মঠবাড়িয়ায় শিক্ষকের বেতের আঘাতে শিক্ষার্থীর চোখ নষ্টের আশংকা

মঠবাড়িয়ায় শিক্ষকের বেতের আঘাতে শিক্ষার্থীর চোখ নষ্টের আশংকা
চোখে শিক্ষকের বেতের আঘাতপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী জিহাদ। ছবি: ইত্তেফাক

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় গোলাম রব্বানী নামের এক শিক্ষকের বেতের আঘাতে জিহাদ বেপারী নামে ১০ম শ্রেণি পড়ুয়া স্কুলছাত্রের এক চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। বাম চোখে গুরুতর আঘাত নিয়ে ওই শিক্ষার্থী এখন ঢাকার একটি চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এদিকে আহত শিক্ষার্থীর বিক্ষুব্ধ সহপাঠী ও অভিভাবকরা ওই শিক্ষকের বিচার দাবিতে বুধবার স্কুল ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়ার সভাপতিত্বে জরুরি সভার আয়োজন করে। সভায় অভিযুক্ত স্কুল শিক্ষককে কারণ দর্শানো নোটিশ প্রদান করা হয়। এতে আগামী তিন দিনের মধ্যে তাকে লিখিত জবাব দিতে বলা হয়।

আহত শিক্ষার্থী জিহাদ সাপলেজা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে। সে স্থানীয় সৌদি প্রবাসী বাবুল বেপারীর ছেলে।

আহত শিক্ষার্থীর পরিবার ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন, শিক্ষার্থী জিহাদ গত ২৫ আগস্ট সকালে সাপলেজা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম রব্বানি লিটনের কাছে প্রাইভেট পড়ছিলো। এ সময় হোম ওয়ার্ক না হওয়ায় ওই শিক্ষক ক্ষিপ্ত হয়ে নির্দয়ভাবে বেতের পিটুনি দেয়। এ সময় জিহাদের বাম চোখে আঘাত লাগে।

এ ঘটনায় জিহাদের চোখে রক্তক্ষরণ হওয়ায় স্বজনরা জিহাদকে আহত অবস্থায় প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে খুলনা ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতালের চক্ষু বিভাগে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানোর পরামর্শ দেন। বর্তমানে জিহাদ ঢাকার ধানমণ্ডি হারুন আই ফাউন্ডেশন হাসপাতালে অধ্যাপক ডা. শেখ এ. এন. মান্নানের তত্ত্ববধানে চিকিৎসাধীন।

আহত স্কুলছাত্রের মা জাহানুর বেগম বলেন, 'চিকিৎসকরা বলছেন ছেলের বাম চোখের অবস্থা সংকটজনক। আমার ছেলের বাম চোখ হারাতে হয় কি না সে শংকায় আছি। চিকিৎসক জানিয়েছেন অপারেশন করা প্রয়োজন।'

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক গোলাম রব্বানি লিটন বলেন, 'অন্য এক শিক্ষার্থীকে মারতে গিয়ে অসাবধানতা বশত জিহাদের চোখে লেগে যায়। তার চিকিৎসার খরচ আমি বহন করতে চাই।'

এ বিষয়ে সাপলেজা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাশেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার স্কুল ম্যানেজিং কমিটি স্কুলে জরুরী সভা ডেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। তাকে তিন দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন: মিঠাপুকুরে এক বৃদ্ধকে রাতভর নির্যাতন করেছে স্থানীয় বখাটেরা

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিএম সরফরাজ বলেন, আমার দপ্তরে এ বিষয়ে লিখিত কেউ অভিযোগ দেয়নি। তবে গতকাল বৃহস্পতিবার বিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে মৌখিকভাবে জেনেছি। এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে জবাব দিতে নোটিশ দিয়ে ডেকে পাঠানোর জন্য উপজেলা শিক্ষা দপ্তরকে বলা হয়েছে।

ইত্তেফাক/নূহু

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত