ইন্দোনেশিয়ায় ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবিত উদ্ধারের চেষ্টা

ইন্দোনেশিয়ায় ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবিত উদ্ধারের চেষ্টা
ইন্দোনেশিয়ায় ধ্বংসস্তূপে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছেন উদ্ধারকর্মীরা। ছবি: রয়টার্স।

সাত সেকেন্ড স্থায়ী এ ভূমিকম্পে অন্তত ৬০টি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইন্দোনেশিয়ায়। যার মধ্যে দুটি হোটেল, প্রাদেশিক গভর্নরের কার্যালয় এবং একটি মল রয়েছে। ভূমিকম্প চলাকালে আতঙ্কিত মানুষ বেরিয়ে এসে খোলা যায়গায় অবস্থান নেয়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাতে জানা যায়, মামুজু শহরের একটি উদ্ধারকারী সংস্থার সদস্য আরিয়ান্তো বলেন, ‘হাসপাতাল ধসে গেছে, বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে এটি। ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে পড়েছে রোগী ও হাসপাতাল কর্মীরা। আমরা এখন তাদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করছি।’ তবে ঠিক কত সংখ্যক মানুষ চাপা পড়েছেন তা স্পষ্ট করে বলতে পারেননি তিনি।

ওই ভূমিকম্প এবং পরাঘাতে কয়েক জায়গায় ভূমিধ্বস হয়েছে, বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে বিভিন্ন এলাকায়, সেতু ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হচ্ছে। ভূমিকম্পের জেরে মামুজুতে ভেঙে পড়েছে হাসপাতাল। ধ্বংসাবশেষের নিচে আটকে পড়েছেন রোগী, চিকিৎসক, নার্স সকলেই। এখনো চলছে উদ্ধার কর্ম।

আরো পড়ুন: পাকিস্তান ও চীনকে ভারতীয় সেনা প্রধানের হুঁশিয়ারি

অন্যদিকে দেশটির জাতীয় দুর্যোগ সংস্থা জানিয়েছে, মামুজু শহরের এক যায়গায় আরও ৮ জন নিহত হয়েছে। এই শহরের এক বিধ্বস্ত হাসপাতালের ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়া বহু রোগী এবং হাসপাতাল কর্মীদের উদ্ধারে অভিযান চলছে দমকল কর্মীরা।সংস্থার পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে, দেশটির স্থানীয় সময় রাত ১ টা নাগাদ ভূমিকম্প আঘাত হানার পর হাজারো মানুষ বাড়ি ছেড়ে নিরাপদ স্থানের খোঁজে পালায়।

ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলা সংস্থার প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী মাজেনিতে ৬৩৭ জন আহত হয়েছে। আর মামুজু শহরে আহতের সংখ্যা ২৪ জন। এখনও কোনও সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়নি। তবে ইন্দোনেশিয়ার মিটিওরোলজি অ্যান্ড জিওফিজিক্স এজেন্সি (বিএমকেজি)-এর প্রধান দোয়িকোরিতা কারনাওয়াতি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আরও আফটার শক হতে পারে। আরেকটি শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়ে সুনামির আশঙ্কাও রয়েছে।

ইত্তেফাক/এএইচপি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x