ঢাকার ১০৫০ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি উপহার

ঢাকার ১০৫০ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি উপহার
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় সব ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম চলছে। ছবি: ইত্তেফাক

মুজিববর্ষে দেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে দেশের সব ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম চলছে।

আগামী শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপকারভোগী পরিবারের কাছে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্ভোধন করবেন। ৬৪ জেলার সব উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন প্রান্তে ভিডিও কনফারেন্সে বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসকগণসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সংযুক্ত থাকবেন। মুজিববর্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে একক গৃহ নির্মাণের মাধ্যমে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে সারাদেশে ৬৬, ১৮৯টি গৃহ নির্মিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা জেলা প্রশাসকের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এসময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের ইলিয়াস মেহেদী, সিনিয়র সহকারী কমিশনার আব্দুল আওয়াল, সহকারী কমিশনার শেখ মো. মামুনুর রশিদ।

আরও পড়ুন: ফুলবাড়ীতে ১৬৫ ভূমিহীন পাচ্ছেন জমিসহ ঘর

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‌‘গৃহ প্রদানের অংশ হিসেবে ঢাকা জেলায় ১০৫০টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের অনুকূলে ২ শতাংশ জমিসহ গৃহ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। ঢাকা জেলার দোহার উপজেলায় ১৯৮টি গৃহ, নবাবগঞ্জ উপজেলায় ৭৭০টি গৃহ, কেরাণীগঞ্জ উপজেলায় ৫টি গৃহ সাভার উপজেলায় ৪১টি গৃহ এবং ধামরাই উপজেলায় ৩৬টি গৃহ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণের জন্য প্রত্যেক উপজেলায় গ্রোথ সেন্টার হাটবাজার স্কুল কলেজ্জ শিল্প প্রতিষ্ঠানের কাছাকাছি এলাকায় জমি নির্বাচন করে গৃহ নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি গৃহে বৈদ্যুতিক সংযোগ, গভীর নলকুপ এবং স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। চলাচলের সুবিধার জনা গৃহ সমূহের পাশাপাশি রাস্তা নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি পরিবারের অনুকূলে ৩২ শতাংশ খাসজমি বন্দোবস্ত প্রদান পূর্বক উক্ত জমির উপর গৃহ নির্মাণ করা হয়েছে। বন্দোবস্তকৃত জমির কবুলিয়ত ও নামজারী সম্পন্ন করা হয়েছে।’

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জমি ও গৃহ করে দেওয়া হচ্ছে। যাদের প্রয়োজন তাদের সবাইকে দেওয়া হচ্ছে। উপাজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রশাসনের লোকেরা সরাসরি এ গৃহ নির্মাণের কাজ করছেন। এখানে দালাল ও ঠিকাদারদের দ্বারা করা হচ্ছে না। তালিকায় যাদের নাম বাদ গেছে এবং যাদের প্রয়োজন তারা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাদের জমি ও গৃহ প্রদান করা হবে।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x