ইসিতে আওয়ামী লীগ

চট্টগ্রামে খুন-সন্ত্রাস ও কেন্দ্রে হামলা করেছে বিএনপি

চট্টগ্রামে খুন-সন্ত্রাস ও কেন্দ্রে হামলা করেছে বিএনপি
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে পাহাড়তলী এলাকায় সংঘর্ষ হয়। ছবি: ফোকাস বাংলা

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সহিংসতায় একজনের মৃত্যু, ভোটকেন্দ্রে হামলা ও সহিংসতার জন্য বিএনপিকে দায়ী করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

ভোটগ্রহণ চলাকালে বুধবার বিকাল ৩টায় দলটির একটি প্রতিনিধি নির্বাচন কমিশনের কাছে এ অভিযোগ করেন। চিঠিতে বিএনপির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেও অনুরোধ জানানো হয়। এর আগে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে সহিংসতার অভিযোগ করে।

আরও পড়ুন: চসিক নির্বাচনকে ঘিরে সংঘর্ষ, নিহত ২

পরে দলটির প্রতিনিধি দলের প্রধান আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার বলেন, বিএনপি সন্ত্রাসীরা চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকের ছেলে ইমনকে ছুরিকাঘাত করেছে। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ইভিএম ভেঙ্গে ফেলেছে ও কেন্দ্র দখল করেছে। আমবাগান এলাকায় বিএনপি সন্ত্রাসীরা হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করেছে এবং আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের উপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে। তিনি বলেন, পাঁচলাইশ এলাকায় আমাদের নির্বাচনী এজেন্ট বের করে দেওয়া হয়েছে। সন্ত্রাস-সহিংসতা না থাকলে ভোটার উপস্থিতি আরও বাড়ত।

এবিএম রিয়াজুল কবীর কাওছার বলেন, চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের সকালবেলা বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে প্যানিক সৃষ্টি করা হয়েছে, যাতে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে আসতে না পারে। প্রায় ৪০টি ওয়ার্ডে তারা (বিএনপি) সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। নিষিদ্ধ সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে ভোটাররা যেন কেন্দ্রে না আসতে পারে সেই কার্যক্রম চালিয়েছে।

আরও পড়ুন: চসিক নির্বাচন: ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

তিনি বলেন, সন্ত্রাস-সহিংসতা না থাকলে ভোটার উপস্থিতি বাড়ত বলে আমরা মনে করি। পৌর নির্বাচনে ৬০ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। করোনাকালেও আরও উপস্থিতি বাড়বে বলে আশা ছিলো। আমরা তো অংশগ্রহণমূলক এ নির্বাচনের চেষ্টা করেছি। তারা চেষ্টা করেছে ভোটাররা যেন না আসে। এ সময় আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x