ঢাকা রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬
৩০ °সে


কোচের অপেক্ষায় ক্রিকেটাররা

কোচের অপেক্ষায় ক্রিকেটাররা
ইমরুল কায়েস, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মুশফিকুর রহিম।

বীপ টেস্ট নামে কঠিন একটা পরীক্ষা দিতে হয় আজকাল ক্যাম্পের প্রথম দিনে। সবচেয়ে ফিট খেলোয়াড়টিও এই টেস্টের পর আর কথা বলার মতো শক্তি খুঁজে পান না। গতকাল সেই পরীক্ষা হলো বাংলাদেশ দলের কন্ডিশনিং ক্যাম্পে।

পরীক্ষা শেষে সব ক্রিকেটার যখন ড্রেসিংরুমে একটু শান্ত হওয়ার চেষ্টা করছেন, তখন দেখা গেল সেন্টার উইকেটে আবার নেট টানানো হচ্ছে। সবাই একটু অবাক—এই ক্লান্তির পর আবার কে ব্যাটিং করবেন! তবে নামটা অনুমান করতে কষ্ট হলো না। সবাই এক বাক্যে বললেন—নিশ্চয়ই মুশফিক!

সেই নেটে ব্যাটিং করতে যাওয়ার আগে ‘তিরিশ সেকেন্ড’ শর্ত দিয়ে কথা বললেন। তবে প্রসঙ্গ কোচ শুনে শর্ত নিজেই ভাঙলেন। বললেন, ‘নতুন কোচের জন্য তো আমরা সবাই অপেক্ষা করছি। আশা করি ওনার সঙ্গে সময়টা রোমাঞ্চকর হবে।’

শুধু মুশফিক নন, জাতীয় দলের সব খেলোয়াড়ই এখন অধীর অপেক্ষা করছেন নতুন কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর জন্য। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলছিলেন, তাদের এই অপেক্ষা নতুন কিছু শেখার জন্য। এই অলরাউন্ডার নতুন কোচ সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলছিলেন, ‘ওনার যে অভিজ্ঞতা এবং প্রোফাইল, তিনি অনেক অভিজ্ঞ কোচ। দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ ছিলেন অনেক দিন থেকে। অবশ্যই ওনার পেশাগত দিক থেকে এবং সাফল্যের দিক থেকে উনি বেশ সমৃদ্ধ। আশা করি ওনার কাছ থেকে আমরা অনেক কিছু শিখতে পারব।’

কোচের পাইপলাইন নিয়ে কাজ করার ইচ্ছাকে স্বাগত জানিয়ে ওপেনার ইমরুল কায়েস বলছিলেন, ‘শুনেছি খুব ভালো কোচ। দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের দায়িত্বে ছিলেন। উনি তো বয়সভিত্তিক দল নিয়ে অনেক কাজ করেছেন। পত্রিকায় দেখেছি, এখানে পাইপলাইন নিয়ে কাজ করতে চান। এটা আমাদের ক্রিকেটের জন্য ভালো হবে।’

পেসার তাসকিনের জন্য এটা কোচের কাছ থেকে ভালো কিছু আদায় করে নেওয়ার একটা সুযোগ। তিনি বলছিলেন, ‘কোনো সন্দেহ নেই যে, এটা আমাদের জন্য ভালো হয়েছে। কারণ সে দক্ষিণ আফ্রিকার মতো বড়ো দলের কোচ ছিল অনেক দিন ধরে। আশাকরি আমরা যারা তরুণ আছি তাঁরা অনেক কিছু নেওয়ার চেষ্টা করব। তো আমিও অনেক এক্সসাইটেড। কারণ সামনে অনেক ক্যাম্প আছে। আল্লাহ যদি সুযোগ দেয় তার সঙ্গে কাজ করার, তো আমি চেষ্টা করব যতটুকু সম্ভব নতুন নতুন জিনিস আদায় করে নেওয়ার।’

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মুশফিক বলছিলেন, তাদের অনেক প্রত্যাশা এই নতুন কোচের কাছে, ‘নতুন কোচের কাছে তো অবশ্যই অনেক প্রত্যাশা থাকবে। তিনি যেন আমাদের উন্নতিটা ধরে রাখতে পারেন। সেই সঙ্গে আমার বিশেষ চাওয়া টেস্টে আমাদের উন্নতিতে উনি যেন ভূমিকা রাখতে পারেন। বিশেষ করে দেশের বাইরে খেলায়। উনি দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ। ফলে আমাদের অপরিচিত কন্ডিশনে কী করলে ভালো হবে, সেটা নিশ্চয়ই উনি ভালো চেনেন।’

তবে মুশফিকই বললেন আসল কথাটা—কোচ যাই করুন, আসল কাজটা খেলোয়াড়দেরই করতে হবে, ‘কোচ তো আসলে কেউ খারাপ নন। সবাই চান, দল যেন ভালো করে। আসল কাজটা তো খেলোয়াড়দের করতে হবে। কোচ যা বললেন বা যা চাচ্ছেন, সেটা মাঠে খেলোয়াড়দেরই করে দেখাতে হবে। একজন কোচ বা ক্যাপ্টেন তখনই ভালো হবেন, যখন তার দল ভালো করতে পারে।’

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন