অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেও ভারতের বিভিন্ন খাতে চীনের 'দাপট'

অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেও ভারতের বিভিন্ন খাতে চীনের 'দাপট'
ছবি সংগৃহীত

লাদাখে ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা শুরুর পর থেকে ভারতীয় সরকার দেশটিতে চীনা বাণিজ্যের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণে তত্পর হয়ে উঠে। এ নিয়ে দেশটি ইতোমধ্যে অনেক চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে। তবে অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেও ভারতের বিভিন্ন খাতে এখনো রয়েছে চীনের 'দাপট'।

চীন সরকারের প্রভাব বাড়াতে ভারতের বিভিন্ন খাতে উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ করেছে দেশটির বিভিন্ন কোম্পানি। এর মধ্যে রয়েছে ভারতের বিনোদন খাত ও খবর সরবরাহের নিউজস অ্যাপ্সগুলো।

নিউজ ও ইবুক অ্যাপ ডেইলিহান্ট চীনা কোম্পানি বাইটড্যান্সের কাছ থেকে ২৫ মিলিয়ন ডলার ফান্ড নিয়েছে।বিনিয়োগের সঙ্গে বাইটড্যান্সের ফাউন্ডার ও সিইও ডেইলিহান্টের বোর্ডে যোগ দেন। যদিও এই কোম্পানির জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটক ভারত নিষিদ্ধ করেছে।

২০১৬ সালে ডেইলিহান্টের অ্যাপ ডাউনলোডকারীর সংখ্যা ছিল ১২০ মিলিয়নে বেশি। এবং মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারী ছিলেন ২৮ মিলিয়ন।

একইরকম আরেক নিউজ এগ্রিগেটর অ্যাপ নিউজডগে ৫০ মিলিয়ন ডলার সিরিজ সি রাউন্ড বিনিয়োগের ঘোষণা করে টেনসেন্ট। টেনসেন্টও চীনা কোম্পানি।

এছাড়া ভারতে চীনা স্মার্টফোন সংস্থা শাওমি হাঙ্গামা ডিজিটাল মিডিয়া এন্টারটেইনমেন্টে ২৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। ২০১৬ সালে যখন চীনা কোম্পানি এতে বিনিয়োগ করে তখন হাঙ্গামায় মিউজিক, ভিডিও ও সিনেমা প্লাটফর্মে মাসিক গ্রাহক ছিল ৬৫ মিলিয়নের বেশি।

এছাড়া ভারতের 'গানা' নামের বৃহত সংগীত স্ট্রিমিং পরিষেবায় চীনা কোম্পানি টেনসেন্ট ১১৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে। ম্যাক্স প্লেয়ারেও মোটা অঙ্কের বিনিয়োগ আছে টেনসেন্টের। ভারতে ম্যাক্স প্লেয়ারের বিশাল বাজার। ২০১৯ সালের অক্টোবর পর্যন্ত এর মাসিক ব্যাবহারকারীর সংখ্যা ছিল ১৭৫ মিলিয়ন।

এদিকে মার্চে চীনা গেমিং জায়ান্ট বেইজিন কুনলুন তার বিশাল জনপ্রিয় গে ডেটিং অ্যাপ গ্রিন্ডার বিক্রি করতে সম্মত হয়েছে। মার্কিন প্রশাসন একে জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ হিসেবে গণ্য করার পর এই সিদ্ধান্ত নেয় কোম্পানিটি।

চীনের বিভিন্ন কোম্পানিকে দেশটির সরকার বিভিন্ন দেশে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে বলে বিশ্বব্যাপী অভিযোগ রয়েছে। সেইসঙ্গে চীনা অ্যাপস ও মোবাইলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে গ্রাহকদের তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার খবরও বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে উঠে এসেছে।

সম্প্রতি ভারতীয় সরকার দেশটির অর্থনীতিতে চীনা প্রভাব খতিয়ে দেখার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। তবে এরপরও চীনা কোম্পানির প্রভাব কমাতে এখনো অনেক কিছু করা বাকি। আল আরবীয় পোস্ট

ইত্তেফাক/এসআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত