ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬
৩১ °সে

বেনাপোলে সাড়া ফেলেছে মানবতার দেয়াল

বেনাপোলে সাড়া ফেলেছে মানবতার দেয়াল
মানবতার দেয়ালে সাড়া দিয়ে আলোচনা সভায় উপস্থিত অতিথিরা। ছবি : ইত্তেফাক

বেনাপোল সীমান্তে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে সাড়া ফেলেছে মানবতার দেয়াল। তরুণদের এই ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে সব শ্রেণি পেশার মানুষ। প্রচণ্ড শৈতপ্রবাহে যখন কাপছে দেশ, দুর্ভোগে এলাকার ছিন্নমূল মানুষ, তখনই যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের পাশেই জনসম্মুখে উন্মুক্ত স্থানে দেয়ালে লেখা হয়েছে মানবতার দেয়াল।

এক পাশে লেখা হয়েছে ‘এখানে আপনার অপ্রয়োজনীয় জিনিস রেখে যান। আর এক পাশে লেখা হয়েছে আপনার প্রয়োজনীয় জিনিষটি নিয়ে যান।’ বাসাবাড়ি বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে থাকা পুরনো ও অপ্রয়োজনীয় বস্ত্র স্বেচ্ছায় মানবতার দেয়ালে রেখে যাচ্ছেন স্থানীয়রা। এ সব বস্ত্র মনের আনন্দে নিয়ে যাচ্ছে পথচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। অপ্রয়োজনীয় বস্ত্র দিয়ে সাধারণ মানুষের উপকার করতে পারায় খুশি অনেকে।

আব্দুল জব্বার ও মরিয়ম বেগম এবং আবদার হোসেন জানান, তাদের বাড়িতে অনেক ভাল ভাল পোশাক নষ্ট হয়ে যায়। ছোট হয়ে যায় অনেক জামাকাপড়। তরুণদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে মানবতার দেয়ালে রেখে যেতে পেরে ভাল লাগছে।

মানবতার দেয়ালে সাড়া দিয়ে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, শার্শা উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম এ রহিম, কাউন্সিলর আহাদুজামান বকুল, সাংবাদিক মসিয়ার রহমান কাজল, আজিজুল হক, সমাজসেবক ফজলুর রহমান, এয়াকুব আলী, নাসির উদ্দিন, শুকুর আলী, মিজানুর রহমান, আলী হোসেন, রায়হান খান, আলামিন, আসিফ, সাকিব, রাব্বি, মাসুদ, মামুন মেহবুব, মাসুদ প্রমুখ।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বেনাপোলের বড় আচড়া গ্রামের রোমিও হাসান হিরোর আহ্বানে সমমনা ১৮ জনকে নিয়ে গঠন করা হয় ‘মানবতার দেয়াল তারুণ্য ১৮’। বিভিন্ন এলাকা থেকে সংগ্রহ করা হচ্ছে সদস্য। বেনাপোল রিপোর্টার্স মাল্টিপারপার্স সমিতি ও জিওসি সমবায় সমিতির সহযোগিতায় বেনাপোল বাজার-বন্দর এলাকা ও সীমান্ত এলাকায় ৩টি স্পটে এর কার্যক্রম চলছে। মানবতার দেয়াল-দেশ ব্যাপী ছড়িয়ে দিতে চান এ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা।

ইয়াকুব নামে একজন ভ্যানচালক অনেকে জানান, এমন ধরনের পোশাক কেনার সমর্থন নেই তাদের। মানবতার দেয়াল থেকে পছন্দের পোশাক নিতে পেরে খুবই ভাল লাগছে।

বেনাপোল পৌরসভার কাউন্সিলর আহাদুজামান বকুল বলেন, ‘মানবতার সেবাই-বড় ধর্ম। বর্হিবিশ্বের ছেলেদের ন্যায় এলাকার ছেলেদের এমন বড় একটি উদ্যোগকে সাধুবাদ জানায়। সব এলাকায় এ দেয়াল ছড়িয়ে দিতে পারলে উপকৃত হবে গা-গ্রামের অসহায় মানুষ।’

আরো পড়ুন : ঠাকুরগাঁও বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বজলুর রহমান বলেন, মানবতার দেয়াল মানুষের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে। এমন উদ্যোগকে এগিয়ে নেওয়াসহ সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

বেনাপোল মানবতার দেয়াল তারুণ্য ১৮ কমিটি সাধারণ সম্পাদক রোমিও হাসান হিরো বলেন, তিনটি স্পটে মানবতার দেয়াল থেকে অসহায় মানুষ পাচ্ছে তাদের প্রয়োজীয় জিনিষ। এ উদ্যোগের আলো হয়ে ছড়িয়ে পড়ুক দেশব্যাপি। জয় হোক তারুণ্যের।

ইত্তেফাক/ইউবি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৫ এপ্রিল, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন