ঢাকা বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬
৩২ °সে


বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন পণ্যের দাম বাড়বে না, ঘটেছে উল্টো: রিজভী

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন পণ্যের দাম বাড়বে না, ঘটেছে উল্টো: রিজভী
বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ছবি: সংগৃহীত

সরকারের মন্ত্রীরা যা বলেন সঙ্গে সঙ্গে তার উল্টো ঘটে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ক’দিন আগে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ঘটা করে সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা করেছিলেন-রমজানকে সামনে রেখে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়বে না। কিন্তু তার পরদিনই হু হু করে প্রায় সব পণ্যের দাম বেড়েছে। গতকাল বুধবার নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভীর দাবি, গত বৃহস্পতিবারেও পেঁয়াজ প্রতি কেজি ২৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এখন তা ২৬ থেকে ২৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে গত সপ্তাহে রসুন বিক্রি হয়ছিল ৮০ টাকায়। এখন তা বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়। এভাবে আলুর কেজিতে ৪, প্রতি কেজি চিনিতে ৪, প্রতি লিটার সয়াবিন তেলে ৮ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।’

ছোলা, ডাল, আদা, ময়দা, কাঁচামরিচসহ সবরকম নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘এসব পণ্য কিনতে গিয়ে মানুষের জীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে। অল্প আয়ের মানুষরা আঁতকে উঠছে রমজানের আগে হু হু করে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের এই মূল্য বৃদ্ধিতে। পবিত্র রমজানের আগে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ সরকারকে ধিক্কার জানাই।

রিজভী বলেন, দেশে নারী-শিশু নির্যাতনসহ অপরাধ ও নিয়ম বহির্ভূত আচরণ এক ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। এতে ভেঙে পড়েছে সমাজের বন্ধন। খবরের কাগজ খুললেই নারী ও শিশু নির্যাতন, লাশ আর মৃত্যুর হাতছানি। লক্ষ্মীপুরের দগ্ধ তরুণীর মৃত্যু, চট্টগ্রামের লোহাগড়ায় হাত-পা বেঁধে স্কুল ছাত্রীকে নির্যাতন, নোয়াখালীর সেনবাগে স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে নির্যাতন, ঝালকাঠিতে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধারের সংবাদে গতকাল গণমাধ্যম পরিপূর্ণ। বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বিপজ্জনক অবস্থায় বসবাস করছে কিশোরী-তরুণী-ছাত্রীরা।

রিজভী বলেন, অবৈধভাবে যারা ক্ষমতায় থাকে তারা কখনোই জনস্বার্থ দেখে না, জনকল্যাণ করতে পারে না। সারা ঢাকা শহরে ওয়াসার দুষিত পানির সরবরাহে জনজীবন এখন ভয়ঙ্কর রকম সংকটাপন্ন হয়ে পড়েছে। ওয়াসা কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে নির্বিকার। বাড়ীতে বাড়ীতে টায়ফয়েড, ডায়রিয়া, জ্বর মহামারী আকার ধারণ করেছে। এখন মরার ওপর খাঁড়ার ঘা’র মতো গরীব মানুষদের অবস্থা। একদিকে আনাজ-পাতির অগ্নিমূল্য অন্যদিকে দুষিত পানি পান জনজীবনকে করে তুলেছে দূর্বিষহ। ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিজে ওয়াসার পানি পান করেন না, অথচ তিনি বলছেন-ওয়াসার পানি ১০০ ভাগ বিশুদ্ধ। অবৈধ সরকার নিজে টিকে থাকার জন্য সারা জাতিকেই অসুস্থ বানাতে উঠে পড়ে লেগেছে। আমরা সরকারি প্রতিষ্ঠান ওয়াসার মানববিধ্বংসী নীতির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার আহ্বান জানাচ্ছি।

ইত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন