মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

আমি রূপকথার গল্পের খারাপ সৎ মা নই: শাবানা আজমি

আপডেট : ২৮ মে ২০২৪, ১৫:৪৯

বলিউডের অন্যতম তারকা দম্পতি জাভেদ আখতার-শাবানা আজমি। সুখী দাম্পত্য জীবনের ৪০ বছর পার করলেও মাতৃত্বের সুখ পাননি শাবানা। শারীরিক জটিলতার কারণে সন্তান ধারণ করতে পারেননি গুণী এই অভিনেত্রী। তবে শাবানার খালি কোল ভরেছেন জোয়া আখতার ও ফারহান আখতার। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে স্বামীর প্রথমপক্ষের দুই সন্তানের সঙ্গে মধুর সস্পর্কের কথা জানালেন শাবানা আজমি। 

পিংক ভিলার প্রতিবেদন অনুযায়ী, জুমের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে, শাবানা আজমি ফারহান আখতার এবং জোয়া আখতারের সাথে তার সুন্দর সম্পর্কের কথা খুলে বলেছেন। 

শাবানা জানান জাভেদ আখতারের প্রথমপক্ষের দুই সন্তানের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক তার। আর এর পিছনে জাভেদের প্রাক্তন স্ত্রী হানি ইরানির ভূমিকার কথা অকপটে মেনে নিলেন শাবানা আজমি। তিনি জানান হানির ‘উদারতা’র জেরেই সৎ মায়ের সঙ্গে এভাবে মিশে যেতে পেরেছেন ফারহান-জোয়া। 

শাবানা বলেন, ‘এটা হয়েছে হানির উদারতার কারণে! এটা সম্ভব হতো না যদি হানি এতটা উদার না হতো। ওরা (জোয়া আর ফারহান) যখন ছোট ছিল, তখন থেকেই ও এটা করেছে। তারা তাদের মায়ের কাছ থেকে শিখেছিল যে আমি তেমন “সৎ মা” নই যেমনটা তারা রূপকথার গল্পে পড়েছিল, এর ফলে সম্পর্ক সহজ হয়ে গেল।’

শাবানা আরও যোগ করেছেন, ‘আসলে আমি তাদের উপর নিজেকে চাপ দিইনি এবং খুব বেশি চেষ্টাও করিনি। আমি শুধু সময় দিয়েছি। আমি পানিকে তার নিজস্ব গতিতে প্রবাহিত হতে দিয়েছি। এটা সত্যিই খুব সুন্দর একটি সম্পর্ক। এর জন্য আমি হানিকে অনেক কৃতিত্ব দেব।

পাশাপাশি নিজেকে, জাভেদকে এবং সন্তানদেরও। আজ আপনারা যখন আমাদের দেখেন, আমরা একটা পরিবারের মতোই হয়ে যাই। হানি পরিবারের সদস্যের মতো’।

পারিবারিক গেট-টুগেদারে পাশাপাশি দেখা যায় জাভেদের প্রাক্তন ও বর্তমান স্ত্রীকে। হানি ইরানি নিজেও বলিউডের নামজাদা ব্যক্তিত্ব। একটা সময় শিশুশিল্পী হিসাবে অভিনয় করেছেন, পরবর্তীতে কাহিনিকার, প্রযোজক হিসাবেও কাজ করেছেন। 

 ১৯৮৪ সালের ৯ই ডিসেম্বর ভালোবেসে গাঁটছড়া বাঁধেন জাভেদ-শাবানা। শোনা যায়, আলাদা থাকলেও তখনও হানি ইরানির সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়নি জাভেদের। দুই সন্তান (ফারহান-জোয়া), স্ত্রী হানি ইরানির সঙ্গে ১২ বছরের দাম্পত্য ভুলে-শাবানাকে নিয়ে নতুন সংসার পেতেছিলেন চিত্রনাট্যকার, কাহিনীকার, কবি, গীতিকার জাভেদ আখতার।

 

ইত্তেফাক/পিএস