক, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। স্থানীয় লোকজন একসঙ্গে ২০-২৫টি গাড়ি করে শহরে টহল দিয়ে বেড়াচ্ছেন। কিরগিজস্তানে মূলত কতজন বাংলাদেশি রয়েছেন, তার কোনো পরিসংখ্যান নেই বাংলাদেশ দূতাবাসের কাছে। দূতাবাসের ধারণা, ৬০০ থেকে ৮০০ শিক্ষার্থী আর হাজারখানেক শ্রমিক কিরগিজস্তানে রয়েছেন।

ইত্তেফাক/ডিডি