বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ভূঞাপুরে সাব-রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রী-মেয়ের নামের সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ০২:০০

টাঙ্গাইলে অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের দায়ের নূরুল আমিন তালুকদার নামের এক সাব-রেজিস্ট্রার ও তার স্ত্রী-সন্তানদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

দুর্নীতি দমন কমিশনের টাঙ্গাইল জেলার সহকারী পরিচালক মো. নুর আলম সাব-রেজিস্ট্রার নুরুল ইসলাম আমিন তালুকদারের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মিস কেস করার পর গত ৫ জুন জেলার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মো. নাজিমুদ্দৌলা সাব-রেজিস্ট্রার নুরুল আমিন তালুকদার, তার স্ত্রী ও মেয়ের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ দেন। এছাড়াও ঐ সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলাও দায়ের করে দুদক কর্মকর্তা। এর আগে গত ২০২৩ সালের জুলাই ও একই বছরের সেপ্টেম্বরে দুটি মামলা দায়ের করা হয় দুদক থেকে।

সাব-রেজিস্ট্রার নুরুল আমিন তালুকদার ঘাটাইল উপজেলার লোকেরপাড়া গ্রামের মৃত শামস উদ্দিন তালুকদারের ছেলে। বর্তমানে তিনি গাজীপুরের টঙ্গী, কালিয়াকৈর উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তবে তার বর্তমান ঠিকানা জেলার ভূঞাপুর পৌরসভার ঘাটান্দি গ্রামে। তিনি ভূঞাপুর-টাঙ্গাইল সড়কের ভূঞাপুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় বহুতল বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের কাজ করছেন।

দুদকের তথ্য মতে, নুরুল আমিন তালুকদারের নামে কৃষি ব্যাংক ভূঞাপুর শাখায় দুটি, সোনালী ব্যাংকে একটি, ঢাকা ব্যাংক লিমিডেটের ময়মনসিংহ শাখায় দুটি শাখা মিলিয়ে তার অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ ২৬ হাজার ৭৮৭ টাকা, তার স্ত্রী নুরুন্নাহারের নামে ৩ কোটি ৯৭ লাখ ৭০ হাজার ৯৪০ টাকা স্থাবর সম্পদ এবং ৪ কোটি ৩৭ লাখ ৩ হাজার ৩৬৮ টাকা অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। এছাড়াও তারা পারিবারিকভাবে ব্যয় করেছেন ৮৯ লাখ ৫৮ হাজার ২৮ টাকা। তার মেয়ে কলেজ শিক্ষার্থী জিনাত তালুকদারের নামে স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ২ কোটি ৩০ লাখ ৮২ হাজার ১৩৩ টাকা। এছাড়াও মেয়ের নামে ২৯ লাখ টাকার মূল্যের টয়োটা ব্যান্ডের একটি গাড়ি রয়েছে। এছাড়াও নুরুল আমিন তালুকদারের স্ত্রী নুরুন্নাহার খানমের ৭৫ শতাংশ সম্পত্তি রয়েছে, যার মূল্য ৩ কোটি ৫৭ লাখ ৭০ হাজার ৯৪০ টাকা এবং কন্যা জিনাত তালুকদারের নামে দুটি ফ্ল্যাট রয়েছে। বর্তমানে ভূঞাপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আঞ্চলিক সড়কের সঙ্গে ৫তলা বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মাণের কাজ চলছে।

ইত্তেফাক/এমএএম