মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

সাবেক সেনাপ্রধানকে নিষেধাজ্ঞা: কী আছে ‘৭০৩১ (সি)’ ধারায়

আপডেট : ২২ মে ২০২৪, ১১:০৬

সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদকে মার্কিন ডিপার্টমেন্ট অব স্টেটের ফরেন অপারেশন অ্যান্ড রিলেটেড প্রোগ্রামস অ্যাপ্রোপ্রিয়েশনস অ্যাক্টের ৭০৩১ (সি) ধারার আওতায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এই পদক্ষেপের ফলে আজিজ আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের জন্য অযোগ্য হিসেবে বিবেচিত হবেন।

'৭০৩১ (সি)' ধারায় মূলত 'উল্লেখযোগ্য দুর্নীতি' বা 'মানবাধিকারের গুরুতর লঙ্ঘন'-এর সঙ্গে জড়িত বিদেশি কর্মকর্তাদের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা কর্তৃপক্ষ। বিদেশি সরকারি কর্মকর্তা বা তাদের মনোনীত ব্যক্তি এবং তাদের নিকটতম পরিবারের সদস্যদের এই বিধিনিষেধের আওতায় আনা হতে পারে। তারা ভিসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আবেদন না করলেও এই আইনের আওতায় থাকবেন।

২০২৩ সালের ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬০টি দেশের ৪৯৬ জনকে এই ধারার আওতায় প্রকাশ্যে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৩১২ জনকে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে এবং ১৭৭ জনকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য আইনের আওতায় আনা হয়। এছাড়া উভয় কাজেই জড়িত অনেকেই এই তালিকায় থাকলেও সেটির সংখ্যা প্রকাশ করেনি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিস্তারিত দেখে নেওয়া যাক এই আইনের মানদণ্ড:

মানবাধিকার লঙ্ঘন

এই মানদণ্ডে কোনো বিদেশি সরকারের বর্তমান বা সাবেক কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যেতে পারে, যারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে 'মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের' সঙ্গে জড়িত। পাশাপাশি তাদের নিকটতম পরিবারের লোক জড়িত থাকলেও এই মানদণ্ডের আওতায় আসতে পারে।

এই মানদণ্ডের আওতায় আছে বিচারবহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন, নিষ্ঠুর, অমানবিক, অবমাননাকর আচরণ বা শাস্তি প্রদান'; জোরপূর্বক গুম এবং জীবন, স্বাধীনতার অধিকারের অন্যান্য সুস্পষ্ট অস্বীকার, ব্যক্তির নিরাপত্তা।

দুর্নীতি

নিষেধাজ্ঞার এই মানদণ্ডের আওতায় বলা আছে, বিদেশি সরকারের কর্মকর্তাদের ওপর এটি আরোপ করা যেতে পারে, যারা সরাসরি বা পরোক্ষভাবে 'উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে' জড়িত, পাশাপাশি তাদের নিকটতম পরিবারের সদস্যরাও। বিশেষ করে ঘুষ গ্রহণ এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদের অপব্যবহারকে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়।

দায়বদ্ধতার পদ্ধতি:

কোনো সরকারি কর্মকর্তা কেবল তখনই এই আইনের আওতায় আসবেন, যখন তারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত থাকেন মানবাধিকার লঙ্ঘন বা দুর্নীতিতে।

আইনি প্রক্রিয়া ও বাস্তবায়ন: এই নিষেধাজ্ঞাগুলো কেবল ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করে। যেমন মনোনীত ব্যক্তিরা সাধারণত ভিসা সংগ্রহ বা আবেদন করতে পারে না। অথবা ভিসা থাকলেও তিনি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে অযোগ্য হবেন। ভিসা বিধিনিষেধের আওতায় ব্যক্তি মার্কিনকেন্দ্রিক নানা জটিলতায় পড়লেও সম্পদ জব্দ বা অন্যান্য আর্থিক জরিমানা এর অন্তর্ভুক্ত না।

বাস্তবায়নকারী সংস্থা: স্টেট ডিপার্টমেন্ট এই ভিসা বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন করে। আইন অনুসারে, এই ব্যবস্থা বিবেচনামূলক নয়। তবে সেক্রেটারি অফ স্টেট চাইলে বিধিনিষেধ মওকুফ করতে পারেন জাতীয় স্বার্থে বা নিষেধাজ্ঞার কারণে পরিস্থিতি 'যথেষ্ট পরিবর্তিত' হলে এটি শিথিল হতে পারে।

এক ঘোষণায় ডিপার্টমেন্ট অব স্টেট বলছে, দুর্নীতিতে জড়িত থাকার কারণে সাবেক জেনারেল আজিজ আহমেদকে নিয়ে প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েছে পররাষ্ট্র দপ্তর। তার কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো এবং সরকারি প্রতিষ্ঠান ও প্রক্রিয়ার প্রতি জনগণের আস্থা ক্ষুণ্ণ করতে ভূমিকা রেখেছে। আজিজ আহমেদ তার ভাইকে বাংলাদেশে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য জবাবদিহিতা এড়াতে সহায়তার সময় জনসাধারণের প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করে উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিতে জড়িত ছিলেন। আজিজ তার ভাইয়ের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছিলেন, যাতে সামরিক চুক্তির 'অনুপযুক্ত পুরষ্কার' নিশ্চিত করা যায়। তার ব্যক্তিগত সুবিধার জন্য সরকারী নিয়োগের বিনিময়ে ঘুষ গ্রহণ করা হয়।

ঘোষণায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এই ঘোষণা বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও আইনের শাসনকে শক্তিশালী করার যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকারের কথা পুনর্ব্যক্ত করে। যুক্তরাষ্ট্র সরকারি সেবাগুলোকে আরও স্বচ্ছ ও সাশ্রয়ী করা, ব্যবসা ও নিয়ন্ত্রক পরিবেশের উন্নতি এবং মানি লন্ডারিং ও অন্যান্য আর্থিক অপরাধের তদন্ত ও বিচারের সক্ষমতা তৈরিতে সহায়তার মাধ্যমে বাংলাদেশে দুর্নীতিবিরোধী প্রচেষ্টায় সহায়তা দিয়ে থাকে।

ইত্তেফাক/এসকে