মুক্তিযুদ্ধের সূর্যসন্তানদের জন্য স্বাধীনতার ফল ভোগ করছি: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধের সূর্যসন্তানদের জন্য স্বাধীনতার ফল ভোগ করছি: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী
ডিএসইসি মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা-২০১৯ অনুষ্ঠানে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী। ছবি: সংগৃহীত

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেছেন, আজকে আমরা যে স্বাধীনতার ফল ভোগ করছি তা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য। বঙ্গবন্ধু যদি স্বাধীনতার ডাক না দিতেন, মুক্তিযোদ্ধারা যদি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে না পড়তেন তাহলে আমরা এই স্বাধীনতা ভোগ করতে পারতাম না।

আজ বুধবার (১১ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে ডিএসইসি মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা-২০১৯ অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

পরে তিনি ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের (ডিএসইসি) সিনিয়র সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের, মোহাম্মদ আবদুল মোতালেব, সাইফুল ইসলাম, তরুণ তপন চক্রবর্তী, মীর মোস্তাফিজ আহমেদ, খোন্দকার আতাউল হককে মুক্তিযুদ্ধের সম্মাননা স্মারক তুলে দেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানিত করার জন্য আমি গর্বিত। আমরা ভাগ্যবান। প্রতিবেশি রাষ্টের সহযোগিতায় মাত্র ৯ মাসে স্বাধীনতা করতে পেরেছি দেশকে।

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্য আমরা আজ বিশ্বর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উন্নত দেশে পরিনত করতে কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, আসেন সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করি। তাহলে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে না। নতুন প্রজন্মকে আমরা সঠিকভাবে শিক্ষিত করাতে পারছি না। শুধু শিক্ষায় শিক্ষিত হলে হবে না, তাদের সুশিক্ষিত হতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বর্তমানে উন্নয়ন হচ্ছে তাতে আমাদের কারিগরী শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। নতুন প্রজন্ম এখনো কারিগরী শিক্ষায় আগ্রহী নয়। তিনি বলেন, বিদেশি শিক্ষার্থীরা আমাদের দেশে এসে কারিগরী শিক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সমকালের উপসম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ খান, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, সিনিয়র সহসভাপতি ওমর ফারুক, মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল ইসলাম ভূইয়া। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধারা তাদের যুদ্ধকালীন স্মৃতিচারণ করেন।

সংগঠনের সভাপতি জাকির হোসেন ইমন সভাপতিত্ব এবং সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পদক মুক্তাদির অনিক।উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি বশির হোসেন মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার সাদাত সবুজ, কার্যনির্বাহী সদস্য মামুনুর রশিদ মামুন ও নাসিমা আক্তার সোমা।

আরও পড়ুন: কুমিল্লায় নিহতদের পরিবারকে ৪ কোটি টাকা করে দেওয়া প্রশ্নে রুল

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি কায়কোবাদ মিলন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান মিয়া, আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাসান হৃদয়, আনজুমান আরা শিল্পী, সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম. জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।

ইত্তেফাক/কেকে

Nogod
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও