ঢাকা মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬
২৮ °সে

জমি নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৫

জমি নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১৫
সংঘর্ষে আহতরা। ছবি: ইত্তেফাক

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সরল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের পূর্ব মিনজিরীতলা এলাকায় জায়গা জমি বিরোধকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। রবিবার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ৯ টার দিকে সংঘর্ষের এ ঘটনায় মহিলাসহ আহত হয়েছে অন্তত ১৫ জন। আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ৪ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে বাঁশখালী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

সংঘর্ষে আহতরা হলেন- রোকেয়া বেগম (৫৫), পারভিন আক্তার (২৯), জাকের হোসেন (২৮), আবদুর রহিম (৫৫), মাহামুদুল ইসলাম (৩২), বাবুল (৪৪), বদি আলম (৪২), হেলাল উদ্দিন (২৪), ছকুনতাজ বেগম (৪২), ফাতেমা বেগম (৩৭), নুরুল ইসলাম (৬৫), মৌলভী ইদ্রিস (৫২), সৈয়দ নুর (৪৫), আবুল হোসেন (২২)। আহতরা বাঁশখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা গ্রহণ করলেও আশংকাজনক অবস্থায় ৪ জনকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সরল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পূর্ব মিনজিরীতলা গ্রামের আইম্মার পাড়া এলাকার নজির আহমদের পুত্র নন্না মিয়া ও মৃত ফকির মোহাম্মদের পুত্র বশরত আলীর সাথে একই ইউপির কাহারঘোনা গ্রামের আমির হামজার পুত্র মো. ভেট্টা ও মৌলভী আনোয়ারের পুত্র মৌলভী ইদ্রিসের ৭ গন্ডা বা ১৪ শতক জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। সেই বিরোধ মীমাংসার লক্ষ্যে বাঁশখালী থানায় করা অভিযোগ বিচারাধীন রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, রবিবার সকালে বিরোধীয় জায়গার উপরে মৌলভী ইদ্রিস ও মো. ভেট্টা গং জোর পূর্বক ঘর নির্মাণের কাজ চালাচ্ছিল। এ সময় স্থানীয় ভাবে বিরোধ মীমাংসার প্রস্তাব নিয়ে ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুর রহিম ঘটনাস্থলে যায়। এসময় প্রতিপক্ষ মৌলভী ইদ্রিস ও মো. ভেট্টা গং তাদের উপেক্ষা করে প্রতিপক্ষদের উপরে এলোপাথাড়ি হামলা চালায়।

আরও পড়ুন: ধান বিক্রি করতে না পারায় বিপাকে কৃষক বাঁশখালী হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ডা. শাহিদ চৌধুরী ও ডা. আদনিন মওরিন বলেন, মিনজিরীতলায় সংঘর্ষের ঘটনায় আহতরা বাঁশখালী হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। আশংকাজনক অবস্থায় ৪ জনকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, সরল ইউনিয়নের কাহারঘোনায় এলাকায় মারামারির ঘটনা শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইত্তেফাক/আরআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন