ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩৪ °সে


প্রেমিকের প্ররোচনায় ইডেন কলেজ ছাত্রী মেঘার আত্মহত্যা

প্রেমিকের প্ররোচনায় ইডেন কলেজ ছাত্রী মেঘার আত্মহত্যা
মেঘা ও মাহিবি। ছবিঃ ইত্তেফাক।

ঢাকা ইডেন কলেজের সমাজ কল্যাণ বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ফাইনাল পরিক্ষার্থী ঝালকাঠির মেয়ে মেধাবী সায়মা কালাম মেঘা (২১) প্রেমিকের প্ররোচনায় আত্মহত্যা করেছে বলে তার পরিবার দাবি করেছে। ঘটনার পর থেকে প্রেমিক মাহিবি ও তার মা সেলিনা বেগম ঝালকাঠির বাসায় তালা লাগিয়ে পলাতক রয়েছে।

এই ঘটনায় ঢাকার কলাবাগান থানায় প্রেমিক মাহিবি ও তার মাকে দায়ী করে ইউডি মামলা করেছে মেঘার চাচা আবুল বাশার। গত ২১ এপ্রিল রবিবার সন্ধ্যায় ঢাকার কাঠালবাগান এলাকার ফ্রি স্কুল স্ট্রিট সড়কের ৭৪/১ নম্বর বাসার ৪র্থ তলার একটি কক্ষ থেকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মেঘার লাশ উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার মেঘার বাবা আবুল কালাম আজাদ ঝালকাঠির সার্কিট হাউজ সংলগ্ন তার বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে এই তথ্য তুলে ধরেন। এ সময় মেঘার মা রুবিনা আজাদ ও চাচা আবুল বাসার উপস্থিত থেকে সায়মার মৃত্যুর জন্য প্রেমিক মাহিবি হাসান ও তার মা সেলিনা বেগমের তদন্ত পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মেঘার মা রুবিনা উল্লেখ করে বলেন, ‘আমাদের একমাত্র কন্যা মেঘা ছিল মেধাবী ছাত্রী। ২০১৭ সালে ইডেন কলেজে সমাজকল্যান বিভাগে ভর্তি হয় মেঘা। ৩ বছর পূর্বে ঝালকাঠির পূর্ব চাঁদকাঠি এলাকার মাহিবি হাসানের (২৫) সঙ্গে মেঘার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

মৃত নফিজুর রহামানের পুত্র বরিশাল হাতেম আলী কলেজের অনার্স ফাইনাল বর্ষের ছাত্র মাহিবি হাসান। আমার মেয়ে মেঘার সঙ্গে সম্পর্কের সূত্র ধরে ২ বছর মাহিবি মেঘার ঢাকার বাসায় গিয়ে দেখা সাক্ষাত করতো। এক বছর পূর্বে আমরা বিষয়টি জানতে পেরে আমার মেয়েকে কঠর শাসনে রাখি। এতে মাহিবি মেঘার সঙ্গে দেখা করতে না পেরে তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেয়।

এরপর পূনরায় মেঘার সঙ্গে সে যোগাযোগ এবং দেখা সাক্ষাত শুরু করে। ইতিমধ্যে দুই পক্ষের পারিবারিক উদ্যোগে মেঘাকে বিয়ের জন্য ২ বার কাবিন রেজিস্ট্রির তারিখ পিছিয়ে দেয় মাহিবি।

মেঘার মা রুবিনা আরো জানান, এইভাবে প্রতারণার এক পর্যায়ে গত ২১ এপ্রিল শবেবরাতের দিন গোপনে মেঘা ও মাহিবির বিয়ের রেজিস্ট্রি কারার দিন চুড়ান্ত করে। কিন্তু এই ঘটনা মেঘাকে বাসায় না জানাতে বলায় মাহিবি ঢাকায় না গিয়ে ঐ দিন মেবাইল ফোনে ভিডিও কল দিয়ে চরম অপমান করে। এটা সহ্য করতে না পেরে ভিডিও কল চলা অবস্থায়ই ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ২১ এপ্রিল ৪টা ৪৫ মিনিটে আত্মহননের পথ বেছে নেয় মেঘা।

ঘটনার পর ৫টা ২ মিনিটে ঝালকাঠি বসে মেঘার মাকে আত্মহত্যার কথা জানায় মাহিবি। ৫টা ১৭ মিনিটে মাহিবি মেঘার বান্ধবী আফরিন আজাদকে মেঘা আত্মহত্যা করেছে বলে জানায় মাহিবি তার ০১৭৫০০৭১৮৫৩ নম্বর মোবাইল থেকে। মেঘার বাবা আবুল কালাম আজাদ জানান, এই খবর পেয়ে আমরা ঢাকায় গিয়ে পোস্টমর্টেম শেষে পুলিশের কাছ থেকে মেঘার মৃতদেহ বুঝে নিই। এ সময় পুলিশ তাৎক্ষনিকভাবে মেঘার মোবাইল ফোন ও ডায়রিসহ মালামাল জব্দ করে বান্ধবী আফরিনকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে এই ঘটনা জানতে পারে।

গতকাল সংবাদ সম্মেলনে মেঘার মা-বাবাসহ স্বজনরা মেঘাকে বিয়ে না করে আত্মহননের পথ বেছে নেওয়ার জন্য প্রেমিক মাহিবি ও তার মাকে দায়ী করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

আরও পড়ুনঃ সবাইকে ইসলামের পথে আসার আহবান জানালেন আহমাদ শফি

এ বিষয়ে মাহিবির মোবাইল ০১৭৫০০৭১৮৫৩ নম্বরে যোগাযোগ করা হলে বন্ধ পাওয়া যায়। এছড়া মাহিবির পূর্ব চাঁদকাঠির বাসায় গিয়ে তালাবদ্ধ দেখে জানতে চাইলে প্রতিবেশীরা জানায় তারা শব-ই-বরাতের পর দিন বাসায় তালা দিয়ে চলে গেছে।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২০ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন