ঢাকা মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬
৩৮ °সে

কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ সহায়তা দিল ভারত

কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ সহায়তা দিল ভারত
কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছেন ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ।ছবি: ইত্তেফাক

মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জন্য পঞ্চম দফায় ত্রাণ সহায়তা দিল বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত। বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প এক্সটেনশন-৪ এ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ এ ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। এ সময় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

পঞ্চম দফার ত্রাণ হিসেবে তুলে দেওয়া হয় পায়ে চালিত এক হাজার সেলাই মেশিন, ৩২টি সাধারণ তাঁবু, ১০০টি ফ্যামিলি তাঁবু ও জীবনরক্ষাকারী সরঞ্জাম। ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি­সফরের সময় দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী এ সহায়তা দিল ভারত। বাংলাদেশের ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় এ কার্যক্রমে সব ধরনের সহযোগিতা করে।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে একটি ফ্লাইটে কক্সবাজার পৌঁছান ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ।

এসময় তার সঙ্গে ছিলেন-চট্টগ্রাম অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট হাইকমিশনার অনিন্দ ব্যানার্জি, হাইকমিশনের দ্বিতীয় সচিব দীপ্তি আলাংঘাট ও অ্যাটাশে (প্রেস) দেবব্রত পাল প্রমুখ।

মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য এর আগে ২০১৭ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর প্রথম দফায় অপারেশন ইনসানিয়াতের আওতায় ৫৩ টন খাদ্য সামগ্রী পাঠায় ভারত। তার মধ্যে ছিল চাল, ডাল, চিনি, লবণ, বিস্কুট, গুঁড়ো দুধ, নুডলস, সাবান, মশারি ও তেল। মানবিক এ সহযোগিতার স্মারক হিসেবে দ্বিতীয় দফায় ১০৪ মেট্রিক টন গুঁড়ো দুধ, ১০২ মেট্রিক টন শুঁটকি মাছ, ৬১ মেট্রিক টন শিশুখাদ্য, ৫০ হাজার রেইনকোট এবং ৫০ হাজার গামবুট পাঠায় ভারত। যা চট্টগ্রামে হস্তান্তর করেন তৎকালীন হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে তৃতীয় দফায় ১০ লাখ ১০ হাজার লিটার কেরোসিন তেল ও ২০ হাজার স্টোভ দেওয়া হয়।

আরো পড়ুন: মুক্তিযুদ্ধের প্রধান মিত্র হিসেবে ভারতকে মুজিববর্ষে আমন্ত্রণ : ওবায়দুল কাদের

ভারতীয় ত্রাণ সহায়তার চতুর্থ চালানে ছিল দুই লাখ ২৫ হাজার কম্বল, দুই লাখ উলের সোয়েটার ও পাঁচশ সৌর সড়কবাতি। বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে চতুর্থ পর্যায়ের ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়।

২০১৬ সালের মাঝামাঝি সময়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নিধনযজ্ঞ শুরু করলে বাংলাদেশ অভিমুখে শরণার্থীদের ঢল নামে। এ পর্যন্ত এ দেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লাখেরও বেশি বলে হিসাব বিভিন্ন সংস্থার। রোহিঙ্গাদের সসম্মানে প্রত্যাবাসনে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সহযোগিতায় কাজ করছে বাংলাদেশ। এ সংকট নিরসনে বরাবরই বাংলাদেশের পাশে থাকার কথা বলছে ভারত।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- দুর্যোগ ও ত্রাণ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শাহ কামাল, শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মাহবুব আলম তালুকদারসহ দেশি-বিদেশি এনজিও প্রতিনিধিরা।

ইত্তেফাক/এএএম

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
০৭ এপ্রিল, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন