ঢাকা শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬
২৮ °সে


মধ্যপাড়ায় পাথর উত্তোলন পাঁচ মাস ধরে বন্ধ

মধ্যপাড়ায় পাথর উত্তোলন পাঁচ মাস ধরে বন্ধ
বিক্রির জন্য স্তূপ করে রাখা হয়েছে পাথর —ইত্তেফাক

পাঁচ মাস ধরে পাথর খনি দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (এমজিএমসিএল) পাথর উত্তোলন পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। আর এ কারণে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে অস্বাভাবিকহারে বেড়েছে ভারত থেকে পাথর আমদানি। এ স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন পাথর বাংলাদেশে প্রবেশ করছে।

দীর্ঘদিন ধরে মধ্যপাড়া খনির পাথর উত্তোলন বন্ধ থাকায় খনিটি লোকসানে পড়ছে এবং সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। তবে মধ্যপাড়া খনি কর্তৃপক্ষ বলছে এক সপ্তাহের মধ্যেই চালু করা হবে খনির পাথর উত্তোলন।

আরও পড়ুন: ট্রেনে অবৈধ পণ্য পরিবহনরোধে স্টেশনে বডি স্ক্যানার স্থাপনের সুপারিশ

মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড সূত্রে জানা যায়, খনির পাথর উত্তোলন যন্ত্র ক্রিপ্ট মোটর গিয়ারবক্সের পিনিয়াম নষ্টের কারণ দেখিয়ে চলতি বছরের ৩ এপ্রিল রাত থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধ করে দেয় খনির বিদেশি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম-জিটিসি। এ ব্যাপারে খনি কর্তৃপক্ষ এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি একে অপরকে দোষারোপ করে।

পাথর উত্তোলন বন্ধের পর পরই জিটিসির মহাব্যবস্থাপক জাবেদ সিদ্দিকী জানান, খনি কর্তৃপক্ষ বরাবরই পাথর উত্তোলনের ব্যাপারে তাদের অসহযোগিতা করে আসছে। পাথর উত্তোলন যন্ত্রের ক্রিপ্ট মোটর গিয়ারবক্সের পিনিয়াম নষ্টের কথা জানিয়ে তা আনার কথা বললেও খনি কর্তৃপক্ষ তাতে কর্ণপাত করেননি। এ কারণেই পাথর উত্তোলন বন্ধ রয়েছে বলে জানান তিনি।

অপরদিকে এমজিএমসিএল-এর মহাব্যবস্থাপক (অপারেশন) আবু তালেব ফারাজী জানান, উত্পাদন শুরু করতে বারবার চিঠি দেওয়া হলেও জিটিসি কোনো জবাব দিচ্ছে না ও উত্পাদন শুরুর কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করছে না। অবশেষে গত ২১ জুলাই মো. ফজলুর রহমান মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে যোগদানের পর খনির পাথর উত্তোলনের উদ্যোগ গ্রহণ করে। চীন থেকে আনা হয় পাথর উত্তোলন যন্ত্র ক্রিপ্ট মোটর গিয়ারবক্সের নতুন পিনিয়াম। ইতিমধ্যেই পিনিয়াম স্থাপন করা হয়েছে।

খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ফজলুর রহমান বলেন, ‘আগামী সপ্তাহের মধ্যেই খনির পাথর উত্তোলনের পাশাপাশি লোকসান কাটাতে পাথর বিক্রি বৃদ্ধির ব্যাপারেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের সঙ্গে পাথর বিক্রির একটি প্রক্রিয়া চলছে। রেলমন্ত্রীর সঙ্গেও কথা হয়েছে।’

হিলি স্থলবন্দরের বেসরকারি অপারেটর পানামা পোর্ট লিংক লিমিটেডের গণসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন মল্লিক প্রতাপ জানান, এই স্থলবন্দর দিয়ে আগে ভারত থেকে প্রতিদিন গড়ে পাথর আমদানি হতো ৪০ থেকে ৫০ ট্রাক। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এখন প্রতিদিন ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে পাথরবাহী ১০০ থেকে ১২০টি ট্রাক। প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টনেরও বেশি পাথর ভারত থেকে আমদানি হচ্ছে। হিলি স্থলবন্দর সূত্রে জানা যায়, গত সপ্তাহের ছয় কর্মদিবসে ভারত থেকে ৩০ হাজার ৭৭০ মেট্রিক টন পাথর বাংলাদেশে আমদানি হয়েছে।

ইত্তেফাক/এমআরএম

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন