ঢাকা রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬
৩০ °সে


‘প্রাথমিকে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে’

‘প্রাথমিকে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে’
ছবি : সংগৃহীত

শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করতে পর্যায়ক্রমে সারাদেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে। আজ সোমবার এ সংক্রান্ত ‘জাতীয় স্কুল মিল নীতি ২০১৯’ এর অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। নিজ কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সারা দেশে বর্তমানে ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন শুরু হবে। ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয় এই কর্মসূচির আওতায় আসবে।

নীতিমালার বিষয়ে সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ছে এমন ৩ থেকে ১২ বছরের শিশুদের জন্য এই নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। তাদের প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় শক্তি চাহিদার ক্যালরির ন্যূনতম ৩০ শতাংশ স্কুল মিল থেকে আসা নিশ্চিত করতে হবে।’

তিনি জানান, বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে জাতীয় স্কুল মিল কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষার সহকারী উপপরিচালক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষেত্রে পার্বত্য জেলা পরিষদ এ কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত থাকবে।

আরও পড়ুন : জবানবন্দির আগেই মিন্নির দোষস্বীকার নিয়ে এসপির বক্তব্যের তথ্য চায় হাইকোর্ট

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বর্তমানে তিন উপজেলার স্কুলে রান্না করা খাবার এবং ১০৪টি উপজেলায় বিস্কুট খাওয়ানো হচ্ছে। ওই ১০৪টি উপজেলার মধ্যে ৯৩টিতে সরকার ও ১১টিতে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির অর্থায়নে এ কর্মসূচি চলছে। রান্না করা খাবার দিলে উপস্থিতির হার ১১ শতাংশ ও বিস্কুট দিলে উপস্থিতি ৬ শতাংশ বাড়ে। ওইসব এলাকায় শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার ৬ দশমিক ৬ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।

গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘একই বিস্কুট বাচ্চারা নিয়মিত খেতে চায় না। খাবারের বৈচিত্র বিবেচনায় আমরা বিস্কুট, কলা ও ডিম কমন রাখার চেষ্টা করছি। আর বৃহস্পতিবার অর্ধদিবসে শুধু বিস্কুট রাখব।’

এই কর্মসূচির আওতায় প্রতি শিক্ষার্থীর জন্য কি পরিমাণ খরচ হবে তারও একটা ধারণা দেন গিয়াস উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘শুধু বিস্কুট দিলে প্রতিদিন প্রতি শিক্ষার্থীর জন্য ৯ টাকা হারে বছরে ২ হাজার ৮৩৫ কোটি টাকা লাগবে। পাঁচ দিন রান্না করা খাবার ও এক দিন বিস্কুট দিলে খরচ হবে ৫ হাজার ৫৬০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। বিস্কুট এবং ডিম, কলা ও রুটি দিলে ২৫ টাকা হারে খরচ হবে ৭ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকা হবে।

ইত্তেফাক/কেআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন