' জঙ্গি মদদের অভিযোগে পাকিস্তানকে সামরিক সাহায্য দেয়া বন্ধ করেছেন ট্রাম্প’

' জঙ্গি মদদের অভিযোগে পাকিস্তানকে সামরিক সাহায্য দেয়া বন্ধ করেছেন ট্রাম্প’
জাতিসংঘে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন দূত  নিকি হ্যালি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পাকিস্তান সরকারকে সামরিক সাহায্যের জন্য যে আর্থিক অনুদান দিতেন তা বন্ধ করে দিয়েছেন। কারণ পাকিস্তান সেসব অর্থ উগ্রবাদী জঙ্গি মদদে ব্যয় করেছে। এমনটিই জানিয়েছেন ইন্ডিয়ান-আমেরিকান রিপাবলিকান রাজনীতিবিদ ও জাতিসংঘে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন দূত নিকি হ্যালি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণার জন্যে ফিলাডেলফিয়া অঙ্গরাজ্যে ইন্ডিয়ান ভয়েসেস ফর ট্রাম্প সংগঠন এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সেখানে বক্তব্য দেয়ার সময় এসব কথা বলেন হ্যালি। সেইসঙ্গে ট্রাম্পের পররাষ্ট্রনীতির ব্যাপক প্রশংশাও করেছেন তিনি।

বক্তব্যে পাকিস্তানকে আর্থিক অনুদান বন্ধ করে দেয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট পাকিস্তানকে সামরিকভাবে আরো উন্নত করতে চেয়েছিলেন। সে লক্ষ্যে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার তাদের অনুদান দিয়েছেন। কিন্তু সেই অর্থ জঙ্গিবাদের মদদে খরচ করেছে পাকিস্তানিরা। যারা পরবর্তীতে আমাদের সেনাদেরই হত্যা করেছে। বর্তমানে সেই অনুদান বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি।

এনডিটিভি বলছে, গত কয়েকবছর ধরেই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মদদের অভিযোগ তুলে আসছে মার্কিন প্রশাসন। ২০১৮ সালে দমনে জঙ্গিবাদ ব্যর্থতার দায়ে দেশটিকে ৩০ কোটি ডলার সামরিক অনুদান না দেয়ার ঘোষণা দেন ট্রাম্প। সেই থেকে পাকিস্তানকে আর্থিক সহায়তা দেয়নি ট্রাম্প প্রশাসন।

ওই সময়ে ট্রাম্প এক টুইটে বলেন, গত ১৫ বছরে পাকিস্তানকে ৩৩ বিলিয়ন ডলারের বেশি আর্থিক অনুদান দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর বিনিময়ে তারা আমাদের মিথ্যা ও ধোকা দিয়েছে। তারা ভেবেছে আমাদের নেতারা বোকা। আফগানিস্তানে আমরা যেসব সন্ত্রাসীদের খুঁজে বেড়াচ্ছি তাদের আশ্রয় ও প্রশ্রয় দিয়েছে পাকিস্তান। কিন্তু আর না।

এরপর ২০১৯ সালের এক মার্কিন প্রতিবেদনে পাকিস্তানকে জঙ্গিবাদের উর্বর ভূমি হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়।

ইত্তেফাক/টিআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত